মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮, ২১ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

মহানগর

বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের ভর্তির সুযোগ প্রসারিত করা উচিত: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০২১, ৮:১০ পিএম | আপডেট : ৮:১২ পিএম, ৫ ডিসেম্বর, ২০২১

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের ভর্তির সুযোগ সৃষ্টি ও অন্তর্ভুক্তিমূলক অ্যাপ্রোচ থাকা প্রয়োজন বলে মনে করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমান। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা গেলে সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আন্তঃযোগাযোগ স্থাপন হবে। এরফলে পরিবেশগত ও মনস্তাত্ত্বিক দিক থেকে ইতিবাচক পরিবর্তন সূচিত হবে। সমাজে উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের ব্যবধানও ঘুচবে। আন্তঃসম্পর্কের মিথস্ক্রিয়ায় উচ্চশিক্ষায় নতুন পরিবর্তনের ধারা তৈরি হবে। গত শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে শতবর্ষের আলোয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনুষ্ঠান উদযাপনের চতুর্থ দিনে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ড. মশিউর রহমান বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাজনৈতিক বৈশিষ্ট্যমন্ডিত হবার মূল কারণ জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টি। সেই জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টি করার পর একে আদর্শ শিক্ষায়তনে পরিণত করা আবশ্যক। বিজ্ঞান মনস্ক একটি আধুনিক গবেষণা নির্ভর বিদ্যাপীঠ তৈরি করতে হবে এই পাদপীঠকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বহু অ্যাপ্রোচ আমি মনে করি আধুনিক ও অগ্রসর। বিভিন্ন জনের সমালোচনার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে বলবো-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অন্তর্ভুক্তিমূলক হতে হয়তো আরও কিছুদিন সময় লাগবে। কখনো কখনো বলা হয় এখানে মাদরাসা শিক্ষার্থীরা সুযোগ পায় বেশি। এটি ঠিক মাদরাসা শিক্ষার্থীদের অন্তর্ভুক্তিমূলক অ্যাপ্রোচ এখানে আছে। এটি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈশিষ্ট্য হওয়া উচিত। যেটি নাই সেটি হচ্ছে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের ইনক্লুসিভ অ্যাপ্রোচে নিয়ে আসা। এই পদ্ধতিটি এখানে তৈরি করতে হবে। কারণ আমাদের উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানরা বিদেশগামী হচ্ছে। এটি আমাদের জন্য ভয়ানক ক্ষতির দিক। এইসব মেধাবী অংশকে সংস্কৃতি চর্চা এবং দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করার দায়বদ্ধতা আমাদের আছে। এর দায় শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একা নিতে পারে না। সুতরাং যেভাবে মাদরাসা শিক্ষাকে অন্তর্ভুক্তিমূলক করা হয়েছে, একইভাবে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করবার আগামী দিনের যে চ্যালেঞ্জ তার মধ্যদিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অবশ্যই বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, উৎকর্ষতায়, শিল্প-সাহিত্যে অনন্য হয়ে উঠবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন