বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত থাকলে শরণার্থীর ঢল সৃষ্টি হবে

মার্কিন দখলদারিত্বে আফগানিস্তানে ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে মার্কিন ও ইইউ’র প্রতি আমির খান মুত্তাকি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০০ এএম

আফগানিস্তানের নতুন তালেবান সরকার মার্কিন ও ইউরোপীয় দূতদের সতর্ক করে বলেছে যে, নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে তাদের ওপর চাপ প্রয়োগের অব্যাহত প্রচেষ্টা নিরাপত্তা ক্ষতিগ্রস্ত করবে এবং অর্থনৈতিক শরণার্থীদের ঢেউ সৃষ্টি করতে পারে।

ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি দোহায় আলোচনায় পশ্চিমা কূটনীতিকদের বলেন যে, ‘আফগান সরকারকে দুর্বল করা কারো স্বার্থে নয়, কারণ এর নেতিবাচক প্রভাব সরাসরি বিশ্বকে (নিরাপত্তা) খাত এবং দেশ থেকে অর্থনৈতিক অভিবাসনকে প্রভাবিত করবে’। মঙ্গলবার গভীর রাতে বিবৃতিটি প্রকাশিত হয়।

দুই দশকের দীর্ঘ যুদ্ধের পর তালেবান আগস্টে আফগানিস্তানের সাবেক মার্কিন সমর্থিত সরকারকে উৎখাত এবং ধর্মীয় আইনের অধীনে পরিচালিত ইসলামী আমিরাত ঘোষণা করে। কিন্তু দেশটিকে স্থিতিশীল করার প্রচেষ্টা এখনও জঙ্গি ইসলামিক স্টেট গোষ্ঠীর আক্রমণের মুখে এবং আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে: ব্যাংকগুলো নগদশূন্য হয়ে যাচ্ছে এবং সরকারি কর্মচারীরা বেতন পাচ্ছেন না।

মুখপাত্রের বিবৃতি অনুসারে মুত্তাকি দোহা বৈঠকে বলেন: ‘আমরা বিশ্বের দেশগুলোকে অনুরোধ করছি যে, বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞা শেষ করুন এবং ব্যাংকগুলোকে স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে দিন যাতে দাতব্য গোষ্ঠী, সংস্থা এবং সরকার তাদের নিজস্ব সঞ্চয় এবং আন্তর্জাতিক সহায়তার অর্থ দিয়ে তাদের কর্মীদের বেতন দিতে পারে’।

বিশেষ করে ইউরোপীয় দেশগুলো উদ্বিগ্ন যে, যদি আফগান অর্থনীতি ভেঙে পড়ে, তাহলে বিপুল সংখ্যক অভিবাসী মহাদেশের দিকে যাত্রা শুরু করবে, প্রতিবেশী রাজ্য যেমন পাকিস্তান ও ইরান এবং অবশেষে ইইউ সীমান্তে চাপ সৃষ্টি করবে।

ওয়াশিংটন এবং ইইউ বলেছে যে, তারা আফগানিস্তানে মানবিক উদ্যোগকে সমর্থন করতে প্রস্তুত, কিন্তু তালেবানকে সরাসরি সহায়তা প্রদানের ব্যাপারে সতর্ক আছে। তারা গ্যারান্টি চায় যে, আফগানিস্তান মানবাধিকার বিশেষ করে নারীর অধিকারকে সম্মান করবে। এদিকে মার্কিন দখলে থাকা আফগান শাসন ব্যবস্থায় এবং আফগানিস্তানে আমেরিকান ফোর্স সেটআপের অভ্যন্তরে ব্যাপক দুর্নীতির খবর উদ্ঘাটিত হয়েছে। ২০০৮ সালে মার্কিন কংগ্রেস আফগান পুনর্গঠনের জন্য বিশেষ মহাপরিদর্শক (সিগার) গঠন করেছিল, যখন তারা দেখতে পেয়েছিল যে, ১৪৫ বিলিয়ন ডলার কোন নজরদারি ছাড়াই ব্যবহার করা হয়েছে।

পেন্টাগন জানিয়েছে, ২০০১ সাল থেকে আফগানিস্তানে যুদ্ধের মোট খরচ ছিল ৮২৫ বিলিয়ন ডলার এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এটিকে ২ ট্রিলিয়ন ডলারের বেশি বলে মনে করেন। তবে, স্বাধীন সূত্রগুলো ব্যয় অনেক বেশি বলে অনুমান করছে।

ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ওয়াটসন ইনস্টিটিউট ইঙ্গিত দিয়েছে যে, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ খরচে আমেরিকান করদাতাদের ৮ ট্রিলিয়ন ডলারেরও বেশি খরচ হয়েছে।
২০০৭ সালে, আফগান প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবদুল রহিম ওয়ার্দাক কানাডিয়ান কোম্পানি হাইপার স্টিলথের কাছ থেকে বিরল ছদ্মবেশের প্যাটার্নসহ ১ দশমিক ৩ মিলিয়ন সেট নতুন ইউনিফর্ম অর্ডার করেছিলেন।

২০০৭ সালে ২৮ মিলিয়ন ডলার এবং পরবর্তী দশকে ২০১৭ সালে ৭২ মিলিয়ন ডলারের পূর্ববর্তী প্যাটার্ন থেকে এই পরিবর্তন। মজার বিষয় হল, এসব ইউনিফর্ম কখনও মাঠে পরীক্ষা বা মূল্যায়ন করা হয়নি এবং আফগানিস্তানে মাত্র ২.১% বনভূমি ছিল।

আফগানিস্তানের সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবদুল রহিম ওয়ার্দাকের ছেলে দাউদ ওয়ার্দাক সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২ কোটি ৯ লাখ ডলারের বেভারলি হিলস ম্যানশন কিনেছেন বলে জানা গেছে। আগে থেকেই তিনি ৫২ লাখ ডলার মূল্যের মিয়ামি বিচের বাসভবনের মালিক।

যুদ্ধের সময় একাধিক অনুদান এবং দাতাদের বিলিয়ন বিলিয়ন অর্থে আফগানিস্তানের চারপাশে একটি বিস্তৃত রিং রোড তৈরি হয়েছিল। সিগার একটি অডিট রিপোর্টে বলেছে, প্রকল্পের শেষের দিকে, কায়সার এবং লামান শহরের মধ্যে উত্তরে একটি ২৩৩ কিলোমিটার অংশের ব্যয় বরাদ্দ ২৪ কোটি ৯০ লাখ ডলার ঠিকাদারদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছিল, কিন্তু রাস্তার মাত্র ১৫% নির্মিত হয়েছে।

রিপোর্টটিতে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালের মার্চ থেকে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই অংশে কোন নির্মাণ হয়নি এবং যা নির্মিত হয়েছিল তা নষ্ট হয়ে গেছে। ইউএসএআইডি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।
কাবুলে মার্কিন দূতাবাসের পাশে একটি ব্যয়বহুল হোটেল এবং অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স চালু করা হয়েছে, যার জন্য আমেরিকান সরকার ৮ কোটি ৫০ লাখ ডলার ঋণ প্রদান করেছিল। সিগার উপসংহারে বলেছে, ২০১৬ সালে ৮ কোটি ৫০ লাখ ডলার ঋণ খরচ হয়ে গেছে, ভবনগুলো সম্পন্ন হয়নি এবং বসবাসের অযোগ্য এবং মার্কিন দূতাবাস এখন মার্কিন করদাতাদের অতিরিক্ত মূল্যে সাইটের নিরাপত্তা দিতে বাধ্য হয়েছে’।

নিরীক্ষায় দেখা গেছে, ঠিকাদার ঋণ নিশ্চিত করার জন্য অবাস্তব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল এবং মার্কিন সরকারের যে শাখাটি প্রকল্পটি তত্ত্বাবধান করেছিল তারা কখনও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেনি এবং প্রকল্পটি তত্ত্বাবধান করার জন্য যে কোম্পানিটি তারা নিয়োগ করেছিল তাও হয়নি। স্টেট ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র বলেছেন যে, তারা নির্মাণটি পরিচালনা করেননি এবং এটি ‘একটি ব্যক্তিগত প্রচেষ্টা’।

পেন্টাগন টাস্ক ফোর্স ফর বিজনেস অ্যান্ড স্ট্যাবিলিটি অপারেশনস (টিইবিএসও) তৈরি করেছিল যা ২০০৯ সালে আফগানিস্তানকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ইরাক থেকে সম্প্রসারিত হয়েছিল, যার জন্য আফগানিস্তান কংগ্রেসের কার্যক্রমের জন্য ৮ কোটি ২৩ লাখ ডলার বরাদ্দ করা হয়েছিল।

সিগার একটি নিরীক্ষায় বলেছিল, টিটিএফবিএসও কর্তৃক প্রকৃত অর্থের অর্ধেকেরও বেশি ৬৭ কোটি ৫০ লাখ ডলারের মধ্যে ৩৫ কোটি ৯০ লাখ ডলার পরোক্ষ এবং সহায়তায় ব্যয় করা হয়েছে, সরাসরি আফগানিস্তানের প্রকল্পে নয়।

তারা টিএফবিএসও -র করা ৮৯টি চুক্তি পর্যালোচনা করে এবং দেখেছে যে, ৩ কোটি ৫১ লাখ ডলার মূল্যের ৭টি চুক্তি এমন প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হয়েছে যার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে রয়েছেন টিএফবিএসওর সাবেক কর্মী।

প্রতিবেদনে যেসব বিষয় তুলে ধরা হয়েছে তা সমগ্র বিশ্বের এবং বিশেষ করে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা জোটের জন্য একটি চক্ষুশূল হিসেবে কাজ করবে, যারা একটি গণতান্ত্রিক, দুর্নীতিমুক্ত এবং আইনানুগ সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য আফগানিস্তান দখল করেছিল এবং তার বদলে দুর্নীতিবাজদের সাথে হাত মিলিয়েছিল। মাফিয়া

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বোঝা দরকার যে, সন্ত্রাসবাদসহ সব সমস্যার সমাধান কেবল স্থানীয় উদ্বেগের সমাধানের মাধ্যমেই করা যেতে পারে এবং একটি ভাল পন্থা হল শান্তিপূর্ণ অংশগ্রহণ।

এমনকি বিশ্বের দৃশ্যত সর্বাধিক উন্নত দেশগুলোতেও রাষ্ট্রীয় উপাদানগুলোর ওপরে ছিল যারা রাজ্যের সম্পদ লুণ্ঠন করে এবং জনগণকে এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের বোকা বানায়। দুঃখভরা আফগানিস্তান থেকে উদ্ভূত দুর্নীতির কাহিনী মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের নীতিতে ত্রুটি রেখা প্রকাশ করতে সাহায্য করবে।

দুর্নীতিগ্রস্ত পূর্ববর্তী শাসনের উপর ভারী নির্ভরতা যা যুক্তরাষ্ট্রকে দুর্নীতিবাজদের স্বার্থের ওপর ভিত্তি করে সামরিক নেতৃত্বাধীন বিকল্পগুলোকে এগিয়ে নিতে উৎসাহিত করেছিল, আফগানিস্তানে মার্কিন ব্যর্থতার একটি বড় কারণ ছিল।

আমেরিকা এবং বিশ্বের অন্যান্য শক্তির আফগানদের সাথে জড়িত হওয়ার সময় এসেছে। তালেবান বিশ্বব্যাপী অন্তর্ভুক্তি এবং ইতিবাচক সম্পৃক্ততার জন্য ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে। আফগানদের বিচ্ছিন্ন করার বিকল্পটি অতীতে ভালো ছিল না এবং ভবিষ্যতেও ভালো হবে না।

পাকিস্তান দীর্ঘদিন ধরে আফগানিস্তান সঙ্ঘাতের শান্তিপূর্ণ সমাধান খুঁজে বের করার জন্য জোর দিয়ে আসছে, তবে যুক্তরাষ্ট্র ভারতের পরামর্শে কঠোর পন্থা অবলম্বন করে এসেছে। এটা সাধারণভাবে বিশ্বাস করা হতো যে, যারা আফগান সঙ্ঘাত থেকে উপকৃত হচ্ছে তারা তাদের স্বার্থের জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে শান্তিপূর্ণ এবং আলোচনার সুযোগকে অস্বীকার করেছে। সূত্র : এক্সপ্রেস ট্রিবিউন ও ডন অনলাইন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
Rowshon Akter ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১:৫২ এএম says : 0
আমেরিকার কাজেই হলো কেউ ভালো থাকলে সেখানে অশান্তি বাঁধা ।
Total Reply(0)
Md Kalam ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১:৫২ এএম says : 0
আমেরিকা চেয়েছিলো আফগানিস্তান কে গুলাম বানিয়ে রাখার জন্য তা পারে নাই। কি করলে ২০ বছর যুদ্ধ করে লাব হলো না।
Total Reply(0)
Shuvendra Dey ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১:৫৩ এএম says : 0
Hope finally peace returns to Afghanistan and the people can be happy and prosperous like the rest in this world.
Total Reply(0)
Abdul Khaleque Sarker ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১:৫৪ এএম says : 0
আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের শোচনীয় পরাজয় আর তালেবানের বিজয় কিন্তু আফগানিস্তান আসলে কার? আর, এরপর আবার কে?
Total Reply(0)
হাসান সোহাগ ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ১০:২১ এএম says : 0
সারা বিশ্বের উচিত এখন আফগানের পাশে দাঁড়ানো
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন