বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

মহানগর

দিনে কর্মজীবী রাতে ভয়ঙ্কর ডাকাত

ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

দিনে কেউ ফল বিক্রেতা, গার্মেন্টকর্মী বা ট্রাকচালক। রাত হলেই পরিকল্পনা করে নামত সংঘবদ্ধ ডাকাতিতে। গত নয় মাসে সাতটির বেশি ডাকাতি করেছে এ চক্র। রংপুরের পীরগঞ্জে ডাকাতির সময় হানিফ পরিবহনের চালক হত্যার সঙ্গেও জড়িত ছিল চক্রটি। বিশেষ করে গাইবান্ধা-রংপুর মহাসড়কে ডাকাতির অন্যতম হোতা ছিল তারা। গত শনিবার রাতে রাজধানীতে পৃথক অভিযান চালিয়ে এই চক্রের মূল হোতাসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গতকাল রোববার রাজধানীর কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, গত ৩১ আগস্ট দিবাগত রাতে ঢাকা হতে পঞ্চগড়ের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া হানিফ পরিবহনের একটি বাস রংপুর জেলার পীরগঞ্জ এলাকায় পৌঁছার পর দুর্ধর্ষ ডাকাতির কবলে পড়ে। ওই বাসে যাত্রীবেশে থাকা ডাকাত দলের সদস্যদের ছুরিকাঘাতে বাসের চালক মনজুর হোসেন (৫৫) গুরুতর আহত হন এবং পরবর্তীতে মৃত্যুবরণ করেন। ওই ঘটনায় বাসের সুপারভাইজার মো. পইমুল ইসলাম বাদী হয়ে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। চাঞ্চল্যকর এ বাস ডাকাতি ও চালক হত্যার ঘটনায় র‌্যাব-১ ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে। শনিবার দিবাগত রাতে র‌্যাব-১ ও ১৩ এর যৌথ অভিযানে ঢাকার আশুলিয়া ও গাইবান্ধায় অভিযান পরিচালনা করে হত্যাসহ ডাকাতিকাজে সরাসরি জড়িত নয়ন চন্দ্র রায় (২২), মো. রিয়াজুল ইসলাম ওরফে লালু (২২), ওমর ফারুক (১৯), ফিরোজ কবির (২০) আবু সাঈদ মোল্লা (২৫) ও শাকিল মিয়াকে (২৬) গ্রেফতার করে। প্রত্যেকের বাড়ি গাইবান্ধা জেলায়।
তিনি আরো বলেন, এ সময় তাদের কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ৫টি ছুরি, লুণ্ঠিত একটি মোবাইল ফোন এবং তাদের ব্যবহৃত ৫টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হানিফ বাসে ডাকাতি ও চালককে হত্যায় গ্রেফতারকৃতরা সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বলে দাবি র‌্যাবের।

কমান্ডার খন্দকার কাল মঈন বলেন, গত ৩১ আগস্ট রাত ৮ টায় হানিফ পরিবহনের একটি নন-এসি বাস (ঢাকা মেট্রো-গ-১৫-৩৮১০) রাজধানী ঢাকা হতে পঞ্চগড়ের উদ্দেশে গাবতলী ছেড়ে যায়। বাসটি রাত সাড়ে ১০টার দিকে সাভারে পৌঁছলে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ডাকাত দলের তিন সদস্য রিয়াজুল ইসলাম লালু, সাঈদ মোল্লা ও পলাতক আরো এক সদস্য ওঠে। এরপর রাত ১০টা ৫০ মিনিটে নবীনগর থেকে ওঠে ডাকাত দলের আরো তিন সদস্য নয়ন চন্দ্র রায়, ওমর ফারুক ও ফিরোজ কবির। বাসটি রাত আড়াইটার দিকে গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার বিটিসি মোড় অতিক্রম করার পর বাসে যাত্রীবেশে থাকা ডাকাত দলের সদস্যরা ডাকাতির উদ্দেশে বাসটি তাদের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করেন। তারা প্রথমে বাসের চালক মনজুর হোসেনকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করেন। এ সময় চালক বাসটি ঘুরিয়ে আনার চেষ্টা করলে তারা আবার চালকের কাঁধে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে বাসটির নিয়ন্ত্রণ নেন।

তিনি বলেন, ডাকাত দলের সদস্য রিয়াজুল ইসলাম লালু বাসটি চালাতে থাকেন এবং ডাকাত দলের অন্যান্য সদস্যরা বাসে লুটপাট করতে করতে রংপুরের শটিবাড়ী ভাবনা ফিলিং স্টেশনে ইউটার্ন করে পুনরায় উল্টো পথে রওয়ানা করেন। পলাশবাড়ী পৌঁছার আগে ডাকাতেরা ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে পীরগঞ্জের চম্পাগঞ্জ হাইস্কুলের সামনে রাত ৩টার দিকে যাত্রীসহ বাসটি রেখে পালিয়ে যান। এ সময় ডাকাতরা যাত্রীদের মুঠোফোন এবং নগদ টাকা লুট করে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে গুরুতর আহত অবস্থায় বাসের চালক মনজুর হোসেনকে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে তিনি সেখানে মারা যান।

তিনি আরো বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতার সংঘবদ্ধ ডাকাত দলটির সদস্য সংখ্যা ১০ থেকে ১২ জন। নয়ন চন্দ্র রায় ডাকাত দলের মূলহোতা। তিনি এই ডাকাত দলটিকে নিয়ন্ত্রণ করতেন। দীর্ঘদিন ধরে উত্তরবঙ্গগামী বাসে সাধারণ যাত্রীবেশে উঠে ডাকাতি করে আসছিলেন তারা। গত বছর ডিসেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত ৭/৮টি বাসে ডাকাতি করেছেন বলে জানিয়েছেন তারা। মূলহোতা নয়ন চন্দ্র রায়কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, চক্রের সদস্যরা আশুলিয়ায় বিভিন্ন গার্মেন্টসে খন্ডকালীন চাকরি, ক্ষুদ্র ব্যবসা, অটোরিকশা চালক হিসেবে জড়িত। শাকিলসহ আরো কয়েকজন সদস্য গাইবান্ধার বিভিন্ন পেশায় জড়িত। রিয়াজুল ইসলাম লালু পেশায় একজন ট্রাক চালক। তিনি তার অন্যান্য সহযোগীদের সঙ্গে বাস ডাকাতি করার সময় বাসের চালকের পরিবর্তে নিজে বাস চালিয়ে তাদের গন্তব্যে নিয়ে যেতেন। শাকিল ডাকাতি স্থলে উপস্থিত থেকে তথ্য ও অন্যান্য সহায়তার কাজ করতেন। গ্রেফতার অন্য সদস্যরা সশরীরে ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করতেন। এক প্রশ্নের জবাবে কমান্ডার আল মঈন বলেন, এখন পর্যন্ত জিজ্ঞাসাবাদে আমরা চক্রটির সঙ্গে পরিবহনে জড়িত হেলপার, চালক বা সুপারভাইজাদের জড়িত থাকার তথ্য পাইনি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন