ঢাকা, বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

ঝুঁকি নিয়ে ৬ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক পারাপার

প্রকাশের সময় : ১ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

জাহাঙ্গীর হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে

মির্জাপুর উপজেলার ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে। এতে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট মহল আশঙ্কা করছেন। উপজেলার এই ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয়, গোড়াই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দেওহাটা এ জে উচ্চ বিদ্যালয়, দেওহাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুর্নী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ও কুর্নী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়গুলো ব্যস্ততম ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের উত্তরপাশে অবস্থিত। ক্লাস শুরুর আগে এবং ছুটি শেষে নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারে কোন ব্যবস্থা নেই। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অধ্যয়নরত শত শত শিক্ষার্থী প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে কুর্নী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র শহীদুর রহমান মহাসড়ক পারাপারের সময় দ্রুতগামী বাসের চাকায় পিষ্ঠ হয়ে নিহত হয় বলে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু তাহের জানিয়েছেন। এছাড়া গত এক মাস আগে দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র শিফাত ও ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র সজিব মহাসড়ক পারপার হওয়ার সময় দ্রুতগতির মোটরসাইকেলের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়। তাছাড়া গোড়াই ও দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে মাঝেমধ্যেই মহাসড়ক পারাপারের সময় দুর্ঘটনায় লোকজন নিহত হচ্ছেন। সূত্র জানান, দুর্ঘটনারোধ এবং নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারের জন্য ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর সামনের মহাসড়কে গতিরোধক নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্ত মহাসড়কে যানজট বিশেষ করে ঈদ মৌসুমে যানজট এড়ানোর জন্য সে গতিরোধকগুলো অনেক আগেই ভেঙে ফেলা হয়েছে। ফলে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শত শত শিক্ষার্থী গত দুই বছর ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে। দেওহাটা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র সেতু, স্বনালী ও সঞ্চিতাসহ প্রমুখ শিক্ষার্থী জানায়, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তাদের প্রতিদিন মহাসড়ক পারাপার হতে হয়। দেওহাটা এ জে উচ্চ বিদ্যালয়, গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয় এবং কুর্নী জালাল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক যথাক্রমে মো. খোরশেদ আলম, লুৎফর রহমান এবং আবু তাহের বলেন তাদের শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত মহাসড়ক পারাপার হচ্ছে। গোড়াই ইউপি সদস্য দেওহাটা এলাকার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান মিয়া বলেন নিরাপদে মহাসড়ক পারাপারের ব্যবস্থা না থাকায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা সব সময় উদ্বিগ্ন থাকেন। এ ব্যাপারে মির্জাপুরের গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি মো. খলিলুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মহাসড়কের ওই স্থানগুলোতে নিরাপদে পারাপারের ব্যবস্থা না থাকায় যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থীরা হতাহত হতে পারেন বলে উল্লেখ করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন