শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬ কার্তিক ১৪২৮, ১৪ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

৫০বছর পর কুতুবদিয়া দ্বীপের লক্ষাধিক মানুষ জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ পাচ্ছে

কক্সবাজার থেকে জাকের উল্লাহ চকোরী | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:১৬ পিএম | আপডেট : ৭:২৯ পিএম, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

কক্সবাজারের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ সাগরকন্যা কুতুবদিয়ায় স্বাধীনতার ৫০বছর পর দ্বীপে বসবাসরত লক্ষাধিক মানুষ জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ পাচ্ছে। এই নিয়ে দ্বীপবাসীর মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে।

বলাবাহুল্য যে, ২০১৯সালের ১১ফেব্রুয়ারী দৈনিক ইনকিলাবের সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীন কুতুবদিয়া দ্বীপে ভ্রমণে যান। ওই দিন তিনি কুতুবদিয়া দ্বীপের দক্ষিণ পাশ থেকে উত্তর পাশের দরবার ঘাট পর্যন্ত পুরো দ্বীপ সরজমিনে পরিদর্শন করেন। ওই সময় কুতুবদিয়া বায়ুবিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকায় জনসাধারণের সাথে আলাপ করে জানতে পারেন যে স্বাধীনতার ৫০বছর পরও কুতুবদিয়া দ্বীপ বাসী জাতীয় গ্রিডের অধীনে বিদ্যুৎ সংযোগ পায়নি।

এই নিয়ে ২০১৯সালের ১২ফেব্রুয়ারী দৈনিক ইনকিলাবে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।পরে সরকারী উচ্চ পর্যায়ে কুতুবদিয়া দ্বীপে বিদ্যুতায়নের জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

এদিকে জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত করতে বৈদ্যুতিক খুঁটিসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে দরবার জেটি ঘাটে পৌঁছেছে এম.ভি.জেরিন ফামি নামক একটি জাহাজ। গত শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১১ টায় কুতুবদিয়ায় এ জাহাজটি পৌঁছে। তবে, এর আগে গত ২৭ আগষ্ট (শুক্রবার) ক্রেনসহ অন্যান্য সরঞ্জাম কুতুবদিয়ায় পৌছলে স্বচক্ষে দেখতে ভীড় জমান দরবার জেটি ঘাটে হাজার হাজার মানুষ।

এ পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগের সরঞ্জাম নিয়ে দুটি জাহাজ পৌঁছল কুতুবদিয়ায়।

পেকুয়া উপজেলা মগনামা থেকে সাগরের তলদেশ দিয়ে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে কুতুবদিয়ায় বিদ্যুৎ সংযুক্ত হবে। দ্বীপের বড়ঘোপ ইউনিয়নের বিদ্যুৎ কেন্দ্রে থাকবে বিদ্যুতের এ সাব স্টেশন। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে সাগরের তলদেশে সাবমেরিন ক্যাবল সংযুক্ত হবে। শিগগিরই বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ শুরু হবে। দীর্ঘদিন করোনা পরিস্থিতির কারণে এই অগ্রাধিকার প্রকল্পটির কাজ পিছিয়ে পড়েছিল। প্রকল্পের কাজ শুরু করতে সকল আনুষ্ঠানিকতা ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৮০ কোটি টাকা। গুরুত্বপূর্ণ এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ইতোমধ্যে কুতুবদিয়া উপকূলে বিদ্যুতের খুঁটিসহ অন্যান্য সরঞ্জাম পৌঁছে গেছে বলে জানান আবাসিক অফিসার আবুল হাসনাত জানান।

শেখ হাসিনার সরকারের এ উন্নয়নের দৃশ্য কুতুবদিয়াবাসীর জন্য স্বপ্নের মতো ছিল। এ বিদ্যুতের ছোঁয়ায় দ্বীপবাসীর অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটবে। পাশাপাশি দ্বীপের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জীবন মানের পরিবর্তন আসবে। যা কুতুবদিয়ার সামগ্রিক উন্নয়নের ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

দ্বীপবাসীর মতে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এলে লবণ পরিশোধন শিল্প, মৎস্য চিংড়ি ও শুটকি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প, গভীর সমুদ্রগামী জাহাজ নির্মাণ শিল্প, শিপ বেকিং ইয়ার্ডে ও বরফ কলসহ আরও বিভিন্ন শিল্প কারখানা গড়ে ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও পর্যটন শিল্প বিকাশের সম্ভাবনা রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন