বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন সেবায় বসছে ৬টি ই-গেট

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১:৫২ পিএম

প্রবাসী অধ্যূষিত সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে চালু হচ্ছে ই-গেট কার্যক্রম। ছয়টি ই-গেট বসানো হচ্ছে এ বিমানবন্দরে। বাংলাদেশে ই-গেট কার্যক্রম শুরু হয় চলতি বছরের ৩০ জুন। ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বসানো ই-গেটের উদ্বোধন হয়েছিল সেদিনই।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, যাদের কাছে ই-পাসপোর্ট আছে, তারাই ই-গেট দিয়ে সম্পন্ন করতে পারবেন ইমিগ্রেশন কার্যক্রম। ই-পাসপোর্টে মাইক্রোপ্রসেসর চিপ এবং অ্যান্টেনা বসানো রয়েছে। একজন ব্যক্তির যাবতীয় তথ্য পাসপোর্টের মুদ্রিত ও চিপে সংরক্ষিত থাকে। ই-গেটে পাসপোর্ট স্ক্যান করার পর গেটের সঙ্গে সংযুক্ত ক্যামেরা যাত্রীকে শনাক্ত করবে। যা এতদিন ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে করতো ইমিগ্রেশন পুলিশ। যাত্রীকে শনাক্ত করার পরেই খুলে যাবে ই-গেট। এতে কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই সম্পন্ন হবে ইমিগ্রেশন। জানা গেছে, বিমানবন্দরের সেবার মান বাড়াতে ই-গেট স্থাপন করা হচ্ছে। সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ছয়টি ই-গেট বসানোর কাজ করছে ফ্লোরা লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ইতোমধ্যেই ই-গেট মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। বাকি কাজ সম্পন্ন করার পর ই-গেট সমঝিয়ে দেওয়া হবে ইমিগ্রেশন বিভাগকে। ওসমানী বিমানবন্দরে বহির্গমনের (ডিপার্টচার) জন্য তিনটি এবং আগমনের (অ্যারাইভাল) জন্য তিনটি করে বসানো হচ্ছে ই-গেট।
ওসমানী বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ বলেন, ই-গেট বসানোর কাজ চলমান। দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান কাজ শেষ করে ইমিগ্রেশনকে দেবে বুঝিয়ে। তবে জানা গেছে, ই-গেটের মাধ্যমে ইমিগ্রেশনে সময় কম লাগবে এবং যাত্রীদের কোনো কর্মকর্তার প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে না। তবে ওসমানী বিমানবন্দরে ই-গেট কার্যক্রম শুরু হলে প্রাথমিকভাবে সাধারণ যাত্রীরা এই সুবিধা পাবেন না। বাংলাদেশি ই-পাসপোর্টধারী কূটনৈতিক, অফিসিয়াল ই-পাসপোর্টধারী সরকারি কর্মকর্তা, বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা (সিআইপি), সেরা করদাতা কাডর্ প্রাপ্ত ই-পাসপোর্টধারী ব্যক্তিরা, ই-পাসপোর্টধারী পাইলট ও ক্রুরা পাবেন এই সুবিধা। সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্স কর্তৃক যাত্রীর ব্যাগেজ সংগ্রহ, টিকিট যাচাই-বাছাই এবং পাসপোর্টের চেকিং সম্পন্নের পর ই-গেট ব্যবহার করতে পারবেন। ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই ইমিগ্রেশন এবং পাসপোর্ট অধিদফতর (ডিআইপি) এবং জার্মানি ভেরিডোস জিএমবিএইচ সংস্থা ইলেকট্রনিক পাসপোর্টের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। এই সংস্থাটির মাধ্যমেই ই-পাসপোর্ট ও ই-গেট স্থাপন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন