শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮, ১৭ সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

ময়মনসিংহে মসজিদের ইমাম ও মাদ্রাসার মোহতামিমকে বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ ও হত্যার হুমকি

ময়মনসিংহ ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩১ জুলাই, ২০২১, ৫:৫০ পিএম | আপডেট : ৮:১৬ পিএম, ৩১ জুলাই, ২০২১

ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় এক মসজিদের ইমাম ও মাদ্রাসার মোহতামীমকে বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ ও হত্যার হুমকি দিয়েছে স্থানীয় এমদাদসহ তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনী।বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন মাওলানা আব্দুল হাকিমকে তার নিজ গ্রামের এমদাদ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা বাড়ীর পুকুরের মাছ ধরে নিয়ে তার দখলিও জায়গায় জোড় পূর্বক দোকান ঘর উঠিয়ে তাকে বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদের ও হত্যার এই হুমকি দেয় ।

এই ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহ সদর উপজেলার পরানগঞ্জ ইউনিয়নের ভাগাডোবা নামাপাড়া গ্রামে।

ভুক্তভোগী মাওলানা আব্দুল হাকিম জানান,তিনি টাঙ্গাইল জেলা সদরের রামনা বাইপাস কওমী মহিলা মাদ্রাসা ও ছাবিনুন নাজাত কওমী মহিলা মাদ্রাসার মোহতামীম এবং টাঙ্গাইল সদরের সারুটিয়া বাজার কেন্দ্রীয় জামে-মসজিদের ইমাম এবং টাঙ্গাইল জেলায় ইমাম - মোয়াজ্জিন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে কর্মরত আছেন। তিনি গত ২৭ জুলাই তার নিজ গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার সদর উপজেলার পরানগঞ্জের ভাগাডোবা নামাপাড়ায় আসেন।

একইদিনে তিনি দেখতে পান তাঁর নিজ দখলিও সম্পত্তিতে এমদাদ এর সন্ত্রাসী বাহিনীর মন্নাছ দোকানঘর উঠিয়ে ব্যবসা করছে। এই ঘটনার প্রতিবাদ করলে এমদাদ এর সন্ত্রাসী বাহিনী তার বাড়িঘরে হামলা করে এবং বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ ও হত্যার হুমকি দেয়।এমদাদের নেতৃত্বে একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা সশস্ত্র হামলা করে ভুক্তভোগী মাওলানা আব্দুল হাকিমের উপড়। সেই হামলার মুখে পালিয়ে কোনমতে প্রাণ রক্ষা করেন মাওলানা আব্দুল হাকিম।

পরের দিন অর্থাৎ ২৮ জুলাই কোতোয়ালী থানায় এই ঘটনায় একটি ডায়েরি করেন ভুক্তভোগী মাওলানা আব্দুল হাকিম।যার ডায়েরি নং ১৫২৭ তাং ২৮/৭/২১।

ডায়েরী করার পর ঘটনাটির তদন্ত করতে যান কোতোয়ালী থানার এসআই আমিনুর রহমান।তিনি ঘটনাস্থলে গেলে এমদাদ বাহিনীর কাউকে ঘটনাস্থলে পাননি। এসময় তদন্তকারী এসআই আমিনুর রহমান জানিয়ে দিয়ে আসেন যে- এমদাদ বাহিনীর লোকজন যদি অন্যায় ও শত্রুতাবশত সশস্ত্র অবস্থায় মাওলানা আাব্দুল হাকিম এর জমিতে ও পুকুরে প্রবেশ করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।এই ঘটনার পরপরই বিকাল ৫ টার দিকে এমদাদ বাহিনী আবারও মাওলানা আব্দুল হাকিমকে হত্যার জন্য হুমকি প্রদর্শণ করে।এই ঘটনার পর তিনি পালিয়ে টাঙ্গাইলে চলে যান।

উল্লেখ্য যে , আব্দুল হাকিম টাঙ্গাইলে কর্মস্থলে বসবাস করেন। কেবলমাত্র তার স্ত্রী এবং ৯০বছরের বৃদ্ধ মাতা এই গ্রামের বাড়িতে বসবাস করেন। সন্ত্রাসীরা যেকোনো মুহূর্তে তার বাড়িঘর দখল করে নিতে পারে। এই ভয়ে তার স্ত্রী-পুত্র বৃদ্ধ মাতা আতঙ্কে রয়েছেন । এমদাদ বাহিনী ও মুন্নাছরা এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। এ ব্যাপারে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করা হচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Dadhack ৩১ জুলাই, ২০২১, ৬:০২ পিএম says : 0
সরকার নিজেই বড় সন্ত্রাসী তারা কিভাবে সাধারণ মানুষকে বাঁচাবে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন