শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮, ০৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মোদির শাসনে অবনতি হচ্ছে ভারতে

গণতন্ত্র সূচক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩১ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিশ্বব্যাপী গণতন্ত্র সূচকে ভারতের র‌্যাঙ্কিং হ্রাস পেয়েছে। পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট কর্তৃক প্রকাশিত ডেমোক্রেসি ইনডেক্সে গত ছয় বছরে ভারত ২৬ ধাপ নেমে ২৭তম স্থানে থেকে ৫৩তম অবস্থানে চলে এসেছে।

মার্চ মাসে, ফ্রিডম হাউস ভারতকে ‘মুক্ত’ থেকে ‘আংশিকভাবে মুক্ত’ হিসাবে চিহ্নিত করে। ভারতের সাথে একই অবস্থানে রয়েছে ইকুয়েডর, মোজাম্বিক এবং সার্বিয়ার মতো দেশগুলো। একই মাসে, সুইডেনের ভি-ডেম (ভ্যারাইটিস অফ ডেমোক্রেসি) ইনস্টিটিউট আরও এক ধাপ এগিয়ে ঘোষণা দিয়েছিল যে, ভারত একটি নির্বাচনী গণতন্ত্র হওয়া পুরোপুরিভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। ভি-ডেম এখন ভারতকে একটি ‘নির্বাচনী স্বৈরতন্ত্র’ হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করে, যার অবস্থান চীন এবং সউদী আরবের মতো ‘বন্ধ স্বৈরতন্ত্রের’ উপরে এবং জাপান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো ‘উদার গণতান্ত্রিকতা’ থেকে নীচে।

গত দশকে সবচেয়ে বেশি গণতান্ত্রিক ভিত্তি হারানো দশটি দেশের ভি-ডেম তালিকায় ভারতের অবস্থান সপ্তম। এই পরিমাপের দ্বারা, তারা হাঙ্গেরি এবং তুরস্কের চেয়ে এগিয়ে কিন্তু বলিভিয়া এবং থাইল্যান্ডের চেয়েও অনেক পিছিয়ে। ভারতে ৬০ কোটিরও বেশি ভোটার ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন। ফলে অনেকে গণতান্ত্রিক পতনের অভিযোগকে ভারতকে ছোট করার পশ্চিমা প্রচেষ্টা হিসাবে দেখছেন। মার্চ মাসে একটি মিডিয়া কনক্লেভে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেছিলেন, ‘আপনি গণতন্ত্র এবং স্বৈরতন্ত্রের দ্বিচারিতা ব্যবহার করেন। আপনি কি সত্য উত্তর চান? এটা ভন্ডামি।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে জাতীয়তাবাদী অনুভ‚তিতে জাগ্রত ভ‚মিতে এ ধরনের আক্রমণাত্মক প্রতিক্রিয়া ভাল ভূমিকা রাখে। যে কোনও ভুলের জন্য ‘বিদেশী হাত’ কে দোষারোপ করার স্বাধীন ভারতের একটি ভয়াবহ ইতিহাস রয়েছে, যা মোদি সরকার দক্ষতার সাথে পুনরুজ্জীবিত করেছে এমন একটি ঐতিহ্য। কিন্তু পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিভ্রান্তিকর উত্তর আসল প্রশ্নের উত্তর দেয় না: দারিদ্র্যের মধ্যে গণতন্ত্র রক্ষার জন্য ভারত দীর্ঘকাল উত্তর-উপনিবেশিক বিশ্বে বহিরাগত হিসাবে বিবেচিত হওয়ায় হঠাৎ তার উজ্জ্বলতা হারিয়েছে কেন? এর আগে মার্চে, ওয়াশিংটন ভিত্তিক গণতন্ত্রপন্থী থিংক ট্যাঙ্ক এবং ওয়াচডগ ফ্রিডম হাউস তার প্রতিবেদনে বলেছিল যে, প্রধানমন্ত্রী মোদির অধীনে ভারত কর্তৃত্ববাদের কাছাকাছি চলে আসছে বলে মনে হচ্ছে। সূত্র : ট্রিবিউন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ৩১ আগস্ট, ২০২১, ১:২৮ এএম says : 0
ভারতে মামার যদি দুরবস্থা হয়,বাংলাদেশে মামার ভাগিনা ভাগনিদের কি উপায় হবে।
Total Reply(0)
Mizanoor Rahman ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৫:৩৭ এএম says : 0
আওয়ামী লীগের শাসনের কি দশা সাংবাদিক সাব দয়া করে বলবেন কি????
Total Reply(0)
মুক্তিকামী জনতা ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৫:৪০ এএম says : 0
মোদি হলো একটা গরু। আর গুরু দিয়ে হাল চাষ হয় দেশ শাসনতো হয় না রে ভাই...
Total Reply(0)
সাইফ আহমেদ ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৫:৪১ এএম says : 0
সে আস্তা একটা ভণ্ড, বাংলাদেশের জন্য নাকি যুদ্ধ করেছিল।
Total Reply(0)
Md Faizul Ashkar ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৫:৩৬ এএম says : 0
মনে হিংসা নিয়ে এগিয়ে যাওয়া যায় না। সেটাই হয়েছে মোদির জন্য, রন্ধ্রে রন্ধ্রে হিংসার বিষ দিয়েছে।
Total Reply(0)
ash ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৩:৫৩ এএম says : 0
DONT WARRY MODI !! KEEP BUYING MORE MORE ARMS FOR INDIA !!! INDIAN PEOPLE KNOWS HOW TO STARBING TO DETH !!
Total Reply(0)
a ama n ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৪:৪২ এএম says : 0
modi is a clear hindoo ....
Total Reply(0)
আঃ রহমান ৩১ আগস্ট, ২০২১, ৭:২৯ এএম says : 0
বাংলাদেশের গনতন্ত্র হরনে সহায়তা কারীর নিজ দেশেও গনতন্ত্র উধাও।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন