ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইংলিশ চ্যানেলে রুশ নৌবহর অস্বস্তিতে ব্রিটেন

প্রকাশের সময় : ২৩ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের নৌসীমায় ঢুকে পড়েছে রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ। সিরিয়ায় যাওয়ার জন্য উত্তর সাগরের নিয়মিত গতিপথ বদলে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিচ্ছে রাশিয়ার কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ। ইংলিশ চ্যানেলে যুক্তরাজ্যের ভূখ- থেকে মাত্র এক মাইল দূরে রয়েছে রাশিয়ার কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ। এ পরিস্থিতিতে এক অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে পড়েছে ব্রিটেন। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের যুদ্ধপরিকল্পনার অন্যতম অংশ হচ্ছে সাগর দখলের পরিকল্পনা। সম্পূর্ণ পূর্বপরিকল্পনা ছাড়া ইংল্যান্ডের সীমানার মাত্র এক মাইল দূরে দিয়ে যুদ্ধজাহাজের পাড়ি দেওয়ার ঘটনাটি নজিরবিহীন বলেও খবরে উল্লেখ করা হয়। এদিকে ব্রিটিশ রয়্যাল নেভি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার সময় রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজগুলো থেকে কিছুটা দূরে রয়েছে যুক্তরাজ্যের নিরাপত্তা জাহাজগুলো। এভাবেই যুদ্ধজাহাজগুলোকে উত্তর সাগরের পথে এগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। খবরে বলা হয়, রাশিয়ার বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজের একটি বহর ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করছে। বিমানবাহী রুশ রণতরী এডমিরাল কুজনেটসভ এবং অন্যান্য জাহাজের এই বহরটি যাচ্ছে সিরিয়ার ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলে। গত শুক্রবার এটি ইংলিশ চ্যানেলে পৌঁছায়। একটি রুশ পত্রিকা কমসোমলস্কায়া প্রাভদা’র ভাষ্য অনুযায়ী, এই জাহাজ বহর ভূমধ্যসাগরে কোন প্রমোদভ্রমণে যাচ্ছে না। সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট আসাদের বিরোধী বিদ্রোহী এবং জঙ্গী গোষ্ঠীগুলোর অবস্থানে হামলা চালানোর জন্য এই যুদ্ধজাহাজের বহর ব্যবহার করা হবে। সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন, শুধু সিরিয়ার যুদ্ধে নিজেদের সমরশক্তি বাড়ানোই রাশিয়ার লক্ষ্য নয়। একইসঙ্গে রাশিয়া পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে এ রকম একটা বার্তা দিতে চাইছে যে, তারা যেখানে খুশি তাদের এই যুদ্ধজাহাজ পাঠাতে পারে। সেই ক্ষমতা তাদের আছে। খবরে বলা হয়, নৌবহরটি আন্তর্জাতিক নৌসীমা দিয়ে ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করছে, তারপরও এ নিয়ে অস্বস্তি তৈরি হয়েছে ব্রিটেনে। দুটি ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ দূর থেকে এই রুশ রণতরীকে অনুসরণ করছে। সিরিয়ার যুদ্ধে রাশিয়া যে ভূমিকা নিয়েছে, তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর সঙ্গে তাদের দ্বন্দ্ব চলছে। ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী মাইকেল ফ্যালন বলেছেন, ব্রিটেনকে নিরাপদ রাখার জন্য তারা এই রুশ যুদ্ধজাহাজের বহরের ওপর সতর্ক নজর রাখবেন। এডমিরাল কুজনেটসভকে অনুসরণের জন্য ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস ডানকান এবং এইচএমএস রিচমন্ড গত মঙ্গলবারই ইংলিশ চ্যানেলে পাঠানো হয়। এডমিরাল কুজনেটসভ হচ্ছে রুশ নৌবাহিনীর একমাত্র যুদ্ধবিমানবাহী রণতরী। ব্রিটেনের এ ধরনের কোনও বিমানবাহী রণতরী নেই। রাশিয়া কেন সিরিয়ার লড়াইয়ে এ রকম বিশাল যুদ্ধজাহাজ পাঠাচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অপর এক খবরে বলা হয়, ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেওয়া রাশিয়ার এই শক্তিশালী রণতরীবহরে রয়েছে ফ্রিগেট এইচএমএস রিচমন্ড টাইপ-৪৫ ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ, যা দিয়ে প্রায় ১৫০ মাইল দূর থেকে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে পারে রাশিয়ার নৌবাহিনী। রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ আন্তর্জাতিক জলসীমা লঙ্ঘন প্রসঙ্গে যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্যার মাইকেল ফালন বলেন, ন্যাটোর আরেকটি সদস্যরাষ্ট্রের যুদ্ধজাহাজের গতিবিধিতে স্পষ্ট নজরদারি করা হচ্ছে। রয়েল নেভির জাহাজ এবং বিমানগুলোকে এই কাজে লাগানো হয়েছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, এটা স্পষ্টত আমাদের প্রতিক্রিয়া দেখার জন্য করা হয়েছে। জোটের (ন্যাটো) কোনো দুর্বলতা আছে কি না তা পর্যবেক্ষণ করা যাবে এই সময়ে। এবং আমাদের খেয়াল রাখতে হবে যথাসম্ভব পরিমিত প্রতিক্রিয়া দেখানোর। বিবিসি, ইনডিপেন্ডেন্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন