বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

বিশ্বের গতিপথ পরিবর্তন করবে উদ্ভাবকরা : এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান দেশটির সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি ফেস্টিভ্যাল ‘টেকনোফেস্ট’ পরিদর্শন করেছেন। ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক বিমানবন্দরে তুরস্কের সর্ববৃহৎ বিমান, মহাকাশ, প্রযুক্তি ফেস্টিভ্যাল টেকনোফেস্ট বিষয়ে প্রেসিডেন্ট বলেন, তিনি সফল পাইলট, বিজ্ঞানী, উদ্ভাবক, প্রকৌশলী, প্রযুক্তি, পদার্থবিদ, গবেষক ও নভোচারীদের দেখছেন যারা তুরস্ককে নতুন রূপ দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি আশা করি টেকনোফেস্টের তরুণ উদ্ভাবকরা ২০৫৩ এবং ২০৭১ সালে দেশটির স্থপতি হবেন। বিশ্বের এক নম্বর বিমান চলাচল, মহাকাশ এবং প্রযুক্তি ফেস্টিভ্যাল। তরুণদের প্রচেষ্টায় দেশের সমৃদ্ধ সম্ভাবনাও এখানে প্রদর্শিত হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট বলেন, যেহেতু আমাদের মানববিহীন বিমান বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে শিরোনাম হয়েছে, তাই টেকনোফেস্ট বিশ্ব মিডিয়ার এজেন্ডায় এক নম্বর হওয়া উচিত। আশা করি, আগামী বছর থেকে আমরা টেকনোফেস্টকে একটি আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড হিসেবে গড়ে তুলব এবং আমরা এটিকে আজারবাইজান থেকে শুরু করে বন্ধুত্বপূর্ণ এবং মিত্র দেশগুলোতে আয়োজন করব। তিনি বলেন, আমরা ইস্তাম্বুল থেকে তরুণদের স্বাগত জানাই, যা ফাতিহ সুলতান মেহমেত হান জয় করেছিলেন এবং যেখানে হিজারফেন আহমেদ সেলেবি বাস করতেন এবং যারা তাদের হৃদয়কে বিজ্ঞান, বিজ্ঞান ও গবেষণার জন্য উৎসর্গ করেছেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি সংস্থা ও বেসরকারি খাতের কোম্পানিগুলো টেকনোফেস্টে কাজ করার জন্য পুরোপুরি একমত প্রকাশ করেছে। যা জাতীয় প্রযুক্তির পদক্ষেপের প্রতীক। তিনি আরও বলেন, তারা দিনরাত হাতে হাত রেখে কাজ করে আমাদের দেশের তরুণদের সহযোগিতা করছে। প্রতি বছর, তারা টেকনোফেস্ট প্রযুক্তি প্রতিযোগিতার তারিখ নির্ধারণের অপেক্ষায় থাকে। যে দলগুলো তারা গঠন করেছে, তারা রকেট থেকে শুরু করে মানববিহীন যানবাহন পর্যন্ত অনেক ক্ষেত্রে তীব্র প্রতিযোগিতা করে। বৈদ্যুতিক যানবাহন থেকে শুরু করে শিল্প রোবট, বায়োটেকনোলজি থেকে পরিবেশ পর্যন্ত। এরদোগান বলেন, আমরা আক্রমণকারী হেলিকপ্টার তৈরি করেছি এবং এর মাধ্যমে আমাদের দেশে এবং বিদেশে সন্ত্রাসবাদের পিঠ ভেঙে দিয়েছি। আজ, আমাদের আকাশে এই তুর্কি-নির্মিত প্রযুক্তির শব্দ আপনার হৃদয়কে উষ্ণ করে তুলবে। উড়ন্ত গাড়ির নকশা থেকে যোগাযোগ প্রযুক্তি, স্বাস্থ্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা থেকে শুরু করে শিল্পে ডিজিটাল প্রযুক্তি, বায়োটেকনোলজি এবং উদ্ভাবন থেকে কৃষি, পর্যটন, পরিবেশ এবং শক্তি পর্যন্ত অনেক ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। যদিও টেকনোফেস্ট অল্পদিনের সংগঠন, এটি এরই মধ্যে অঞ্চল এবং বিশ্বে নিজের জন্য একটি সুনাম আনতে সক্ষম হয়েছে। যুবকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তোমরা বলতে পারবে না, তোমরা তৈরি করতে পারবে না, তোমার দ্বার হবে না ইত্যাদি। যারা তোমাদের এসব কথা শোনাবে তাদের কথায় কান দেবে না।তোমরা এই দেশের সবচেয়ে বড় সম্পদ। আমরা তোমাদেরকে বিশ্বাস করি। তোমরা ফতিহ সুলতান মেহমেত খানের নাতি, তিনি একজন মেধাবী তুর্ক যিনি মাত্র ২১ বছর বয়সে ইস্তান্বুল বিজয় করেন। তোমরা যদি এই জাতির জন্য আমার কাছ থেকে কিছু চাও, তাহলে তোমাকে অবশ্যই সর্বোত্তমটি চাইতে হবে। উদ্বোধন বক্তব্যের পর একযোগে ২৭টি প্রদেশে এক্সপেরিমেন্ট টার্কি টেকনোলজি ওয়ার্কশপগুলো সরাসরি সংযোগের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- রসায়নে তুরস্কের নোবেল বিজয়ী ড. আজিজ সঞ্চার এবং রাষ্ট্রপতি তাদের প্রকল্পের সঙ্গে ৩৬টি ভিন্ন বিভাগে প্রতিযোগীতায় বিজয়ী দলগুলোকে পুরস্কার দেন। ইস্তাম্বুলে ছয় দিনের টেকনোফেস্ট ইভেন্টটি মঙ্গলবার শুরু হয়েছে এবং রোববার শেষ হয়েছে। এটি পেটেন্ট, উদ্ভাবন এবং নতুন পণ্যের বাণিজ্যিকীকরণের উপর একটি বার্ষিক প্রদর্শনী। ২০১৮ সালে শুরু হওয়া এই টেকনোফেস্ট ৪ বছরের ব্যবধানে ২০২১ সালে নতুন উদ্ভাবনকারী প্রতিযোগী সংস্থা ১৪ থেকে ৩৫ যে, পুরস্কার ২০ লক্ষ্য থেকে ১ কোটি ২০ লক্ষ্য লিরা, রেজিস্ট্রেশন ২০ হাজার লোক থেকে ২ লক্ষ্য লোকে পৌঁছেছে। আনাদোলু।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
jack ali ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১১:৪৯ এএম says : 0
Rule your country by Qur'an Mr Edrogan then Allah will protect Turkey in every way.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন