শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ০৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সমালোচনার মধ্যেই ‘যুক্তরাষ্ট্র কাবুল ত্যাগের প্রচেষ্টা জোরদার করছে’ বললেন বাইডেন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ আগস্ট, ২০২১, ১২:৫৫ পিএম

তালেবানের নিয়ন্ত্রণে যাওয়ার পর হাজার হাজার আফগান নাগরিক আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, এ অবস্থায় কাবুল বিমানবন্দর থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা ত্বরান্বিত হচ্ছে। মার্কিন সৈন্যরা এয়ারপোর্টের চারপাশ ঘিরে রেখেছে। দেখা যায়, ১৫ আগস্ট তালেবানদের ক্ষমতায় আসার পর হাজার হাজার আফগান দেশ ছেড়ে পালানোর জন্য মরিয়া চেষ্টায় গেটে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে। -বিবিসি

বাইডেন রবিবার বললেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত সপ্তাহে প্রায় ২৮ হাজার মানুষকে বিমানবন্দর দিয়ে সরিয়ে নিয়েছে। তিনি ৩১ আগস্টের পরে আফগান ত্যাগের সময়সীমা বাড়ানোর জন্য চাপের মুখোমুখি হন। প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন যে, সময়সীমা পিছিয়ে দেওয়ার বিষয়ে অন্যান্য দেশের নেতাদের সাথে আলোচনা চলছে, তবে "আমাদের আশা যে আমাদের এটি করতে হবে না"।

হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, "ব্যথা এবং হৃদয় বিদারক ছবি ছাড়া এই অনেক মানুষকে সরিয়ে নেওয়ার কোন উপায় নেই।" তিনি বলেন, "আমরা বিমানবন্দরের আশেপাশে অ্যাক্সেস এলাকা-নিরাপদ অঞ্চল প্রসারিত করা সহ পরিবর্তন করেছি"। তিনি আরও বলেন: "আমাদের অনেকদূর যেতে হবে এবং এখনও অনেক ভুল হতে পারে।"

এর আগে পেন্টাগন এক বিবৃতিতে বলেছিল, আফগানিস্তানের বাইরে নিরাপদ জায়গা থেকে তৃতীয় দেশে স্থানান্তরিতদের সাহায্য করতে ১টি বাণিজ্যিক বিমান ব্যবহার করা হবে। কমপক্ষে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে হাজার হাজার মানুষের সারিবদ্ধভাবে বিমানে উঠতে গিয়ে। রবিবারের দৃশ্য আগের দিনের তুলনায় অনেকটা শান্ত ছিল বলে জানা গেছে।
যুক্তরাজ্যের সশস্ত্র বাহিনী বিষয়ক মন্ত্রী জেমস হ্যাপি বলেছেন, তালেবানরা হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে লোকদের সারিতে সহযোগিতা করছে এবং মার্শাল করছে, যা ছেড়ে যাওয়ার প্রত্যাশীদের জন্য প্রক্রিয়াটিকে আরও দ্রুততর করেছে।

১৩ আগস্ট থেকে যুক্তরাজ্য ৫,৭২৫ জনকে সরিয়ে নিয়েছে বলে রোববার গভীর রাতে জানিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় (এমওডি)। কাবুলে যুক্তরাজ্যের এক হাজারেরও বেশি সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে। রবিবার মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগ সিভিল রিজার্ভ এয়ার ফ্লিট (সিআরএএফ) সক্রিয় করার ঘোষণা দেয়, যাতে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া যায়।

এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে জরুরি পরিস্থিতিতে সাহায্যের জন্য বেসামরিক বিমান সংস্থাগুলিকে একত্রিত করতে দেয়। এটি সর্বশেষ ব্যবহার করা হয়েছিল এবং এর আগে ২০০৩ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইরাক আক্রমণ এবং ১৯৯০-১৯৯১ এর উপসাগরীয় যুদ্ধের সময়।

বিবৃতি অনুসারে, লেভেল ওয়ান অ্যাক্টিভেশন ১৮ টি প্লেনের জন্য: ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের চারটি; আমেরিকান এয়ারলাইন্স, অ্যাটলাস এয়ার, ডেল্টা এয়ার লাইনস এবং ওমনি এয়ার থেকে তিনটি করে; এবং হাওয়াইয়ান এয়ারলাইন্সের দুজন। বিবৃতিতে আরও বলা হয়, সিআরএএফ সক্রিয় করা সামরিক বিমানগুলিকে কাবুল ও এর বাইরে অপারেশনে মনোনিবেশ করতে সহায়তা করবে।

"এই নাগরিক রিজার্ভ ফ্লাইটগুলি তৃতীয় দেশে নিরাপদে পরিবহন সহজ করতে সাহায্য করবে বলে বাইডেন রবিবার বলেছিলেন।তিনি বলেন, "কেউ কাবুলে অবতরণ করবে না।" বলেন, দুই ডজনেরও বেশি দেশে "প্রসেসিং স্টেশন" এর একটি সিরিজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যেখানে বাস্তুচ্যুতদের স্ক্রিনিং এবং ক্লিয়ার করা হবে। "আমরা এই আফগানদের স্বাগত জানাবো যারা আমেরিকাকে তাদের নতুন বাড়িতে সাহায্য করেছে। কারণ, আমরা সেই রকম মানুষ, বাইডেন যোগ করেছেন।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান ঘোষণা করেছেন, এখনও কয়েক হাজার মার্কিন নাগরিক আফগানিস্তানে আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। রবিবার সিএনএন -এর স্টেট অফ দ্য ইউনিয়ন প্রোগ্রামে কথা বলার সময়, সুলিভান বলেছিলেন যে, তিনি একটি সুনির্দিষ্ট সংখ্যা দিতে পারছেন না। তবে উল্লেখ করেছেন যে, তাদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে। সুলিভান বিমানবন্দরের বিরুদ্ধে ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠীর হামলার হুমকিকে "বাস্তব" এবং "তীব্র" বলেও বর্ণনা করেছেন।

এদিকে তালেবান কর্মকর্তা আমির খান মুতাকি বিমানবন্দরে "উচ্ছেদ নাটক" এর জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করেছেন। রবিবার মুতাকি তালেবানদের মধ্যে সম্ভাব্য অসন্তোষের কথাও বলেছেন। যুক্তি দিয়েছিলেন যে, আন্দোলন এবং আফগানিস্তানে তাদের ভূমিকা "দীর্ঘমেয়াদী স্বার্থে কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়"। তিনি বলেছিলেন যে, তালেবানরা ভবিষ্যতের সরকারের বিষয়ে একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর জন্য "সমস্ত গোষ্ঠীর" সাথে আলোচনা করছে।

বরিস জনসন জি সেভেন আলোচনার আহ্বান জানিয়েছেন : আফগানিস্তানে তালেবানদের দ্রুত দখল ব্রিটেনের জনগণ এবং বিশ্বকে হতবাক করেছে। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বিশ্বের সাতটি বৃহত্তম তথাকথিত উন্নত অর্থনীতির দেশ নিয়ে গঠিত জি-৭ এর নেতাদের একটি জরুরি বৈঠক ডেকেছেন। তিনি টুইট করেছেন, যেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় একসাথে কাজ করে নিরাপদ স্থান নিশ্চিত করতে, একটি মানবিক সংকট রোধ করতে এবং আফগান জনগণকে গত ২০ বছরের লাভ সুরক্ষিত করতে সহায়তা করে।

জনসন বাইডেনকে আফগানিস্তানে ৩১ আগস্টের পরেও আমেরিকান বাহিনীর জন্য ফ্লাইট ব্যবস্থার অনুরোধ জানাবেন, যাতে আফগান ত্যাগের ফ্লাইট চলতে পারে।

এদিকে যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাহারের কঠোর সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেন, "আপনি বিশ্বজুড়ে তাকান এবং এই সিদ্ধান্তকে সত্যিকারভাবে উৎসাহিত করছেন একমাত্র তারাই, যারা পশ্চিমা স্বার্থের প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষণ করেন।"
যুক্তরাষ্ট্র ৩১ আগস্টের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে তার সকল সৈন্য প্রত্যাহারের পরিকল্পনা করেছে। মার্কিন সৈন্যরা বর্তমানে বিমানবন্দর নিয়ন্ত্রণ করছে বলে যুক্তরাজ্য সহ বেশ কয়েকটি মিত্র দেশ-চলমান আফগান ত্যাগের মধ্যে এই সময়সীমা বাড়ানোর আহ্বান জানাচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন