ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ট্রাম্পকে ভোট না দিলে পরমাণু যুদ্ধ

একমাত্র ট্রাম্পই রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে চলমান বিপজ্জনক বিরোধের অবসান ঘটাতে সক্ষম। কিন্তু হিলারি প্রেসিডেন্ট হলে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বেধে যাবে : জিরিনোভক্সি

প্রকাশের সময় : ১৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দিন অথবা পরমাণু যুদ্ধের ঝুঁকি নিনÑযুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের এক সুহৃদ জিরিনোভস্কি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের প্রতি এভাবেই আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ৮ নভেম্বর একজন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য ভোট দিতে আসা মার্কিনীদের বুঝতে হবে, যদি তারা ট্রাম্পকে ভোট দেন তবে তারা আসলে পৃথিবীর শান্তির জন্য ভোট দেবেন। আর যদি তারা হিলারিকে ভোট দেন তবে তা যুদ্ধের পক্ষে ভোট দেয়া হবে। এটি একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র হবে। সারা বিশ্ব হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে পরিণত হবে। নির্বাচনে ট্রাম্পের জয় মানবতার জন্য একটি উপহার হবে। কিন্তু যদি হিলারি জেতেন তবে তিনি এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের শেষ প্রেসিডেন্ট হতে পারেন।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রুশ আইনজীবী ভøাদিমির জিরিনোভস্কি বলেন, একমাত্র ট্রাম্পই মস্কো ও ওয়াশিংটনের মধ্যে চলমান বিপজ্জনক বিরোধের অবসান করতে সক্ষম। অন্যদিকে, ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমক্রেটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বাধিয়ে দেবেন। ট্রাম্প এমনকি শান্তিতে নোবেল পুরস্কারও পেয়ে যেতে পারেন মন্তব্য করে জিরিনভস্কি বলেন, ট্রাম্প (প্রেসিডেন্ট হলে) সম্পর্কগুলো আরও শান্তিপূর্ণ হওয়ার দারুণ সুযোগ তৈরি হবে। তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি এটি করতে পারবেন। গত মাসে রাশিয়ার সংসদ নির্বাচনে জিরিনভস্কির দল ক্রেমলিন-পন্থি লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি অব রাশিয়া (এলডিপিআর) তৃতীয় স্থান দখলের পর প্রেসিডেন্ট পুতিন জিরিনভস্কিকে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কারের ভূষিত করেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, উল্টা-পাল্টা মন্তব্য করে সবার মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টার কারণে রাশিয়ার অনেক মানুষ জিরিনভস্কিকে ভাঁড় মনে করে। তবে ক্রেমলিন পলিসির একজন বিশ্বস্ত অনুগত হিসেবেও বিশ্ব জুড়ে তিনি পরিচিত। জিরিনভস্কি বলেন, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক বর্তমান অবস্থার চেয়ে আর খারাপ হওয়া সম্ভব না। একমাত্র যদি যুদ্ধ বাধে তবেই কেবল এর চেয়ে খারাপ সম্পর্ক হতে পারে। জিরিনভস্কি জানান, ২০০২ সালে নিউ ইয়র্কে ট্রাম্পের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হয়। ট্রাম্পের সঙ্গে তার অনেক বিষয়ে মিল রয়েছে। এমনকি ট্রাম্প তার আত্মীয় কিনা তা জানতে জিরিনভস্কি ডিএনএ পরীক্ষা করতেও আগ্রহী। রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনও খুবই বুদ্ধিমান বলে ট্রাম্পের প্রশংসা করেছেন। যদিও পুতিন ও ট্রাম্পের কখনওই সাক্ষাৎ হয়নি। ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট বরাক ওবামার তুলনায় অনেক ভালো নেতা বলে পুতিন মন্তব্য করেন। ট্রাম্প ও রাশিয়ার ঘনিষ্ঠতা নিয়ে হিলারি বলেন, ট্রাম্প রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে খুবই স্বচ্ছন্দ। রাশিয়ায় ট্রাম্পের ব্যবসায়িক সুবিধা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। ট্রাম্পের প্রশংসার পাশাপাশি হিলারিকে শয়তানের শাশুড়ি বলেন জিরিনভস্কি। তিনি বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিসেবে তার রেকর্ডই বলছে তিনি (হিলারি) মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার যোগ্য নন। তিনি (হিলারি) ক্ষমতা চান। তিনি নিজেকে পৃথিবীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে দেখতে চান এবং যুক্তরাষ্ট্রকে ব্যতিক্রমী দেশ হিসেবে উপস্থাপন করতে চান, যেমনটা বারাক ওবামা বলেছেন। এই ভাবনাটাই ভয়ঙ্কর। তিনি পরমাণু যুদ্ধ বাধিয়ে দিতে পারেন। এমনকি হিলারি একজন নারী এবং কোনো নারীর হাতে দেশের নেতৃত্ব ছেড়ে দেয়া ঝুঁকিপূর্ণ বলেও মন্তব্য করেন জিরিনভস্কি। তিনি আরো বলেন, বেশির ভাগ মার্কিনীর ট্রাম্পকে বেছে নেয়া উচিত, কারণ তিনি একজন পুরুষ এবং লাখ লাখ বছর ধরে পুরুষরাই নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। বিশ্বের অন্যতম ধনী ও সবচেয়ে শক্তিশালী দেশের নেতৃত্বে একজন নারী প্রেসিডেন্টকে নিয়ে আসার ঝুঁকি আপনি নিতে পারেন না। নারীদের নিয়ে ট্রাম্পের অশ্লীল মন্তব্যের ব্যাখ্যায় জিরিনভস্কি বলেন, বিশ্ব জুড়ে সব পুরুষরাই শুধু তার বন্ধুদের জন্য কোনো না কোনো সময় এ ধরনের কথা বলে থাকে। আমাদের শুধুমাত্র তার ব্যবসা ও রাজনৈতিক দক্ষতা বিবেচনা করা উচিত। রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
আসিফ ১৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১১:২৬ এএম says : 1
আমি আপনার সাথে একমত হতে পারলাম না
Total Reply(0)
Tania ১৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:৫৫ পিএম says : 0
trump hole je hobe tar ki guarantee ase ?
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন