মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮, ২১ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

তাইওয়ান ইস্যুতে ইউটার্ন বাইডেনের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ নভেম্বর, ২০২১, ৫:৪৭ পিএম | আপডেট : ৭:০৭ পিএম, ১৮ নভেম্বর, ২০২১

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মঙ্গলবার বলেছেন যে, চীন থেকে তাইওয়ানের স্বাধীনতাকে সমর্থন করবে না যুক্তরাষ্ট্র। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাথে বৈঠকের সময় বাইডেন এই অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করার একদিন পরে বার্তাটি আসে।

নিউ হ্যাম্পশায়ারে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময়, যেখানে তিনি সম্প্রতি স্বাক্ষরিত ১ লাখ ২০ হাজার কোটি ডলারের অবকাঠামো বিলের প্রচার করছিলেন, বাইডেন বলেন যে, তাইওয়ানের বিষয়ে আমেরিকান নীতির বিষয়ে ‘কিছুই’ পরিবর্তন করা হবে না। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘কিছুই ঘটবে না। আমরা আমাদের নীতি পরিবর্তন করতে যাচ্ছি না।’ তাইওয়ানের বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান স্পষ্ট করতে বলা হলে, বাইডেন যোগ করেন, স্বাধীনতা এমন কিছু নয় যা তার প্রশাসন সমর্থন করছে।

‘আমি বলেছিলাম যে তাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে, আমাদের নয়। এবং আমরা স্বাধীনতাকে উৎসাহিত করছি না, আমরা উৎসাহিত করছি যে, তারা তাইওয়ানের আইন অনুযায়ী যা প্রয়োজন, তা করতে পারে।’ বাইডেন ব্যখা করেন, ‘এটাই আমরা করছি। তারা তাদের মন স্থির করুক। নিজেদের সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে তারা স্বাধীন।’ তিনি জানান, তিনি এবং শি বিভিন্ন বিষয়ে সাড়ে তিন ঘন্টা কথা বলেছেন এবং চীনা নেতাকে স্পষ্ট করেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র নিয়ম মেনে চলেছে।

হোয়াইট হাউসের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাও সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তাইওয়ানের স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থানকে সমর্থন করেছিলেন। উপরন্তু, বাইডেন-শি বৈঠকের পরে দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ‘স্থিতাবস্থা পরিবর্তন করার বা তাইওয়ান প্রণালী জুড়ে শান্তি ও স্থিতিশীলতা নষ্ট করার একতরফা প্রচেষ্টার তীব্র বিরোধিতা করে।’

অথচ, এর আগে গত অক্টোবরে একটি বাইডেন বলেছিলেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানকে সাহায্য করতে আসবে যদি আক্রমণ করা হয়। তিনি আপাতদৃষ্টিতে এমন আইনের কথা উল্লেখ করছিলেন যা, চীনা আক্রমণের সময় তাইওয়ানকে অস্ত্র ও সাহায্য সরবরাহের অনুমতি দেয়, তবে তার উপকূলে সৈন্য পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দেয় না। তা সত্ত্বেও, অক্টোবরের প্রথম দিকে রিপোর্ট করা হয়েছিল যে, দ্বীপটিতে গোপনে আমেরিকান সৈন্য মোতায়েন ছিল, যারা চীনের সম্ভাব্য আক্রমণের বিরুদ্ধে তাইওয়ানের সৈন্যদের প্রশিক্ষণে সাহায্য করার জন্য সেখানে ছিল।

এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের মধ্যে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা সৃষ্টি করে, বিশেষ করে তাইওয়ানের উপকূলে বেশ কয়েকটি চীনা সামরিক বিমান দেখা যাওয়ার পর। এই উত্তেজনাগুলো বাইডেন এবং শির মধ্যে সোমবারের আলোচনার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ ছিল বলে জানা গেছে। এই উত্তেজনাগুলো কীভাবে শেষ হবে তা দেখা বাকি রয়েছে, তবে বাইডেন বৈঠকটিকে ‘ইতিবাচক’ হিসাবে উল্লেখ করেছেন এবং শিকে আশ্বস্ত করেছেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আপাতত ‘তাদের আঞ্চলিক জলসীমার বাইরে থাকবে’।

প্রসঙ্গত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাইওয়ান দীর্ঘকাল ধরে উল্লেখযোগ্য অনানুষ্ঠানিক সম্পর্ক উপভোগ করেছে এবং দ্বীপ দেশটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদার হিসাবে অব্যাহত রয়েছে। তা সত্ত্বেও, আমেরিকা কখনও আনুষ্ঠানিকভাবে তাইওয়ানকে স্বীকৃতি দেয়নি। ১৯৭৯ সালে, আমেরিকার কার্টার প্রশাসন একটি যৌথ কমিউনিকে স্বাক্ষর করে যা গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের সাথে আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে, পাশাপাশি বেইজিংয়ের অবস্থান যে তাইওয়ান চীনের অংশ সে বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বীকৃতি পুনর্নিশ্চিত করে। এই 'এক চীন' নীতিটি প্রতিটি মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রশাসনের অবস্থান হিসাবে অব্যাহত রয়েছে, যদিও সমালোচকরা দীর্ঘদিন ধরে তাইওয়ানের স্বাধীনতার বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান পরিবর্তন করার জন্য যুক্তি দিয়ে আসছে। সূত্র: নিউজ উইক।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন