রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৮ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সাদি গাদ্দাফি মুক্তি পেয়ে তুরস্কে গেলেন

নির্বাচনে লড়বেন সাইফ-আল ইসলাম

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন লিবিয়ার সাবেক নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির ছেলে সাদি গাদ্দাফি (৪৭)। একটি সরকারি সূত্র বলেছেন, মুক্তি পাওয়ার পরই তিনি গত রোববার একটি বিমানে করে চলে গেছেন তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। অন্যদিকে লিবিয়ায় আটক তার আরেক ভাই সাইফ আল গাদ্দাফি আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হবেন বলে শোনা যাচ্ছে।

২০১১ সালে লিবিয়ায় অভ্যুত্থানের সময়ে সাদি গাদ্দাফি নাইজারে পালিয়ে যান। কিন্তু তাকে ২০১৪ সালে লিবিয়ায় ফেরত পাঠায় নাইজার। সেই থেকে রাজধানী ত্রিপোলিতে জেলবন্দি ছিলেন তিনি। সাদি গাদ্দাফি সাবেক একজন পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড়ও। ২০১১ সালে লিবিয়ায় আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ক্রাইম করার অভিযোগে অভিযুক্ত তিনি। এ ছাড়া ২০০৫ সালে তিনি লিবিয়ার ফুটবল কোচ বশির আল রায়ানি’কে হত্যা করেছিলেন। এই হত্যা মামলা থেকে তাকে মুক্তি দেয়া হয় ২০১৮ সালের এপ্রিলে। প্রসিকিউটর অফিসের একটি সূত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়ার ফলে সাদি গাদ্দাফি বিষয়ক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য বলেছিলেন প্রধান প্রসিকিউটর। তখন থেকেই তিনি দেশের ভিতর মুক্তভাবে বসবাস করতে পারতেন অথবা দেশ ছেড়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল।

ওদিকে গণঅভ্যুত্থান ও পরে যুদ্ধের পর গত ১০ বছর ধরে লিবিয়ায় মারাত্মক বিশৃংখলা, বিভক্তি এবং সহিংসতা দেখা দিয়েছে। যুদ্ধে মুয়াম্মার গাদ্দাফি ও তার তিন ছেলে নিহত হয়েছেন। ২০২০ সালে এক অস্ত্রবিরতির ফলে বিবদমান গ্রুপগুলোর মধ্যে লড়াই বন্ধ হয়। এর ফলে শান্তি আলোচনার একটি উপায় বেরিয়ে আসে। একই সঙ্গে মার্চে একটি অন্তবর্তীকালীন সরকার গঠনের পথও উন্মুক্ত হয়ে পড়ে। লিবিয়ায় আগামী ডিসেম্বরে নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে।

সরকারি একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, সমঝোতার মাধ্যমে মুক্তি পেয়েছেন সাদি গাদ্দাফি। ওই সমঝোতা প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত আছেন উপজাতির বিভিন্ন গোষ্ঠীর সিনিয়র নেতারা ও প্রধানমন্ত্রী আবদুল হামিদ। আরেকটি সূত্র বলেছেন, এ সমঝোতায় জড়িত ছিলেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ফাতি বাশাঘা।

জুলাই মাসে নিউ ইয়র্ক টাইমস খবর প্রকাশ করে যে, তারা সাদি গাদ্দাফির ভাই সাইফ আল ইসলাম গাদ্দাফির সাক্ষাৎকার নিয়েছে। সাইফকে জিনতান শহরে আটকে রাখা হয়েছে অনেক বছর ধরে। তার সমর্থকরা ইঙ্গিত দিয়েছেন, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন তিনি। সূত্র : আল-জাজিরা, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
H.M. Hasan ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৭ এএম says : 0
· খুব শীঘ্রই সারা বিশ্বে ইসলামের পতাকা পতপত করে উড়বে ইনসাআল্লাহ
Total Reply(0)
Naib Al Emran ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৮ এএম says : 0
i'm praying for this man may almighty Allah gives him long life and protect him from the enemise and let him wins the election insha Allah
Total Reply(0)
Badal Sikdar ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৮ এএম says : 0
Saif i hope you will be leader of Libya. I pray you take up your fathers reins.
Total Reply(0)
Voice For Community ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৮ এএম says : 0
মনে হচ্ছে পারবেন, কারণ তার বাবা যেহেতু রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলেন।তার অনেক অভিজ্ঞতা আছে।
Total Reply(0)
Dadhack ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৯ এএম says : 0
Libya was one of the best country in the world, there was no poor people but west have destroyed this beautiful country like Iraq.
Total Reply(0)
মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৩:০৪ এএম says : 0
যে বেকতি 40 বসর লিবিয়া শাসন করলেন,নিজের জন্য বিদেশে যেমন আমেরিকা রাশিয়া লন্ডন ফান্সের অরথাত বাহিরের দেশে,দেশের সম্পদ চুরি করে নিয়ে যেতে পারতেন,কিন্তু গাদদাফী ঐ গুলি করেন নাই,শুধু নিজের দেশের জনগণের জন্য নিজের দেশ উন্নয়ন করতে ভেস্ত ছিলেন,কিন্তু সেই লিবিয়া বাসি গাদদাফী কে ছিনতে পারলেন না,আমি মনে করি লিবিয়ার জনগণের ভুলের কারনে আজ লিবিয়ার এই দুরবস্থা,এবং আজ বিশ্বব্যাপী লিবিয়ার কি মূল্য আছে,কিছু কিছু জংগীবাদী দুষকৃতকারীরা আমেরিকার সাথে হাত মিলিয়ে একজন বীর সেষ্ট প্রেসিডেনট কে হত্যা করেছেন,কিন্তু আজ জনগণ বুজতে পেরেছে কি করলাম এবং কি ক্ষতিগ্রস্ত আজ লিবিয়ার,কিন্তু আমি মনে করি বাঘের বাচ্চা বাঘই হবে বিড়াল হবে না,যদি লিবিয়ার শান্তি এবং বিশ্বে উঁচু স্নানে থাকার চিন্তা লিবিয়ার জনগণের থেকে থাকে ,আবার সেই বাঘের বাচ্চাদের ক্ষমতায় বসানে অবশ্যই জরুরি,ইনসআললাহ লিবিয়ার জনগণের শান্তি ও তাদের আগের দিনের মতই রাজা বাদশাদের মত খেতে পারবে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন