শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ০৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

কাশ্মীরে ভারতের মানবাধিকার লঙ্ঘন, নিন্দায় ইইউ পার্লামেন্টারিয়ানদের চিঠি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০২১, ৯:২৭ পিএম

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাহিদ হাফিজ চৌধুরী এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ভারত কর্তৃক অবৈধভাবে অধিকৃত কাশ্মীরের (আইওকে) "মানবিক পরিস্থিতি" নিয়ে ইউরোপীয় কমিশনে ইউরোপীয় সংসদ সদস্যদের একটি চিঠিকে পাকিস্তান "স্বাগত" জানিয়েছে এবং এটিকে ভারতের মানবাধিকার লঙ্ঘনের "বিশ্বব্যাপী নিন্দার আরেকটি প্রদর্শনী" বলে অভিহিত করেছেন।-ডন

ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেয়েন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট জোসেপ বোরেলকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে আওয়াজ তুলে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে শুক্রবার এক চিঠি দিয়েছেন অবৈধভাবে ভারত কর্তৃক অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে ইউরোপের ষোলোজন আইনপ্রণেতা। ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, আমরা বিশ্বাস করি যে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কর্তৃক কাশ্মীরিদের কাছে দেওয়া অঙ্গীকারের প্রতি সম্মান জানাতে এবং জাতিসংঘের প্রস্তাব বাস্তবায়নের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করবেন। এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিঠিটিকে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, এই চিঠি জম্মু ও কাশ্মীরে চলমান মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং মানবিক সংকটের প্রতি বিশ্ববাসীর অব্যাহত নিন্দার আরেকটি প্রমাণ।

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদে কাশ্মীরে স্বশাসিত আইন জারি করার জন্য ভারতীয় সংসদের ক্ষমতা সীমিত করা হয়েছিল। এটি বাতিল করে, ভারতের বাকি লোকদের আইওকেতে সম্পত্তি অর্জন এবং সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাসের অধিকার দেওয়া হয়। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ভারতকে অবশ্যই বুঝতে হবে যে, কাশ্মীরি জনগণের উপর দেশটির গুরুতর এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অব্যাহত আহ্বান তারা উপেক্ষা করতে পারেন না।

বিবৃতিতে বলা হয়, ভারতকে চূড়ান্তভাবে বৈশ্বিক নিন্দার কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে। তার অবৈধ দখলে থাকা জম্মু ও কাশ্মীরের কিছু অংশে তাদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের অবসান ঘটাতে হবে এবং ইউএনএসসি-র প্রাসঙ্গিক প্রস্তাব এবং কাশ্মীরি জনগণের ইচ্ছা অনুযায়ী জম্মু-কাশ্মীর বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে। ভারত ধর্মীয় উৎসব সহ এই অঞ্চলের মানুষের উপর কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে চলেছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে যে, ভারতীয় কর্তৃপক্ষ মুসলমানদের ঈদুল আজহায় প্রধান মসজিদে নামাজ আদায় করতে বাধা দিয়েছে এবং ধর্মীয় কোরবানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

এদিকে সৈয়দ আলী গিলানি, মীরওয়াইজ উমর ফারুক, মুহাম্মদ ইয়াসিন মালিক, শাব্বির আহমদ শাহ, ডা. হামিদ ফায়াজ, মাসাররাত আলম বাট, আসিয়া আন্দ্রাবি, নাঈম আহমদ খানসহ অনেক আঞ্চলিক রাজনৈতিক নেতৃত্ব গৃহবন্দী বা কারাগারে রয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন