শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

পার্বত্য চুক্তির ২৪বছর পূর্তিতে খাগড়াছড়ি পাজেপর ব্যাপক প্রস্তুতি

খাগড়াছড়ি থেকে স্টাফ রিপোটার | প্রকাশের সময় : ১ ডিসেম্বর, ২০২১, ৮:৩০ পিএম

ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২যুগ পূর্তি উদযাপনের অংশ হিসেবে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে “ভ্রাম্যমান সঙ্গীত পরিবেশনা” রোড শো উদ্বোধন হয়েছে।বুধবার সকালে জেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু এ কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন।
পার্বত্য চট্টগ্রামের দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে চলা সংঘাতপূর্ণ পরিস্থিতির অবসানের জন্য তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার এবং জনসংহতি সমিতির মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। ১৯৯৬সালে সুদীর্ঘ ২১বছর পর আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতা গ্রহনের পর পার্বত্য সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে শক্তিশালী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।
খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা জেলা পরিষদের জনসংযোগ কর্মকর্তা চিংলামং চৌধুরী প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তির আলোকে জানানো হয়, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রথম মেয়াদকালে ১৯৯৭সালের ২রা ডিসেম্বর সরকার এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (পিসিজেএসএস) মধ্যে কোনো তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতা ছাড়াই এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
এ চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে ৩পার্বত্য জেলায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের অবসান ঘটে। জনগণ শান্তি চুক্তি পূর্ববর্তী সেই রক্তাক্ত সংঘাতময় দিনগুলিতে ফিরে যেতে চায় না। তাই পার্বত্য জনজীবনে, জাতি-ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে সকল মানুষের কাছে ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির গুরুত্ব অনেক বেশি। এর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বিবাদমান দুই দশকের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের অবসান হয় এবং পার্বত্য চট্টগ্রামে উন্নয়নের দ্বার উন্মোচিত হয়। সে প্রক্রিয়া এখনো চলমান।
খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রতিবছরের ন্যায় গুরুত্ব সহকারে পালন করতে যাচ্ছে, দীর্ঘ দুই দশকের অধিক সময় ধরে চলা পাহাড়ের সশস্ত্র সংঘাত অবসানের লক্ষে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর স্বাক্ষরিত হওয়া ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরের ২৪বর্ষপূর্তি। কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার কর্তৃক জারিকৃত বিধি-নিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে দিবসটি সুষ্ঠু, সুন্দর ও উৎসবমূখর পরিবেশে পালনের লক্ষে নিম্মলিখিত কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে:
০১ডিসেম্বর২১ সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত জেলা শহরে রোড শো। সন্ধ্যায় জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির উপর নির্মিত প্রামান্য চিত্র প্রর্দশনী।০২ডিসেম্বর২১ সকাল ১০টায় খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটউটে “পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি একটি ঐতিহাসিক অর্জন” হিসেবে উপলব্ধি করত: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন, ডিসপ্লে প্রদর্শন এবং চুক্তির ২৪ বছর পূর্তি উপলক্ষে কেক কাটা। সকাল সাড়ে ১০টায় খাগড়াছড়ি পৌর এলাকায় মাস্ক বিতরণ ও কম্বল বিতরণ কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন। সকাল ১০টা ৫০মিনিটে খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটউটে আলোচনা সভা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। দুপুর ১টায় প্রীতি ভোজ, (খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের যৌথ আয়োজনে) অডিটোরিয়াম, খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন। সন্ধ্যায় খাসরাং হিল রিসোর্ট আলুটিলায় ফানুস ওড়ানো ও আতশবাজি প্রক্ষেপণ।
এছাড়া শহর জুড়ে মাইকিংসহ বিভিন্ন স্থানে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ব্যানার, ফেস্টুন ও আলোকসজ্জার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ঐতিহাসিক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২৪বছর পূর্তি নির্বিঘ্নে সম্পাদনের জন্য সর্ব্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন, জনাব কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, মাননীয় চেয়ারম্যান(প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা সম্পন্ন) ভারত প্রত্যাগত উপজাতীয় শরনার্থী প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসন এবং অভ্যন্তরীণ উদ্ভাস্তু নির্দিষ্টকরণ ও পুনর্বাসন সম্পর্কিত টাস্কফোর্স, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।
রিজিয়ন কর্তৃক পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২৪বছর পূর্তি উদযাপন জেলা ও জোন পর্যায়ে উদযাপন করা হচ্ছে।এ ব্যাপারে জোন আওতাধীন এলাকায় ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা, ভলিবল প্রীতিম্যাচসহ বিভিন্ন কর্মসূচি রয়েছে।জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নে অতীতের মতো এখনও নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন