রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০১ কার্তিক ১৪২৮, ০৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

আওয়ামী লীগ আমলেই গুম শব্দটি শুনেছি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৬ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

আওয়ামী লীগের আমলেই ‘গুম’ শব্দটি প্রথম শুনেছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, গুম শব্দটি আমরা তো আগে শুনিনি। এই আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই গুম কী ও কত প্রকার- তা জানতে পেরেছি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৭৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘মানব সেবা সংঘ’ আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন রিজভী।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্য দিয়েছেন- ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় তৎকালীন বিএনপি সরকার নাকি লাশ গুম করেছিল। আসলে প্রতিদিন তিনি অদ্ভূত অদ্ভূত মিথ্যা কথা বলেন। গুম শব্দটি আমরা তো আগে শুনিনি। এই আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে গুম কী ও কত প্রকার তা জানতে পেরেছি। এর আগে এই গুম শব্দটি পরিচিত ছিল না। আপনার সরকারের আমলেই এ শব্দটি পরিচিত পেয়েছে। অনেক ছাত্র, মানবাধিকারকর্মী যারা অধিকার আদায়ের কথা বলে তারা গুম হয়েছে। সুতরাং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় তৎকালীন বিএনপি সরকার লাশ গুম করেছে- এ ধরনের বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করা যাবে না। দেশের জনগণ আপনার কথায় বিভ্রান্ত হয় না।তিনি বলেন, করোনা মোকাবিলাসহ দেশ পরিচালনায় সার্বিক ব্যর্থতা থেকে জনগণের দৃষ্টি ভিন্নদিকে ফেরানোর জন্যই প্রধানমন্ত্রী এই ধরনের বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তা বলেন।
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, আজ দীর্ঘদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ। অথচ এই বিষয়ে আপনার (প্রধানমন্ত্রী) কোনো বক্তব্য নেই। আজ বিশ্বে নানাভাবে শিক্ষার্থীদের শিক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে, অথচ আপনি তা করতে পারছেন না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা বেকার হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর আপনি একটার পর একটা অসত্য-বানোয়াট কথা বলে মানুষের দৃষ্টি অন্যদিকে নেওয়ার চেষ্টা করছেন।
রিজভী বলেন, এখন অন্ধকারের ভেতর থেকে অনেক কিছু বেরিয়ে আসছে। সেগুলো বেরিয়ে আসার কারণে মানুষ ঠিকই বুঝতে পারছে- ২১ আগস্টসহ অন্যান্য ঘটনা শেখ হাসিনার ভাবমূর্তিকে বাড়ানোর জন্য এবং বিএনপির ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য।
শহীদ জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়ার নাম মুছে ফেলার অপচেষ্টা চলছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা এবং উন্নয়ন-উৎপাদনে অবদানের জন্য তাদের নাম ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। এই নাম কোনোভাবে মুছা যাবে না। বঙ্গোপসাগরের সমস্ত পানি দিয়ে মোছার চেষ্টা করলেও কোনো লাভ হবে না।
সংগঠনের সভাপতি সঞ্জয় দে রিপনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূইয়া, স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল ইসলাম, পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন