মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

চীনা নাগরিকদের সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি পাকিস্তানের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান গত শুক্রবার বলেন যে, তার দেশ দাসু সন্ত্রাসী হামলার অপরাধীদের কঠোর শাস্তি দেবে এবং দেশে চীনা নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সর্বাত্মক চেষ্টা করবে। খান তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশান্বেতে সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার শীর্ষ সম্মেলনের সময় চীনা স্টেট কাউন্সিলর এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-এর সঙ্গে আলাপকালে বলেন, পাকিস্তান-চীন অর্থনৈতিক করিডোর নির্মাণে ইসলামাবাদ দৃঢ়ভাবে এগিয়ে যাবে, যা পাকিস্তানি জনগণের জন্য সুফল বয়ে আনবে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে ওয়াং ই শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন।

খান ওয়াংকে চীনা নেতার কাছে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাতে বলেন এবং পাকিস্তান-চীন সর্বাবহাওয়া কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বের গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতির কথা উচ্চারণ করেন। তিনি মহামারি মোকাবেলায় পাকিস্তানকে সময়মতো এবং কার্যকর সহায়তা প্রদানের জন্য চীনকে ধন্যবাদ জানান এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা করার জন্য জোর দেন এবং জোর দেন যে, পাকিস্তান-চীন বন্ধুত্ব পরিবর্তিত আন্তর্জাতিক দৃশ্যপটে পরীক্ষা করা হয়েছে এবং কোন শক্তিতে বিঘ্নিত হতে পারে না। খান বলেন, পাকিস্তান দুই দেশের মধ্যে সর্বাত্মক সহযোগিতা আরো গভীর করার ইচ্ছায় অটল এবং কোন বাহ্যিক চাপে ভয় পায় না।

ওয়াং চীনা নেতার কাছ থেকে খানকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, চীন এবং পাকিস্তান সবসময় একে অপরকে বোঝে, বিশ্বাস করে এবং সমর্থন করে। ওয়াং বলেন, দুই দেশের মধ্যে সর্ব-আবহাওয়া কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্ব লৌহ-আবৃত এবং উভয় মানুষের হৃদয়ে বদ্ধমূল।

তিনি আরো বলেন, চীন পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক নীতিগুলোকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করবে, পাকিস্তানকে তার জাতীয় সার্বভৌমত্ব ও মর্যাদা রক্ষায় সমর্থন করবে এবং আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক বিষয়ে পাকিস্তানকে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করবে।

উভয় পক্ষ নিশ্চিত করেছে যে, চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের দশম যৌথ সহযোগিতা কমিটির বৈঠক সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে এবং চীন-পাকিস্তান যৌথ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য কমিশনের ১৫তম বৈঠক অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হবে।

খান আফগান ইস্যুতে পাকিস্তানের অবস্থান সম্পর্কেও ওয়াংকে অবহিত করেন। উভয়পক্ষ কৌশলগত সমন্বয়কে আরো শক্তিশালী করতে সম্মত হয়েছে, কারণ আফগান পরিস্থিতি বড় ধরনের পরিবর্তন হয়েছে এবং এখন একটি ঐতিহাসিক মোড়ে দাঁড়িয়েছে, যাতে যৌথভাবে আফগান পরিস্থিতি স্থিতিশীল করতে, সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় এবং আঞ্চলিক শান্তি বজায় রাখতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে পারে। সূত্র : সিনহুয়া।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন