সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৩ মাঘ ১৪২৮, ১৩ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

জনপ্রিয়তা কমায় কমলা হ্যারিসকে ত্যাগ করছেন কর্মীরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:২৩ পিএম | আপডেট : ৭:২৫ পিএম, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১

মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সাথে তার সাবেক মুখপাত্র সাইমন স্যান্ডার্স।


২০২৪ সালের নির্বাচনের আগে মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের জনপ্রিয়তা দ্রুত হ্রাস পেয়েছে। তার অফিসের অনেক কর্মী ‘হ্যারিস ঘনিষ্ঠ’ হিসাবে চিহ্নিত হওয়ার ভয়ে চাকরি ছাড়ছেন। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে ভাইস প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে বেশ কয়েকজন সিনিয়র কর্মী প্রস্থান করেছেন।

হ্যারিসের জনপ্রিয়তা হ্রাস প্রেসিডেন্টের উত্তরসূরি হিসাবে তার অবস্থানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে, যদি বাইডেন পুনরায় নির্বাচনে না দাঁড়ান। ফলে ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ওয়েবসাইট অ্যাক্সিওস অনুসারে, যদি ২০২৪ সালে আরও প্রতিশ্রুতিশীল প্রার্থী নিজেকে উপস্থাপন করেন তাহলে হ্যারিসের সাথে মেলামেশার কারণে তাদের অবস্থান কলঙ্কিত হবে, এই ভয় তার কর্মীকে অফিস ত্যাগ করতে পরিচালিত করেছে।

একটি সূত্র স্থায়ীভাবে ‘হ্যারিস ঘনিষ্ঠ’ হিসাবে চিহ্নিত হওয়ার উদ্বেগ হিসাবে কর্মীদের মধ্যে অনুভূতি উল্লেখ করেছে। মিস হ্যারিসের অফিসের একজন ডেমোক্র্যাট অ্যাক্সিওসকে বলেছেন যে, প্রস্থানের ফলে স্টাফ প্রধান টিনা ফ্লুরনয়ের উপর চাপ বাড়ছে। সম্প্রতি হ্যারিসকে ত্যাগ করা তার সবচেয়ে বিশিষ্ট কর্মীদের মধ্যে রয়েছেন, ভাইস প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র সাইমন স্যান্ডার্স এবং সবচেয়ে বিশিষ্ট পাবলিক ডিফেন্ডার এবং তার যোগাযোগ পরিচালক অ্যাশলে এতিয়েন। অন্য দুই সিনিয়র স্টাফ, প্রেস অপারেশনের ডিরেক্টর পিটার ভেলজ এবং হ্যারিসের অফিস অফ পাবলিক অ্যাঙ্গেজমেন্টের ডেপুটি ডিরেক্টর ভিন্স ইভান্সও তাদের পদ ত্যাগ করছেন বলে জানা গেছে।

সাইমন স্যান্ডার্সের বন্ধুরা জানিয়েছেন যে, তার প্রস্থান ভাইস প্রেসিডেন্টের যোগাযোগ কৌশলের সমালোচনার সাথে যুক্ত নয়। ৩১ বছর বয়সী স্যান্ডার্স তার বই ‘নো, ইউ শাট আপ’ প্রচার করার আশা করছেন যা মহামারীর মধ্যে প্রকাশিত হয়েছিল এবং যখন তিনি বাইডেনের নির্বাচনের প্রচারে ব্যস্ত ছিলেন।

নতুন প্রশাসনের এক বছরের মধ্যেই সিনিয়র কর্মীদের জন্য চলে যাওয়া অস্বাভাবিক নয়। অনেকেই বেসরকারী সেক্টরে ভাল বেতনের চাকরি পেয়ে পদত্যাগ করেন। কিন্তু হ্যারিসের অফিসটি কয়েক মাস ধরে কর্মহীন রয়েছে এবং স্টাফরা দিকনির্দেশের অভাব বোধ করেন বলে গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। এটি হ্যারিসের রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে উদ্বেগ বাড়িয়েছে এবং কিছু ডেমোক্র্যাট কৌশলবিদকে দলের বিকল্প প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের নিয়ে খোলাখুলি জল্পনা করতে পরিচালিত করেছে। সূত্র: দ্য টেলিগ্রাফ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন