শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮, ১৭ সফর ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

‘বিশ্বকাপের মহড়া’ মিরপুরে

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০২১, ১২:০১ এএম

যেন মিরপুর স্টেডিয়াম পরিদর্শন করতে এসেছেন কোনো ‘রাষ্ট্রপ্রধান’। গতকাল পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগে শেষবারের মতো নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার আগে অস্ট্রেলিয়া মিরপুরে পাঠাল চার সদস্যের পর্যবেক্ষক দল। তারা সবুজ সংকেত দিল। এরপরই অনুশীলনে নামে অজিরা। চিত্রটি নিয়মিত বানিয়ে ফেলেছে দলটি। বাংলাদেশ সফরে আসার আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে একের পর এক ‘জমিদারি’ আবদারের পর আজ অজিরা প্রথম টি-টোয়েন্টি খেলতে মাঠে নামবে স্বাগতিক দলের বিপক্ষে।
২০১১ সালের পর যে এই প্রথম সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে বাংলাদেশের এসেছে অস্ট্রেলিয়া। বেশ ক’বার সিরিজ নিশ্চিত হলেও বারবারই মুখ থুবড়ে পড়েছে অস্ট্রেলিয়ার নানান টালবাহানায়। অবশেষ আলোর মুখ দেখছে তা। শেরে বাংলায় মাঠের লড়াইয়ে মুখোমুখি হতে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এর আগে চারটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। চারটিই বৈশ্বিক ক্রিকেটের মঞ্চ বিশ্বকাপে। যা যথাক্রমে ২০০৭, ২০১০, ২০১৪ ও ২০১৬ বিশ্বকাপে। যার সবক’টি ম্যাচেই হেরেছে টিম টাইগার্স। দুই দল এবার প্রথম এই সংস্করণে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে যাচ্ছে।
এবার পাঁচ ম্যাচের এই দ্বিপাক্ষিক সিরিজের এ অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের জন্য নতুন হলেও নিউজিল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এর আগে পাঁচটি করে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। এছাড়া নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং অস্ট্রেলিয়ার পাশাপাশি ভারত, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকারও রয়েছে এমন অভিজ্ঞতা। অবশ্য আইসিসির বাকি পূর্ণ সদস্য দেশ শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, জিম্বাবুয়ে, আয়ারল্যান্ড ও আফগানিস্তানের এমন কিছুর সুযোগ এখনো হয়নি।
বাংলাদেশের বিশ্বমানের স্পিনার সাকিব আল হাসানের বিপক্ষে অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে মিরপুর স্টেডিয়াম ছাড়াও অ্যাকাডেমি মাঠে লম্বা সময় ধরে নেটে ব্যাটিংয়ে নিজেদের প্রস্তুত করেছেন মিচেল মার্শ, ম্যাথুউ ওয়েডরা। অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার অ্যাস্টন টার্নার বলেন, ‘আমি দারুণ রোমাঞ্চিত বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এসেছি। তবে, এখানকার উইকেট স্পিন সহায়ক হবে। তাদের বিশ্বমানের স্পিনার আছে। অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা নেবে বাংলাদেশের স্পিনাররা। আমারও সেইভাবেই প্রস্তুতি নিয়েছি।’
কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারও স্কোয়াডে থাকা স্পিনাদের লম্বা সময় বোলিং করিয়েছেন। ব্যাটারদেরও স্পিন মোকাবেলার আগাম বার্তা দিয়েছেন। চ্যালেঞ্জ একটাই। মাঠে নামবার আগে যতটা পরিপাটি অজিরা, ততোটাই যেন সিরিজের ফলাফলেও হয়।
অন্যদিকে ‘টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ খুব ভালো দল নয়’-এমন প্রশ্নে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে হেসে উঠলেও বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর মনের ভেতরে আসলে জমে ছিল অভিমানের পাহাড়! সেই পাহাড় ঠেলে নিজেকে হালকা করতেই কিনা ডমিঙ্গো কোনো রাখঢাক না রেখেই বললেন, ‘বাংলাদেশ দল সম্পর্কে টানা নেতিবাচক লেখা পড়তে পড়তে আমি হতাশ। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ খুব ভালো নয়, এটি শোনা খুবই হতাশার। আমরা টি-টোয়েন্টিতে ভালো নই, এটাতে একেবারেই একমত নই। টি-টোয়েন্টিতে আমরা কিছু দুর্দান্ত খেলোয়াড় পেয়েছি।’
কাল মিরপুরে অনুশীলনের ফাঁকে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডমিঙ্গো যতই আত্মপক্ষ সমর্থন করুন, পরিসংখ্যান তার হয়ে কথা বলছে না। এটা ঠিক, টেস্টে বাংলাদেশ এখনো সেভাবে নিজেদের চেনাতে পারেনি। তবে ওয়ানডেতে পাঁচ-ছয় বছরে ধারাবাহিক সফল সাকিব-তামিমরা। সেখানে সাদা বলেরই আরেক সংস্করণে (টি-টোয়েন্টি) খেলতে গেলেই নিয়মিত পা হড়কায় বাংলাদেশ। সর্বশেষ জিম্বাবুয়ে সফরেও সেটি দেখা গেছে। সফরে একটা ম্যাচই বাংলাদেশ হেরেছে, সেটি টি-টোয়েন্টি।
পরিসংখ্যানও বলছে, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশ দল এখনো পড়ে আছে ‘তৃতীয় বিশ্বে’। গত ১৫ বছরে বাংলাদেশ ১০২ টি-টোয়েন্টি খেলে জিতেছে ৩৪টি। হেরেছে ৬৬টি। তিন ভাগের দুই ভাগ ম্যাচেই হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে বাংলাদেশকে। এই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও র‌্যাঙ্কিংয়ের দশ নম্বর দল বাংলাদেশকে খেলতে হবে বাছাইপর্ব পেরিয়ে, সরাসরি নয়।
ডমিঙ্গো যে নিজেদের ‘ভালো দল’ বলতে চাইছেন, সেটি প্রমাণের ভালো একটা পরীক্ষা তাদের দিতে হবে আজ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহদের প্রথম পাঁচ ম্যাচের দ্বিপক্ষীয় সিরিজটি শুরু হচ্ছে আজ সন্ধ্যায়। টি-টোয়েন্টিতে এখনো বিশ্বকাপ না জিতলেও পাঁচবারের ওয়ানডে বিশ্বকাপজয়ীদের বিপক্ষে বাংলাদেশের পরীক্ষাটা একটু কঠিনই হবে।
অস্ট্রেলিয়া-পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে তিন দিনের রুম কোয়ারেন্টিন শেষে গতপরশু সকালে মাঠে নেমেছেন সাকিব-মাহমুদউল্লাহরা। বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টকে যথেষ্ট ভাবতে হচ্ছে কার্যকর একাদশ সাজাতে।
জিম্বাবুয়েতে টি-টোয়েন্টি সিরিজে সৌম্য সরকার-মোহাম্মদ নাঈম ওপেন করেছেন। দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে জিম্বাবুয়ে সফরের শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সৌম্যর চোট পাওয়াটা। যদিও কাল টিম ম্যানেজমেন্টকে স্বস্তি দিয়ে এই বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান নেটে ব্যাটিং করেছেন। কোনো কারণে যদি না খেলতে পারেন, সৌম্যর বিকল্প হিসেবে সাকিব-মিঠুনকে ওপেনিংয়ে পাঠানোর চিন্তা আছে বাংলাদেশের। যদিও ১৫ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে তিন সংস্করণে ৩৫২টি ম্যাচ খেললেও সাকিব কখনো ওপেন করেননি।
মিরপুরের উইকেট কিছুটা মন্থর ও নিচু হয়। তবে বিশ্বকাপের ভাবনা মাথায় রেখে ডমিঙ্গো ইঙ্গিত দিলেন, এবার ভালো ব্যাটিং উইকেটই হচ্ছে! ভালো ব্যাটিং উইকেটে মিচেল স্টার্ক-অ্যাডাম জাম্পার বিপক্ষে বাংলাদেশ কেমন রানের পাহাড় গড়তে পারে, সেটিই দেখার।

টি-টোয়েন্টিতে দুই দল
মুখোমুখি বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া
ম্যাচ ৪ ০ ৪
বাংলাদেশে ১ ০ ১

সর্বাধিক ম্যাচ
বাংলাদেশ : মুশফিক/সাকিব, ৪টি করে
অস্ট্রেলিয়া : ওয়ার্নার/ওয়াটসন, ৩টি করে

অধিনায়ক হিসেবে
বাংলাদেশ : মাশরাফি/আশরাফুল/মুশফিক/সাকিব, ১টি করে
অস্ট্রেলিয়া : বেইলি/ক্লার্ক/পন্টিং/স্মিথ, ১টি করে

দলীয় সর্বোচ্চ
বাংলাদেশ : ১৫৬/৬, ব্যাঙ্গালুরু ২০১৬
অস্ট্রেলিয়া : ১৫৮/৩, ঢাকা ২০১৪

সর্বনিম্ন দলীয়
বাংলাদেশ : ১১৪, ব্রিজটাউন ২০১০
অস্ট্রেলিয়া : ১৪১/৭, ব্রিজটাউন ২০১০

বড় জয়
বাংলাদেশ : একটিও নেই
অস্ট্রেলিয়া : ২৭ রানে এবং ৯ উইকেটে

সর্বাধিক রান
বাংলাদেশ : সাকিব আল হাসান, ৪ ম্যাচে ১৪৩
অস্ট্রেলিয়া : ডেভিড ওয়ার্নার, ৩ ম্যাচে ৮১

সর্বোচ্চ ইনিংস
বাংলাদেশ : ৬৬, সাকিব আল হাসান, ঢাকা
অস্ট্রেলিয়া : ৭৩*, ম্যাথু হেইডেন, কেপ টাউন

সর্বাধিক ফিফটি
বাংলাদেশ : সাকিব আল হাসান, ৪ ম্যাচে ১টি
অস্ট্রেলিয়া : ফিঞ্চ/হেইডেন/খাজা, ১টি করে

জুটিতে সেরা
বাংলাদেশ : ১১২ সাকিব/মুশফিক (৩য় উই.), ঢাকা
অস্ট্রেলিয়া : ১০৪ গিলক্রিস্ট/হেইডেন (১ম উই.), কেপ টাউন

সর্বাধিক উইকেট
বাংলাদেশ : সাকিব আল হাসান, ৪ ম্যাচে ৫টি
অস্ট্রেলিয়া : ডির্ক ন্যানেস, ১ ম্যাচে ৪টি

সেরা বোলিং
বাংলাদেশ : সাকিব আল হাসান, ৪-০-২৪-২
অস্ট্রেলিয়া : ডির্ক ন্যানেস, ৪-০-১৮-৪

সর্বাধিক ক্যাচ
বাংলাদেশ : আফতাব/সাকিব, ২/৪ ম্যাচে ২টি করে
অস্ট্রেলিয়া : মাইক হাসি, ২ ম্যাচে ৪টি

সর্বাধিক ডিসমিসাল
বাংলাদেশ : মুশফিকুর রহিম, ৪ ম্যাচে ২টি
অস্ট্রেলিয়া : অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, ১ ম্যাচে ১টি

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন