বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮, ২২ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

খেলাধুলা

বাবরকে টুর্নামেন্ট সেরা না দেয়াটা অন্যায় হয়েছে, শোয়েবের এ দাবী কি যৌক্তিক?

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ নভেম্বর, ২০২১, ১২:১৪ পিএম

পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম এবারের বিশ্বকাপে ৩০৩  রান করে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়েছেন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৮৯ রান করেছেন বিশ্বজয়ী ডেভিড ওয়ার্নার। 
 
তবে পাকিস্তানের কিংবদন্তি শোয়েব আক্তার টুইট করে বলেন, বাবরকে টুর্নামেন্ট সেরার পুরষ্কার না দেয়াটা অন্যায় হয়েছে। কারণ সে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়েছে। শোয়েব মূলত অতীত ইতিহাস দেখেই বলেছেন এ কথা। যেমন ২০১৬ বিশ্বকাপে ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি হয়েছিলেন টুর্নামেন্ট সেরা। তিনি সেবার মূল পর্বে সর্বোচ্চ ও তামিম ইকবালের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়েছিলেন। বাবরের মতো কোহলিও ২০১৬ বিশ্বকাপের সেমি পর্যন্তই খেলতে পেরেছিলেন।
 
তবে এবার ওয়ার্নার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হয়েও সেরার পুরষ্কার জেতায় শোয়েব বলছেন বিষয়টি অন্যায় হয়েছে। আদৌ কি তা হয়েছে?। বেশিরভাগ মানুষের উত্তরই হবে ‘না’। 
 
যোগ্য ব্যক্তি হিসেবেই ওয়ার্নার টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছেন। এই বিশ্বকাপের আগে তিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদের আইপিএলে খেলতে যান, কিন্তু বাজে পারফরমেন্সের কারণে ছিটকে যান দল থেকে। এরপর অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ দলে তার থাকা নিয়েই শঙ্কা তৈরি হয়। এ বিষয়টি নিয়ে নিশ্চয় ভীষণ মানসিক চাপে পরেছিলেন ওয়ার্নার। সেই চাপ সামলে যে ব্যক্তি এমনভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে সেই তো সেরার পুরষ্কারটি প্রাপ্য। 
 
সুপার টুয়েলভের কথা বাদ দিয়ে শুধু সেমিফাইনাল ও ফাইনালের তার পারফরমেন্স দেখলেই যথেষ্ট হবে। সেমিতে পাকিস্তানের বিশ্বমানের বোলারদের মোকাবেলা করতে গিয়ে অজিরা প্রায় ধরাশয়ী হয়েছিল। সেখানে ওয়ার্নার ৪৯ রান করে দলের জয়ের পথ কিন্তু অনেকটা সুগম করেছিলেন। এরপর ফাইনালেও খেললেন ৫৩ রানের ইনিংস।
 
বাবর আজমও কিন্তু কম যাননি।  এবারেরর বিশ্বকাপে চারটি হাফসেঞ্চুরি করেছেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছে ভারতের বিপক্ষে একটি হাফসেঞ্চুরির মার। তিনিও টুর্নামেন্টের সেরা হওয়ার বড় দাবীদার ছিলেন, কিন্তু তার চেয়ে কিছুটা হলেও এগিয়ে গেছেন ওয়ার্নার।
 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Sumon chandra karmokar ১৫ নভেম্বর, ২০২১, ২:২৩ পিএম says : 0
বাবর আজমকে ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ দেওয়া হয় নাই এটা যুক্তিক।।তার কারন তার দল ফাইনালে উঠেনাই তাই তাকে দেয় নাই।।একই কারনে ২০১৯ সালে সাকিব আল হাসানকে ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ দেওয়া হয় নাই।।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন