বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সরকারের সমর্থনেই আহত মুসলিমের প্রতি ভারতীয় ফটোগ্রাফারের ক্রোধ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

ভারতে আসামের সিপাঝাড়ের একটি ভিডিওতে একজন ফটোগ্রাফার মাটিতে নিঃসাড় শুয়ে থাকা একজন ব্যক্তির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ার দৃশ্য বৃহস্পতিবার সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত ও ভাইরাল হয়। ফটোগ্রাফারের সঙ্গে রয়েছেন একদল পুলিশ সদস্য। বিজয় বানিয়া নামের এ ফটোগ্রাফারকে দারং জেলা প্রশাসন সিপাঝাড়ে একটি উচ্ছেদ অভিযানের ছবি তোলার জন্য ঘটনাস্থলে নিয়োগ করেছিল।

মাটিতে পড়ে থাকা লোকটি ৩৩ বছর বয়সী মইনুল হক। ভিডিওর প্রথম কয়েক সেকেন্ডে, তিনি একটি লাঠি হাতে ছুটে এসেছিলেন একদল পুলিশকর্মীর প্রতি এবং বন্দুকে সুসজ্জিত পুলিশ সদস্যদের দল তার ওপর হামলে পড়েছিল। কিছুক্ষণের মধ্যেই গুলির শব্দ শোনা গেল। ওই হামলায় মইনুল হক নিহত হন।
তিনি সিপাঝাড়ের ধলপুর ৩-এ থাকতেন। পুলিশের গুলিতে তার মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগে বুধবার রাতে তার গ্রামের বাসিন্দাদের উচ্ছেদের নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। এসব বাসিন্দার বেশিরভাগই বাঙালি বংশোদ্ভূত মুসলমান। তাদের বাড়ি ছেড়ে যেতে হবে যাতে আসাম সরকার রাজ্যের আদিবাসী হিসেবে বিবেচিত লোকদের দ্বারা জৈব চাষের জন্য জায়গা খালি করতে পারে।

আসাম এবং বাইরের বেশিরভাগ মানুষ যারা ভিডিওটি দেখেন তারা বানিয়ার হিংস্রতায় হতবাক। কোন ধরনের ঘৃণা কাউকে মৃত বা মৃত ব্যক্তির ওপর এ ধরনের অযৌক্তিক সহিংসতার জন্য প্ররোচিত করে? এটা কোথা থেকে এসেছে?
বানিয়ার একটি বিচ্ছিন্ন অপরাধ ছিল না, বা বিচ্ছিন্ন বিদ্বেষও ছিল না। আসামের কয়েক দশকের ঘৃণ্য রাজনৈতিক নেতৃত্ব তাদের এ অবস্থায় নিয়ে এসেছে। আদিবাসীদের স্বার্থ রক্ষার করার নামে তথাকথিত বিদেশীদের শিকারে পরিণত করার সরকারের আবেগে এটি সক্ষম হয়েছে।

ন্যাশনাল রেজিস্ট্রার অফ সিটিজেন্স এনআরসি থেকে, যার উল্লেখিত লক্ষ্য ‘অবৈধ অভিবাসীদের’ নির্মূল করা, সীমান্ত পুলিশ থেকে আধা-বিচারিক ট্রাইব্যুনাল যা খুব কমই আইনের শাসন মেনে চলে, পরের সরকারগুলো এ আবেশকে খাওয়ানোর জন্য বিস্তৃত প্রক্রিয়া তৈরি করেছে। এটি রাজ্যের জনসংখ্যার একটি অংশের মধ্যে ক্রমাগত অবরোধের অনুভূতি তৈরি করতে সহায়তা করেছে।

এ রাজনীতি থেকে একটি বিষাক্ত অভিধান প্রবাহিত হয়েছে। এটি চিরতরে ‘অবৈধ’ শব্দটিকে ‘অভিবাসীদের’ সাথে সংযুক্ত করেছে। এটি বাঙালি বংশোদ্ভূত এবং বিশেষ করে মুসলমানদের অমানবিক এবং ব্র্যান্ডেড সম্প্রদায়, যারা ‘অভিবাসী’ এবং ‘অনুপ্রবেশকারী’ হিসাবে রাজ্য থেকে বিতাড়িত করা প্রয়োজন।

২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনের কয়েক মাস আগে রাজ্যে ভ্রমণ করার সময় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বাংলাদেশ থেকে আসা অভিবাসীদের ‘ধৌড়’ বলে বর্ণনা করেছিলেন। এটি ভাইরাল হয়ে উঠেছিল।
আসামে পুরাতন জাতিগত উত্তেজনা এখন একটি হিন্দুত্ববাদী রাষ্ট্রের বিদ্বেষের সাথে স্তরবদ্ধ। রাজ্যে আদিবাসী হিসেবে বিবেচিত জনগোষ্ঠীর স্বার্থের প্রতিনিধিত্ব করার দাবি করে ২০১৬ সালে আসামে ভারতীয় জনতা পার্টি প্রথম ক্ষমতায় আসে।

পার্টির প্রাথমিক রাজনৈতিক বক্তৃতায় যা বলা হয়নি তা হ’ল এর অর্থ আদিবাসী এবং অমুসলিম সম্প্রদায়। নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইন প্রবর্তনের সাথে সাথে এটি স্পষ্ট হয়ে গেল, যা আসামে অননুমোদিত বাঙালি হিন্দু অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেবে, কিন্তু তাদের মুসলিম অংশীদারদের নয়।

আসামে দ্বিতীয় মেয়াদে, বিজেপির সাম্প্রদায়িক এজেন্ডা আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা ক্রমবর্ধমানভাবে নিজেকে হিন্দু জাতীয়তাবাদী নেতা হিসেবে পুনর্বিন্যাস করেছেন, অসমিয়া স্বার্থকে হিন্দুত্বের সঙ্গে যুক্ত করেছেন। চলতি বছরের বিধানসভা নির্বাচনে, তিনি প্রকাশ্যে সাম্প্রদায়িক প্রচারণা চালান, আসামকে বাঙালি বংশোদ্ভূত মুসলমানদের থেকে ‘বাঁচাতে’ সভ্যতর যুদ্ধ’ হিসেবে ভোট দেন।

তার সরকার গরু সুরক্ষা আইন পাস করেছে এবং আন্তঃধর্ম বিবাহে বাধা সৃষ্টি করেছে। এটি এমন আইন ছিল যা ‘আদিবাসী’ এবং ‘অভিবাসী’ মুসলমানদের মধ্যে রেখাগুলোকে অস্পষ্ট করে। শর্মার আশেপাশে ঐক্যমত্য ছিল যে, স্থানীয় গণমাধ্যম এবং ভোটাররা প্রশাসক হিসেবে তার ‘দক্ষতা’ উদযাপন করেছেন যদিও তিনি রাজ্যের সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছিলেন।

ক্ষমতায় আসার পরপরই হেমন্ত বিশ্বশর্মা ঘোষণা করেন যে, তিনি রাজ্যজুড়ে ৭৭ হাজার বিঘা (২৫,৪৫৫ একর) সরকারি জমি খালি করবেন। যারা এসব জায়গায় বাস করতেন তাদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন বাঙালি বংশোদ্ভূত দরিদ্র মুসলমান। যদিও তারা আগে ‘অবৈধ অভিবাসী’ ছিল যাদের জীবন এবং বাড়িগুলো ব্যয়বহুল ছিল, কিন্তুতারা এখন ‘অবৈধ অনুপ্রবেশকারী’।

বৃহস্পতিবার সিপাঝাড়ের ফুটেজ বের হওয়ার পরও শর্মা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে, উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে। প্রাণ হারানো এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের ওপর যে সহিংসতা দেখা গিয়েছিল, সে সম্পর্কে তার কিছু বলার ছিল না। বিজয় বানিয়ার ঘৃণ্য ক্রোধের জন্য সরকারী অনুমোদন আছে বলে মনে হয়।
আসাম পুলিশিং : বানিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে, কিন্তু এটি এ সত্যকে অস্পষ্ট করে যে, সে পুলিশের সাথে মিলে কাজ করেছিল। সিপাঝাড়ে ঘটনার সঠিক ক্রম এখনো প্রতিষ্ঠিত হয়নি। কিন্তু এটা দেখা মুশকিল যে, আত্মরক্ষার কোন বাধ্যবাধকতা একটি সশস্ত্র কনস্টেবুলারিকে এমন একটি বাহিনীকে লাঠি চালানোর দিকে পরিচালিত করে।

এটা একা সিপাঝাড় নয়, বৃহস্পতিবারের পর্বটি পুলিশের সহিংসতার দিকে নির্দেশ করে যা আসামে স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে। রাজ্যটির নিরাপত্তা বাহিনী বেসামরিক জনগোষ্ঠীর ওপর হামলা চালানোর একটি ভয়াবহ ইতিহাস রয়েছে। যেহেতু বিভিন্ন জাতিগত জাতীয়তাবাদ আসামে সশস্ত্র আন্দোলনের জন্ম দেয়, তখন একটি সহিংস নিরাপত্তা ক্র্যাকডাউন অনুসরণ করা হয়। ১৯৯০-এর দশকে ‘গোপন হত্যাকাণ্ড’, সরকারের আশীর্বাদে পুলিশ কর্তৃক বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, জঙ্গি গোষ্ঠীর পরিবার এবং সহানুভূতিশীলদের লক্ষ্য করে।

সিপাঝাড়ে ইতোমধ্যেই রাজনৈতিক বিবেচনায় অপরাধী সম্প্রদায়ের একজন মানুষকে এমন অবস্থায় হত্যা করা হয়েছে যেখানে পুলিশের সহিংসতা দ্রুত স্বাভাবিক হচ্ছে। একটি তদন্তের আদেশ দেওয়া হয়েছে, কিন্তু আসামে অতীতের অনুসন্ধানের রেকর্ড একটি হৃদয়গ্রাহী নজির স্থাপন করে না। এ মৃত্যুর জন্য এখন কে পুলিশকে জবাবদিহি করবে? যে রাজনীতি বিজয় বানিয়া সৃষ্টি করেছে তাকে কে চ্যালেঞ্জ জানাবে? সূত্র : ডন অনলাইন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Shah Imran ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫১ এএম says : 0
অমানুষ গুলো প্রস্তর যুগের নির্যাতন শুরু করেছে।
Total Reply(0)
MD Faruk ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫১ এএম says : 0
এটা তো ভারতের নিত্য দিনের ঘটনা। আর দিন শেষে ওরাই আবার বাংলাদেশ কে নিয়ে সমালোচনায় মেতে উঠে। আর বাংলাদেশের দালালরা তাদের কে তেল মারে।
Total Reply(0)
Md Mominur Rahman ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫৪ এএম says : 0
উগ্রতাকে প্রশ্রয় দিলে সেটা কখনও মঙ্গল বয়ে আনে না।
Total Reply(0)
Tariq ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫৫ এএম says : 0
অনেকে তো বড় গলায় বলে ভারতে সংখ্যালঘু নির্যাতন হয় না।
Total Reply(0)
ওমর ফারুক ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫২ এএম says : 0
মন্দির মসজিদ বানাতে গিয়ে যদি মানুষের বাসস্থান দখল করা হয়, মানুষকে উচ্ছেদ করা হয় তবে সেটা কি করে স্রষ্টার উপাসনালয় হয়?
Total Reply(0)
Riduanul Hoque ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫৩ এএম says : 0
বিশ্বের সবচেয়ে বৃহত্তম গণতন্ত্রের ধারকদাবীকারী দেশটি উগ্র সাম্প্রদায়িকতার কবলে পড়ে আজ উন্টোদিকেই হাটছে।এই উল্টো পথযাত্রা অব্যাহত থাকলে অচিরেই দেশটি তার ঐতিহ্যবাহী ইতিহাস,কৃষ্টি,কালচার, সভ্যতা সব হারিয়ে একঘরে,ভুবুক্ষ, অসভ্যের দেশে পরিনত হবে একথা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।
Total Reply(0)
Md. Rabiul islam ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৫:৩১ পিএম says : 0
এটা তো ভারতের নিত্য দিনের ঘটনা। আর দিন শেষে ওরাই আবার বাংলাদেশ কে নিয়ে সমালোচনায় মেতে উঠে। আর বাংলাদেশের দালালরা তাদের কে তেল মারে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন