সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সহিংসতায় ইন্ধনদাতাদের নাম শিগগিরই প্রকাশ

সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের সংলাপে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৭ অক্টোবর, ২০২১, ১২:৪৫ এএম

দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চক্রান্তকারী ও ইন্ধনদাতাদের নাম জানা গেছে। শিগগিরই তাদের নাম প্রকাশ করা হবে। গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের সংলাপে অংশ নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের ১৬৪ ধারায় দেয়া জবানবন্দিতে যাদের নাম পাওয়া গেছে সেখানে পরিচিত অনেকের নাম রয়েছে। শিগগিরই নামগুলো প্রকাশ করা হবে। নোয়াখালীতে ভিডিও ফুটেজ দেখে যারা অপকর্ম করেছেন তাদের গ্রেপ্তার করেছি। ১৬৪ ধারায় তাদের জবানবন্দি নেয়া হয়েছে। দেশে হিন্দু-মুসলিমের সম্প্রীতি বিনষ্টের জন্য এসব ঘটনা ঘটানো হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমরা প্রথম থেকেই বলে আসছি এটা চক্রান্ত। একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য চিহ্নিত কয়েকজন নেতাকর্মী এতে উৎসাহ দিয়েছেন এবং এগুলোর ব্যবস্থা করেছেন। আমরা নামগুলো জেনে গেছি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, সুপরিকল্পিতভাবে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি ও হিন্দু-মুসলিমের সম্প্রীতি বিনষ্টের জন্য এসব ঘটনা ঘটানো হয়েছে। এসব ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের জবানবন্দি নেয়া শেষ হলেই সবগুলো নামই দুই এক দিনের মধ্যে সাংবাদিকদের জানানো হবে। যাদের নাম এসেছে তাদের মধ্যে বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতিবিদরা কেউ আছেন কিনা প্রশ্নে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনারা যা অনুমান করছেন আমরা এরকমই শুনছি। তবে আমরা শতভাগ নিশ্চিত হয়ে নামগুলো জানাব। এমন নামও এসেছে যে নামগুলো আপনাদের পরিচিত। রংপুরের ঘটনায় জড়িতদের নামগুলোও শুনবেন। আমরা নাম পাচ্ছি। ধৈর্য ধরেন, একদম সঠিক হয়ে জানাব। তিনি আরো বলেন, এনআইডি আগে ছিল নির্বাচন কমিশনের হাতে। আগে যারা ভোটার তাদেরই এনআইডি দেয়া হতো। সারাবিশ্বে জন্ম থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত এনআইডির আওতায় থাকে। আমাদের নির্বাচন কমিশন ১৮ বছরের পর থেকে এনআইডি দিত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শূন্য বয়স থেকে এনআইডি চালু করতে পরিকল্পনা নিয়েছেন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এনআইডি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আসার ব্যাপারে কিছু আইনি জটিলতা আছে। সেটা দেখার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে ফাইল। আইন মন্ত্রণালয় আইনগত দিক যাচাই-বাছাই করে দেখছে। প্রধানমন্ত্রী সবসময় বলেন আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে জিরো টলারেন্স, সে নির্দেশনা মেনেই আমরা কাজ করছি।

এনআইডির কার্যক্রম স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কবে থেকে শুরু করছে এমনপ্র্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) কথাটা আমি বলেছি। এনআইডিতে আইনি কিছু জটিলতা রয়েছে। সেটার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ের কাছে ক্লিয়ারেন্স বা স্পষ্টিকরণ চেয়েছি। কারণ আইনে ধারা, উপধারা সংশোধন করতে হবে কিনা? তা জানার জন্য। এজন্যই স্পষ্টকরণের ব্যাপারটা আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। তারা মতামত দিলে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপে যাবো। বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের (বিএসআরএফ) সভাপতি তপন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন