মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪ মাঘ ১৪২৮, ১৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে যা বলছেন নেটিজেনরা

সোশাল মিডিয়া ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২১, ১২:২৭ এএম

বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। রোববার (২৮ নভেম্বর) সকাল ৮টায় শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোটগ্রহণ। নির্বাচন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন নেটিজেনরা।

এই ধাপে ৩৩টি ইউপিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এবং বাকিগুলোতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হয়েছে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রোববার দিনভর দেশের বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে জাল ভোট, ভোট বর্জন, ব্যালট পেপার ছিনতাই ও হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটেছে।

তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনী সহিংসতায় ঝরেছে ৩ প্রাণ। নির্বাচনের দিন সহিংসতায় লক্ষ্মীপুরে এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছে। মুন্সীগঞ্জে বিজয়ী নারী সদস্যের ভাগ্নেকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া নির্বাচনের আগের রাতে খুলনায় এক সমর্থকের মৃত্যু হয়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে আহত এবং আটক হয়েছে শতাধিক মানুষ।

এদিকে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে কোনও সহিংসতা হয়নি বলে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হুমায়ুন কবীর খোন্দকার দাবি করেছেন।

নির্বাচন প্রসঙ্গে মুশফিক আর আবির ফেইসবুকে লিখেছেন, ‘যদিও এটাকে সুষ্ঠ নির্বাচন বলে না তবুও নৌকার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের ক্ষোভের পরিমাণ কিছুটা হলেও আঁচ করতে পেরেছে অবৈধ মাঝি মাল্লারা। দিনশেষে নৌকার প্রার্থী নিজেই ভোট দিতে না পারা, তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থীর কাছে নৌকার পরজায়, অধিকাংশ ইউনিয়নে সতন্ত্র প্রার্থীদের জয় আর ছাত্রলীগ নেতা সজীবের মৃত্য ছাড়া কিছুই দিতে পারে নি আ. লীগকে। (গত ১৫বছরে আমাদেরও অনেক সজীব মরেছে, গুম হয়েছে; এভাবে-কই কারোর তো টনক নড়ে নি তখন)। আমি সজীবের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি…’

মিনা আরা লিখেছেন, ‘আমি এটাই বুঝতে পারি না যে, এত খুনোখুনি রক্তারক্তি কি দরকার? নির্বাচন না দিয়ে শুধু নমিনেশন দেওয়ার সময় ঘোষণা করলে হয় যে, নৌকা প্রতীক পেয়েছে, সেই চেয়ারম্যান। যত সব তামাশা!’

এই নির্বাচনকে মডেল নির্বাচন দাবি করায় এর সমালোচনা করে এম কে আনোয়ার লিখেছেন, ‘উনি নিজেও তো একটা মডেল, এই রকম নির্বিচন কমিশন আমরা কোন দিনও দেখি নাই!’

একে আওয়াল হোসাইন লিখেছেন, ‘আ. লীগ ও নির্বাচন কমিশনের কাছে এই নির্বাচন মডেল হলেও ,সাধারণ মানুষের কাছে বিএনপিবিহীন এই নির্বাচন, সংঘাত, সংঘর্ষ ও খুনাখুনির নির্বাচন। তারপরও এই নির্বাচনে আ. লীগের ভরাডুবি ঘটেছে।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে আবু রায়হান লিখেছেন, ‘এখন দেশে নির্বাচনের নামে যা হচ্ছে, তাকে আর যা-ই বলা হোক না কেন নির্বাচন বলা যাবে না। এটা জনগণের সাথে মশকরা করা হচ্ছে।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন