শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আফগানিস্তানে মানবিক বিপর্যয় বাড়ছে

পাকিস্তানে ওআইসি’র বৈঠক ১৯ ডিসেম্বর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০৮ এএম

বিদেশী সাহায্য বন্ধ ও তহবিল স্থগিতের কারণে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়ের মুখোমুখি আফগানিস্তানের জনগণ। এ কারণে পাকিস্তান আগামী ১৯ ডিসেম্বর ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের কাউন্সিলের একটি অধিবেশনের আয়োজন করেছে। সেখানে আফগানিস্তানে মানবিক সঙ্কট এবং অর্থনৈতিক সঙ্কট এড়াতে জরুরি সহায়তা এবং সংস্থান সংগ্রহের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরা হবে।

তালেবানরা ক্ষমতায় আসার তিন মাসের কিছু বেশি সময়ের মধ্যে, পরিস্থিতি আফগানিস্তানের জন্য জটিল হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। ইসলামিক স্টেটের ‘খোরাসান’ শাখার একের পর এক রক্তক্ষয়ী হামলার মাধ্যমে তাদের শাসন প্রতিষ্ঠার তালেবানের প্রচেষ্টা ধাক্কা খেয়েছে। কিন্তু কাবুলের নতুন শাসনের সাথে যুক্ত হতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের অনিচ্ছার কারণে আরও বড় চ্যালেঞ্জ তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে পশ্চিমাদের সমস্ত তহবিল হিমায়িত করার সাথে সাথে বিদেশী সাহায্যে নির্মিত আফগান অর্থনীতি ধসে পড়ছে। দুই দশকের রক্তক্ষয়ী সংঘাতের সাহসিকতা এবং বেঁচে থাকার পর, আফগানিস্তানের জনগণ এখন পঙ্গুত্বপূর্ণ দারিদ্র্য এবং তীব্র খাদ্য সংকটের একটি নতুন পর্বের মুখোমুখি। তাদের জাতি আবার বৃহত্তর বৈশ্বিক শক্তির মধ্যে স্বার্থের দ্ব›েদ্ব সঙ্কটে পড়েছে, যার শেষ দেখা যাচ্ছে না বলে মনে হচ্ছে। আফগানিস্তানের ৩ কোটি ৮০ লাখ জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি আসন্ন মাসগুলোতে চরম আর্থিক সঙ্কটের মুখোমুখি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার এবং তালেবানের পরবর্তী ক্ষমতা দখলের চার মাসে দেশটি একটি বড় মানবিক সঙ্কটের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। দেশটির অর্থনীতি আগে বিলিয়ন বিলিয়ন আন্তর্জাতিক সাহায্য দ্বারা সমর্থিত ছিল, যা হিমায়িত করা হয়েছে। বিদেশী সাহায্য আফগানিস্তানের জিডিপির ৪০ শতাংশ প্রতিনিধিত্ব করত এবং এর বাজেটের ৮০ শতাংশ অর্থায়ন করত।

আফগানিস্তানে মুদ্রাস্ফীতি এবং বেকারত্ব উভয়ই বেড়েছে, এবং তালেবান ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশটির ব্যাংকিং খাতসহ সবই ধসে পড়েছে। আর্থিক সঙ্কট আরও বেড়ে যায় যখন ওয়াশিংটন কাবুলের জন্য তার রিজার্ভে থাকা প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলারের সম্পদ জব্দ করে এবং বিশ্বব্যাংক এবং আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল আফগানিস্তানের তহবিলের অ্যাক্সেস বন্ধ করার পরে আরও অবনতি হয়। সম্প্রতি প্রকাশিত আফগানিস্তানের উপর জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচির আর্থ-সামাজিক আউটলুক ২০২১-২২ প্রতিবেদন অনুসারে, দেশটি এক বছরের মধ্যে জিডিপির প্রায় ২০ শতাংশের অর্থনৈতিক সঙ্কোচনের শিকার হতে যাচ্ছে। পরবর্তী বছরগুলোতে এই পতন আরও ৩০ শতাংশে পৌঁছবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। প্রতিবেদনে আরও সতর্ক করা হয়েছে যে, আফগান মহিলাদের কাজ থেকে বঞ্চিত করার ফলে জিআরপি আরও পাঁচ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে। তাছাড়া ভোক্তাদের কর্মকান্ডও কমে গেছে। যে মহিলারা আর কাজ করেন না তারা আর ততটা কিনবেন না, যার ফলে প্রতি বছর ৫০ কোটি ডলার পর্যন্ত ক্ষতি হতে পারে। ইউএনএইচসিআর-এর মুখপাত্র বাবর বেলুচের মতে, আফগানিস্তানের ৩৪টি প্রদেশের মানুষ যুদ্ধ ও খরায় ক্ষতিগ্রস্ত ও বাস্তুচ্যুত। তিনি যোগ করেছেন যে, বর্তমানে ৩৫ লাখ মানুষ সশস্ত্র সংঘাত এবং যুদ্ধের কারণে অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছে, এবং তাদের মধ্যে ১৫ লাখ মানুষ দেশে খরার কারণে বাস্তুচ্যুত হয়েছে। দেশের ক্ষুধার পরিস্থিতি সম্পর্কে বেলুচ বলেন যে, ১৫ আগস্টের আগে প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ মানবিক সহায়তার উপর নির্ভরশীল ছিল এবং বর্তমানে দেশের ২ কোটি ৪০ লাখ মানুষের জন্য মানবিক সংস্থাগুলোর সহায়তা প্রয়োজন। তাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষই রোগে ও খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

এদিকে, শনিবার ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের কাউন্সিল আয়োজনের কথা জানিয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি বলেছেন, ‘যদি আমরা সময়মতো মনোযোগ না দিই, তাহলে আফগানিস্তানের জনসংখ্যার অর্ধেক বা ২ কোটি ২৮ লাখ মানুষ খাদ্য ঘাটতির সম্মুখীন হতে পারে এবং ৩২ লাখ শিশু অপুষ্টির সম্মুখীন হতে পারে। এটি আমাদের এবং বিশ্বের বোঝা উচিত।’ পরিস্থিতির গুরুত্ব তুলে ধরে তিনি বলেন, পাকিস্তান একটি প্রচেষ্টা করেছে এবং আন্তর্জাতিক ইভেন্টের আয়োজন করার জন্য এগিয়ে গেছে যখন উপলব্ধি করা হয়েছে যে, যদি সময়মতো সুরাহা না করা হয়, তবে পরিস্থিতি ‘আফগানিস্তান, তার প্রতিবেশীদের পাশাপাশি সমগ্র অঞ্চলের’ জন্য মারাত্মক পরিণতি ঘটাবে।

কুরেশি জোর দিয়ে বলেন, আফগানিস্তান অর্থনৈতিক পতনের মুখোমুখি হতে পারে যদি তার জরুরী সম্পদ বর্ধমান চাহিদা মোকাবেলা করার জন্য মুক্তি না দেয়া হয়। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, আফগানিস্তান পরিস্থিতি নিয়ে ওআইসি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এমন একটি অধিবেশন ৪১ বছর পর অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে ১৯৮০ সালে প্রথম অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিদেশী বিষয়ক উচ্চ প্রতিনিধি এবং বিশ্বব্যাংকের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে যা পুরো প্রক্রিয়াটিতে সহায়তা করতে পারে। জার্মানি, জাপান, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোকে ‘আন্তর্জাতিক ঐকমত্য গড়ে তোলার’ লক্ষ্যে আমন্ত্রণ জানানো হবে। সূত্র : ডন, ট্রিবিউন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন