মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮, ২১ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সুগন্ধা নদী ভাঙনে বিলীন হচ্ছে নলছিটির সরই গ্রাম

নলছিটি (ঝালকাঠি) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ১:১৮ পিএম

নদী পাড়ের বাসিন্দাদের কাছে এক আতঙ্কের নাম ভাঙন। ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার কুলকাঠি ইউনিয়নের সরই গ্রামটির বিস্তীর্ণ এলাকা সাড়া বছরই নদীভাঙনের শিকার হয়।

এতে বসতভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে শত শত পরিবার। অর্থবিত্তরা অন্যত্র জমি কিনে নিজ ভিটা ত্যাগ করছে আর নিম্মবিত্তরা সব হারিয়ে হচ্ছে নিঃস্ব। রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মাদরাসাসহ সরই গ্রামের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে। প্রতি বছর বর্ষায় নদীভাঙন অব্যাহত থাকলেও শীতকালেও ভাঙছে নলছিটির সরই গ্রামের একটি অংশ। এ বছর তা ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। মানচিত্র থেকে প্রতিদিনই কমছে সরই গ্রামের সীমানা।
এ বছর জুন মাস থেকেই ঝালকাঠি জেলার সুগন্ধা বিষখালী এবং হলতা নদীর ভাঙন বিগত বছরের তুলনায় অনেকটা বেশি। সুগন্ধা নদীর প্রবেশমুখ বিষখালীর তীরে থাকা একটি সাইক্লোন সেল্টার চলতি বছরের ২৬ আগষ্ট নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।
এ জেলার নদীর পাড়ের বাসিন্দারাও দিন দিন নদীভাঙনে নিঃস্ব হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, বরিশাল-খুলনা নৌ রুটের ঝালকাঠি অংশে এলপি গ্যাস বহনকারী জাহাজের ঢেউয়ের চাপে শাখা নদীগুলোও ভেঙে নিচ্ছে ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ফসলের মাঠ।
বিশেষজ্ঞদের মতে, অপরিকল্পিতভাবে নদী খনন বা ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন এবং দ্রুতগতির নৌযানের ঢেউয়ের কারণে ক্ষতির শিকার হয় নদীর তীর।
কুলকাঠি ইউনিয়নের সরই গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত কলেজ শিক্ষক আব্দুল জব্বার তালুকদার বলেন, প্রতিবছর সুগন্ধা নদীর দক্ষিন পাড় ভাঙতেছে। সরই এলাকার নদীর পাড় থেকে গত কয়েক বছরে প্রায় ৬০টি পরিবার স্থানান্তরিত হয়েছে।
একই এলাকার নুর মোহাম্মদ বলেন, সরই গ্রামের ভাঙ্গনকুলের অনেকে নিজেদের সবটুকু ভিটে মাটি হরিয়ে রাস্তার পাশে সরকারী জমিতে ঘর তুলে বসবাস করতেছে। আমার নিজের যতটুকু জমি আছে তা আগামী ১ থেকে ২ বছরের মধ্যে নদীগর্ভে চলে যাবে।
অবসরপ্রাপ্ত তহসীলদার হাজী আব্দুল হক তালুকদার বলেন, যে জায়গাটায় আমি অনেক বসতঘর দেখেছি সেখান থেকে এখন লঞ্চ চলচল করে। নদী এখন আমার বাড়ির নিকটে চলে আসছে। আমি হয়তো ভবিষ্যতে নিজ ভিটায় থাকতে পারবো না।
ভুক্তভূগী শহিদুল ইসলাম বলেন, আমার জন্মস্থানের ঘরটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ৫০ বছরেও এই স্থানটি

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন