শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২১ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

‘মার্কিন হুমকি মোকাবেলায়’ সামরিক সম্পর্ক বাড়াতে সম্মত মস্কো ও বেইজিং

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ নভেম্বর, ২০২১, ৭:০০ পিএম | আপডেট : ৭:০২ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২১

বুধবার রাশিয়ান প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু তার চীনা সমকক্ষ ওয়েই ফেংঘের সাথে ফোনালাপের পরে নতুন চুক্তির কথা ঘোষণা করেন।


রাশিয়া এবং চীন তাদের সামরিক সম্পর্ক আরও গভীর করার জন্য একটি নতুন চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। তারা বলেছে যে, তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বর্ধিত হুমকি মোকাবেলায় পরস্পরকে সহযোগিতা করবে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু বুধবার চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওয়েই ফেংঘের সাথে ফোনালাপের পরে নতুন এই চুক্তির কথা ঘোষণা করেন। এই চুক্তি ২০২১ থেকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। শোইগু এবং ওয়েই দক্ষিণ চীন সাগর এবং জাপান সাগরে তাদের পারমাণবিক বোমারু বিমান এবং যুদ্ধজাহাজের সাম্প্রতিক যৌথ মহড়াকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং ভবিষ্যতে আরও অনুশীলনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

তারা বলেন, এই শক্তি প্রদর্শন মার্কিন পারমাণবিক বোমারু বিমানের মহড়ার জন্য একটি প্রয়োজনীয় পাল্টা ভারসাম্য ছিল। শোইগু দাবি করেন যে, গত মাসে এমন ৩০ টি মিশন হয়েছে। বিশ্বজুড়ে ক্রমবর্ধমান সামরিক উত্তেজনার পটভূমিতে এই মহড়া চালানো হয়। একইসাথে রাশিয়া ঘোষণা করেছে যে, তারা ইউক্রেনের কাছে কৃষ্ণ সাগরে নৌ ও বিমান মহড়া চালিয়েছে। যেখানে মস্কো সেনা মোতায়েন করেছে ও ইউক্রেনে হামলা চালাতে পারে বলে ওয়াশিংটন সতর্ক করেছে।

ইন্টারফ্যাক্স নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, এই মহড়ায় প্রায় ১০টি বিমান এবং কিছু জাহাজ জড়িত ছিল। এদিকে ইউক্রেন বলেছে যে, তারা রাশিয়ার সাথে সীমান্তে তাদের নিজস্ব মহড়া চালিয়েছে, যার মধ্যে অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক এবং বিমানবাহিনীর ইউনিট রয়েছে। ইউক্রেনের রাষ্ট্রীয় সীমান্ত পরিষেবা জানিয়েছে, বেলারুশ সীমান্তে ‘বিশেষ অভিযানে'’ন্যাশনাল গার্ড, পুলিশ, সশস্ত্র বাহিনী এবং অন্যান্য সংরক্ষিত সৈন্যরা জড়িত ছিল। ‘এভিয়েশন, ড্রোনও সক্রিয়ভাবে টহল ও পর্যবেক্ষণের জন্য ব্যবহার করা হবে,’ পরিষেবাটি এক বিবৃতিতে বলেছে।

শোইগু, চীনের সাথে নতুন চুক্তির কথা ঘোষণার পরে নভেম্বরের শুরুতে গ্লোবাল থান্ডার ২২ মহড়ার দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, ১০টি মার্কিন পারমাণবিক বোমারু বিমান পূর্ব ও পশ্চিম থেকে একযোগে রাশিয়ার কাছে এসেছিল এবং সীমান্তের ১২ মাইলের মধ্যে এসেছিল। ‘এই ধরনের পরিবেশে, রাশিয়ান-চীনা সমন্বয় বৈশ্বিক বিষয়ে একটি স্থিতিশীল ফ্যাক্টর হয়ে ওঠে,’ শোইগু বলেন। সূত্র: ডেইলি মেইল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন