বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আফগান্তিানের খনিজ উত্তোলনে তালেবানের সাথে কাজ করতে পারে চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০২১, ৭:০৫ পিএম

আফগানিস্তানে আনুমানিক ট্রিলিয়ন ডলারের দূর্লভ খনিজ ধাতু রয়েছে এবং চীন -এর মতো দেশগুলো তা উত্তোলনে আগ্রহী হতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে তাদেরকে অবশ্যই আন্তর্জাতিক শর্তাবলী অনুসরণ করতে হবে। সংবাদমাধ্যম সিএনবিসিকে এক বিশ্লেষক এই তথ্য জানিয়েছেন।

অ্যালায়েন্স বার্নস্টাইনের উদীয়মান বাজারের ঋণের পরিচালক শামাইলা খান বলেন, তালেবানরা এমন সম্পদ নিয়ে আবির্ভূত হয়েছে যা ‘বিশ্বের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক প্রস্তাব’। সেটি হচ্ছে, আফগানিস্তানে খনিজ পদার্থ যা ‘কাজে লাগানো যায়।’ তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত চীনের উপর চাপ সৃষ্টি করা, যদি তারা তালেবানদের সাথে মিত্র হিসাবে কাজ করতে চায়। ওয়াশিংটন ডিসিতে আফগান দূতাবাসের সাবেক কূটনীতিক আহমদ শাহ কাটোয়াজাইয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে আফগানিস্তানে খনিজ এবং বিরল মাটির ধাতুর মূল্য ২০২০ সালে ১ ট্রিলিয়ন থেকে ৩ ট্রিলিয়ন ডলারের মধ্যে হবে বলে ধারণা করা হয়। সংবাদ সংস্থা দ্য হিল এই বছরের শুরুতে এর মূল্য প্রায় ৩ ট্রিলিয়ন ডলার বলে উল্লেখ করেছে।

সিএনবিসির ‘স্কোয়াক বক্স এশিয়া’ কে শামাইলা খান বলেন, ‘এটি নিশ্চিত করার জন্য একটি আন্তর্জাতিক উদ্যোগ হওয়া উচিত যে, যদি কোন দেশ তালেবানদের পক্ষে তার খনিজ পদার্থ উত্তোলন করতে সম্মত হয়, তবে তা কেবল কঠোর মানবিক অবস্থার মধ্যেই করতে হবে যেখানে মানবাধিকার, এবং মহিলাদের অধিকার সংরক্ষণ করা হয়।’ কাটোয়াজাইয়ের মতে, আফগানিস্তানে ল্যান্থানাম, সেরিয়াম, নিওডিয়ামিয়াম এবং অ্যালুমিনিয়াম, সোনা, রূপা, দস্তা, পারদ এবং লিথিয়ামের আকরিক রয়েছে। ইলেকট্রনিক্স থেকে বৈদ্যুতিক যানবাহন, এবং স্যাটেলাইট এবং উড়োজাহাজ সবকিছুতেই এই খনিজগুলো ব্যবহার করা হয়।

শামাইলা খান বলেন, ‘তাই চীনের উপর চাপ থাকা উচিত যদি তারা তালেবানদের সাথে জোট করতে যায়। যাতে তাদের জন্য অর্থনৈতিক সহায়তা তৈরি করা যায় - যাতে তারা এটি আন্তর্জাতিক শর্তে করে।’ সূত্র: সিএনবিসি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন