বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮, ২২ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

খেজুর রস সংগ্রহে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

মীরসরাই (চট্টগ্রাম) জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০২১, ১২:০৩ এএম

কুয়াশা আর ভোরে লতাপাতা ও ঘাসের ডগায় শিশির বিন্দুই জানান দিচ্ছে গ্রামীণ জনপদে শীতের আগমনী বার্তা। এই শীত মৌসুমকে কেন্দ্র করে মীরসরাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে খেজুরের রস সংগ্রহের আগাম প্রস্তুতি। উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও ২ পৌরসভার বিভিন্ন গ্রামের চাষিরা শীতের আমেজ শুরুর সাথে সাথে কোমরে দড়ি, দা বেঁধে নিপুণ হাতে খেজুর গাছ প্রস্তুত করছেন। একসময় উপজেলার মাঠে মাঠে ফসলি জমিতে কিংবা জমির আইলে সারি সারি খেজুর গাছ দেখা গেলেও এখন আর সে দৃশ্য অনেকটা স্মৃতি হয়ে যাচ্ছে। গৌরব আর ঐতিহ্যের প্রতীক মধু বৃক্ষ এই খেজুর গাছ। গ্রামীণ জনপদের আসন্ন নবান্ন উৎসবের অপরিহার্য উপাদান খেজুরের রস আর গুড়। শীতের সকালে নানাভাবে খাওয়া হয় এ রস। শীত কিছুটা বাড়লেই শুরু হবে রস সংগ্রহ, তৈরি হবে খেজুরের গুড়।

উপজেলার করেরহাট, হিঙ্গুলী, ওসমানপুর, ইছাখালী, বামনসুন্দর, মঘাদিয়া, সাহেরখালী, আবুতোরাব এলাকাগুলোতে খেজুর গাছে গাছিরা রসের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় খেজুর গাছের ডালপালা পরিষ্কার ও গাছের উপরিভাগে ধারালো দা দিয়ে ছিলে রাখতে দেখা গেছে। উপজেলার মঘাদিয়া বদিউল্লাহ পাড়ার গাছিয়াল মোমিন মিয়া জানান, প্রতি বছরে শীতের এই মাসে খুব পরিশ্রম করতে হয় আমাদের। খুব ব্যস্ত সময় পার করছি খেজুর গাছের পেছনে। গাছের রস সংগ্রহ করতে যেতে হয় কষ্ট করে। শীত যত বেশি হয় রসও শীতের সাথে সাথে বেশি হয়।
উপজেলার দক্ষিণ মঘাদিয়া গ্রামের আমতল এলাকার গাছি জসিম বলেন, এলাকায় আগের মত আর খেজুর গাছ নেই। অন্য দিকে গাছে রসও কম হচ্ছে। ফলে গাছিরা রস আহরণের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। সাবেক শিক্ষক নুরনবী নিজামী জানান, আগে শীত মৌসুমে গ্রামে সকালের পরিবেশ নলেন গুড়-পাটালির ঘ্রাণে মৌ মৌ করত। কিন্তু এখন আর সেসব দিন নেই। শীতের সময় শুধু গ্রামই নয় শহরেও খেজুরের রস-গুড় দিয়ে তৈরি হয় হরেক রকমের পিঠা-পুলি, ক্ষির ও পায়েস। ফলে চাহিদার চেয়ে এ সময় রস-গুড় উৎপাদন কম হওয়ায় দামও বেশি।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন