রোববার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৯ মাঘ ১৪২৮, ১৯ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

নিয়মে নেই তবুও লিজের জমিতে পাকা ভবন, চলছে নির্মাণ কাজ

শরীয়তপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২ নভেম্বর, ২০২১, ৫:২৫ পিএম

শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ পৌরসভায় লিজ নেওয়া জমিতে চলছে পাকা ভবন নির্মাণ কাজ।


স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণের নিয়ম না থাকলেও শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ বাজারে লিজ নেওয়া জমিতে চলছে পাকা ভবন নির্মাণের কাজ। গত দুইমাস ধরে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ অব্যহত থাকলেও জানেন না স্থানীয় প্রশাসন।
যদিও বিষয়টি নিয়ে বাজারের ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। তবে, ভবন নির্মাণকারী ব্যক্তি স্বীকার করেছেন লিজ নেওয়া সরকারি জমিতে পাকা স্থাপনা নির্মাণ করা বেআইনী।
আর যিনি জমি দখল করে কাজ করছেন তিনি জানিয়েছেন, স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণের বিষয়টি মৌখিকভাবে উপজেলা প্রশাসন থেকে অনুমতি নেওয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শরীয়তপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ভেদরগঞ্জ বাজারের ৪৪ নং গৈড্যা মৌজার, ১নং খাস খতিয়ানে ১৪২৪ বাংলা সনে আমির ডিলারকে ৬ শতক জমি লিজ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু পরের বছর ১৪২৫/২৬/২৭ সনে লিজ আর নবায়ন করা হয়নি। চলতি ১৪২৮ সনে তাকে লিজ প্রদান করেনি জেলা প্রশাসক। এভাবেই সরকারি জমি লিজ দেওয়ার মাধ্যমে সরকার প্রতিবছর রাজস্ব আদায় করে থাকে। অথচ আগে থেকে দখল করা ওই জমিটিতে তিনি আধুনিক মডেলের দ্বিতল ভবন তৈরি করে জায়গাটি দখল করেছেন।
মঙ্গলবার (২ নভেম্বর ) সরেজমিন দেখা যায়, বাজারের মধ্য গলিতে সরকার থেকে লিজ নেওয়া জমিতে বহুতল ভবনের নির্মাণ কাজ করছেন ১০/১২ শ্রমিক। এর মধ্যে শেষ হয়েছে বহুতল ভবনের বেজমেন্ট নির্মাণের কাজ। চোখের সামনে এভাবে দিনের পর দিন বহুতল ভবনের নির্মাণ কাজ অব্যাহত থাকলেও প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তা এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। যদিও নির্মানাধীন ভবন থেকে প্রায় ২শ’ গজ দূরে ভেদরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয় ও ইউপি ভূমি সহকারী কর্মকর্তার অফিস।
বেআইনী ভাবে কেন এ কাজ করছেন জানতে চাইলে আমির ডিলার বলেন, এটি উপজেলার ভূমি অফিসের সবাই জানেন। এখন পর্যন্ত অনেক মিডিয়া ও ভূমির লোকজন এসেছে কিন্তু কেউ কোন সমস্যার কথা বলে নাই। এই কথা বলে সংবাদ কর্মীদেরও ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন দখলদারদের পক্ষে এক জনপ্রতিনিধি।
রামভদ্রপুর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা রেজা শাহালম বলেন, ভবন নির্মাণের কথা শুনে আমি ৫/৬ দিন গিয়ে কাজ বন্ধ করতে বলে আসছি। সরকারী খাস জমি লিজ নিয়ে স্থাপনা তৈরি করার কোনো বিধান নেই। বিষয়টি নিয়ে এসিল্যান্ড স্যারের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাফিউল মাজলুবিন রহমান বলেন, সরকার থেকে লিজ নেওয়া জমিতে ভবন নির্মাণের কোনো সুযোগ নেই। এ ব্যাপারে খুব দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হবে।



 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন