বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দেশের পুঁজিবাজার : অর্থনীতিতে অবদান বাড়ছে

১৩ কোটি থেকে সাড়ে ৫ লাখ কোটি টাকা : ৯ প্রতিষ্ঠান থেকে বাজারে ৬১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০৫ এএম

মার্কিন কূটনৈতিক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জারের তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উন্নয়নের রোল মডেলে বাংলাদেশ। দেশের সার্বিক অর্থনীতি ত্বরান্বিত করতে ৪৫ বছর ধরে বিশেষ অবদান রেখে চলেছে পুঁজিবাজার। স্বাধীনতার পাঁচ বছর পর মাত্র ১৩ কোটি টাকায় শুরু হওয়া এ বাজারের আকার বর্তমানে দাঁড়িয়েছে সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকায় পৌঁছেছে।

দিন যত যাচ্ছে দেশের অর্থনীতিতে পুঁজিবাজারের অবদান তত বাড়ছে। দেশীয় প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানও এখন তালিকাভুক্ত হচ্ছে এখানে। দেশের সাধারণ মানুষও উন্নয়নের মালিকানায় অংশীদার হচ্ছেন।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্য অনুযায়ী, দেশ স্বাধীন হওয়ার পাঁচ বছর পর ১৯৭৬ সালে প্রথমবারের মতো ডিএসই’র কার্যক্রম শুরু হয়। ওই সময় তালিকাভুক্ত মাত্র নয়টি প্রতিষ্ঠানের বাজার মূলধন ছিল ১৩ কোটি টাকা। গত ৪৫ বছরে এ বাজারে মোট ৬১৫টি প্রতিষ্ঠান অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

বাজারটিতে বেক্সিমকো লিমিটেড, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস ও ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজের মতো বড় বড় প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্ত হয়েছে। দেশীয় প্রতিষ্ঠানের দেখাদেখি গ্রামীণফোন, রবি আজিয়াটা ও ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোব্যাকোর মতো বিদেশি প্রতিষ্ঠানও তালিকাভুক্ত হয়েছে। সবমিলিয়ে দেশি-বিদেশি ৩৭৫টির বেশি প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। এছাড়া ৩৭টি মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ২২২টি ট্রেজারি বন্ড ও দুটি করপোরেট বন্ড এবং আটটি ডিভেঞ্চারসহ মোট ৬১৫টি প্রতিষ্ঠান এ বাজারের তালিকাভুক্ত। ফলে ডিএসই’র বাজার মূলধন বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি টাকায়। এতে একদিকে দেশের সার্বিক অর্থনীতিতে মানুষের অংশগ্রহণ যেমন বাড়ছে, তেমনি লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হচ্ছে। অর্থনীতি চাঙ্গা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের সুনাম বাড়ছে।

পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জন করে বাংলাদেশ। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটিতে তেমন কোনো অবকাঠামো ছিল না। স্বাধীনতার পাঁচ বছর পর নয়টি প্রতিষ্ঠানের তালিকাভুক্তির মাধ্যমে ১৯৭৬ সালের ১৬ আগস্ট যাত্রা শুরু হয় পুঁজিবাজারের। তবে সর্বপ্রথম ১৯৫৪ সালের ২৪ এপ্রিল পূর্ব পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ নামে যাত্রা শুরু হয় প্রতিষ্ঠানটির। এরপর নাম পরিবর্তন করে ১৯৬৪ সালে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) নামে পথচলা শুরু করে এটি।

১৯৭৬ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত বাজারটির আকার ছিল খুবই ছোট। ১৯৯০ এর পর দেশে কলকারখানা চালু হতে থাকে। উদ্যোক্তাদের প্রয়োজন হয় অর্থের। তারা ব্যাংক ঋণের বিপরীতে বিনা সুদে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে ব্যবসা স¤প্রসারণ ও পরিচালনা করতে থাকেন। এরপর বাজারটি সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণ করতে ১৯৯৩ সালে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন গঠন করা হয়। যা পরবর্তীতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) নামে পরিচিতি পায়।

শেয়ার হোল্ডারদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য গঠিত কমিশনের দুই বছর পর ১৯৯৫ সালে প্রতিযোগিতামূলক পুঁজিবাজার গঠনের লক্ষ্যে চট্টগ্রামকেন্দ্রিক আরও একটি পুঁজিবাজার গঠন করা হয়। যার নাম রাখা হয় চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)।

এরপর মানুষ বাজারমুখী হতে শুরু করে। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ১৯৯৬ সালের পুঁজিবাজারের ধস। কারসাজি চক্রের সঙ্গে জড়িতদের ধরতে শুরু হয় তদন্ত। বেশকিছু সংস্কারও আনা হয়। ১৯৯৮ সালের ১০ আগস্ট চালু হয় অটোমেটিক ট্রেডিং। কাগজের শেয়ার থেকে ডিমেট শেয়ারে রূপান্তর করতে ২০০৪ সালে ২৪ জানুয়ারি সেন্ট্রাল ডিপোজিটরি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল) গঠন করা হয়। ওই বছরই যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি।

বিশ্বের অন্যান্য পুঁজিবাজারের মতো বৈচিত্র্য আনতে ২০০৫ সালের ১ জানুয়ারি সরকারি বন্ড মার্কেট চালু করা হয়। ২০০৬ সালের ১২ এপ্রিল সরাসরি তালিকাভুক্তির নিয়মও চালু হয় পুঁজিবাজারে।
এরপর তত্তাবধায়ক সরকার রাষ্ট্রক্ষমতায় আসে। ওই সময় অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়। আবারও চাঙা হতে শুরু করে বাজার। এটি এতই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে যে ২০১০ সালে নতুন করে আইপিও বুক বিল্ডিং পদ্ধতি চালু করা হয়। এরপর আরেক দফা ধস নামে পুঁজিবাজারে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ড. খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। বেশকিছু সংস্কারের কথাও বলা হয়। কারসাজি চক্রের বিচার করতে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। এখন পর্যন্ত ওই ট্রাইব্যুনালে ২৫টির মতো মামলার বিচার হয়েছে।

অন্যদিকে, তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশের আলোকে ২০১৩ সালের ২৮ জানুয়ারি ডিএসইতে ডিএসইএক্স ও ডিএস-৩০ সূচক যোগ করা হয়। পুঁজিবাজার আরও জনপ্রিয় করতে ২০১৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি বাংলা ওয়েবসাইট চালু হয়। একই বছরের ২১ নভেম্বর শুরু হয় ডিমিউচ্যুয়ালাইজেশন।

২০১৪ সালের ২০ জানুয়ারি ডিএসইতে শরীয়াহ সূচকের যাত্রা শুরু হয়। লেনদেন আরও সহজ করতে ২০১৫ সালে ডিএসই মোবাইল অ্যাপ চালু করে। এর মাধ্যমে ঘরে বসেই লেনদেন করার সুযোগ পার বিনিয়োগকারীরা।
বিশ্বপুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে ২০১৫ সালে আইএসও সদস্যভুক্ত করে। এরপর টানা তিন বছর টালমাটাল থাকে পুঁজিবাজার। সবচেয়ে বড় পরিবর্তন আসে ২০২০ সালের মে মাসে বিএসইসি’র চেয়ারম্যান হিসেবে প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের দায়িত্ব পাওয়ার পর। দীর্ঘদিন পর আইনের শাসন এবং জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করায় শেয়ারাবাজারের প্রতি ক্রমান্বয়ে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরতে শুরু করে। যা করোনার অভিঘাত কাটিয়ে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতেও সহায়ক ভ‚মিকা পালন করছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালের ডিসেম্বর এবং ২০২১ সালের জানুয়ারিতে বিশ্বের সেরা উত্থানের তালিকায় উঠে আসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ। এই সময়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ডিএসই’র ইতিহাসে সাড়ে ১১ বছরের মধ্যে প্রথম ৭ হাজার পয়েন্ট অতিক্রম করে। এমনকি বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে ভাটা। অনিয়ম, দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনায় আর্থিকখাতের যখন নাজুক অবস্থা তখন একমাত্র আশার আলো শেয়ারবাজার। বর্তমান কমিশন, বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভলপমেন্ট অথরিটিসহ (বিডা) সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারকে ব্র্যান্ডিং করতে রোড শোর আয়োজন করে। ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড, আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের সম্ভাবনা তুলে ধরছে। এ সব কার্যক্রমের ফলে করোনার প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও দেশের শেয়ারবাজারে মানুষের আস্থা ফিরেছে। বিনিয়োগ বাড়ছে।

বর্তমানে দেশের দুটি পুঁজিবাজারে ২০ লাখ ৩২ হাজার ৩২৬ বেনিফিশিয়ারি ওনার্স ব্যবসা করছেন। এর সঙ্গে পাঁচ শতাধিক ব্রোকার হাউজের কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত। এছাড়াও যুক্ত আছেন তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। ফলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এ বাজারের সঙ্গে দুই থেকে তিন কোটি মানুষের ভাগ্য জড়িত।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত মঙ্গলবার পর্যন্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের মূলধন দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকায়। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে যা ছিল মাত্র ১৩ কোটি টাকা।
ডিএসই পরিচালক হন শাকিল রিজভী বলেন, দেশের পুঁজিবাজার এগিয়ে চলছে। অর্থনীতিতে বিশাল অবদান রাখছে। দেশ স্বাধীন হয়েছে বলেই এটি সম্ভব হয়েছে। স্বাধীন না হলে তো স্বাধীনভাবে স্টক এক্সচেঞ্জ চলতে পারত না, উদ্যোক্তারাও অর্থ সংগ্রহের উৎস খুঁজে পেতেন না।

বিজয়ের ৫০ বছরে এসে পুঁজিবাজারের অর্জন কী? জানতে চাইলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কমিশনার ড. শেখ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, অনেক বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে পুঁজিবাজার এখন একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানে রূপ নিয়েছে। এটি যে দেশের সার্বিক অর্থনীতির মূল উৎস, তা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। উদ্যোক্তারা এখানে এসে সহজে যাতে অর্থ উত্তোলন করতে পারেন সেই লক্ষ্যে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা দেয়া হচ্ছে।

সাবেক তত্তাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, স্বাধীনতার এত বছর পরও পুঁজিবাজার তার সঠিক আচরণ করতে পারছে না। দেশের অর্থনীতিতে আরও বেশি পুঁজিবাজারের অবদান দরকার ছিল। কিন্তু ব্যাংক ঋণ নেয়া সহজ হওয়ায় এ বাজারমুখী হচ্ছেন না উদ্যোক্তারা। ফলে এখনও কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি দেশের পুঁজিবাজার। পুঁজিবাজারের উন্নয়নে ব্যাংক থেকে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ নেয়ার প্রক্রিয়া বন্ধ করতে হবে বলে মত দেন এ অর্থনীতিবিদ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ২:০৯ এএম says : 0
যেহেতু 1/1/2022ইং সালে দেশ সাধীন হবে,এবং রাষ্ট্রপতি পদ্ধতি হতেছে,এবং 31/12/2021ইংতে দুরনিতি বাজ দলীয় আমলাতান্ত্রিক চৌরাচার দলীয় সংসদীয় পদ্ধতি বাতিল হবে,আমরা জনগণ তাতে অত্যন্ত খুশি,রাষ্ট্রপতি পদ্ধতি হলে পুঁজি বাজার ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন হবে,এই শয়তান দলীয় চৌরাচার আমলাতান্ত্রিক সংসদীয় পদ্ধতি দেশে লুঠ পাঠ করে খাইতে,মন্ত্রী এম পি মিলিয়ন বিলিয়ন টাকা লুঠ পাট করেছে,সামনে যদি আবার এই বদমাইশ সংসদীয় চৌরাচার দলীয় কাচরা পদ্ধতি থাকে,তবে মনে রাখবেন এই দেশ পাঁচশত লোকের হাতে চলে যাবে,এই টি বাস্তব।
Total Reply(0)
Krishno Sutradhar ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪২ এএম says : 0
সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে। উন্নয়নকাজ যেন কোনোভাবেই বাধাগ্রস্ত না হয়, সেদিকে সবার সতর্ক থাকতে হবে।
Total Reply(0)
মোহাম্মদ রমিজ ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৩ এএম says : 0
জাতীয় অর্থনীতিতে দেশের পুঁজিবাজার এখনো ২০ শতাংশ অবদান রাখতে পারেনি। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে পুঁজিবাজারকে কাজে লাগিয়ে জিডিপিতে পুঁজিবাজারের অবদান বাড়াতে হবে।
Total Reply(0)
সুশান্ত কুমার্ ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৪ এএম says : 0
ক্ষ্যে পৌঁছাতে পারলে পুঁজিবাজারকে নিয়ে কারও কোনো কিছু বলার থাকবে না।
Total Reply(0)
মামুন রশিদ চৌধুরী ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৫ এএম says : 0
পুজিবাজার অবদান রাখলে পুঁজিবাজারের কোনো দোষ থাকবে না। কমিশনের সদস্যদের নিরলসভাবে সেই উদ্দেশ্যে কাজ করে যেতে হবে।
Total Reply(0)
তরিকুল ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৫ এএম says : 0
যদি আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারি তবে ক্যাপিটাল মার্কেটকে নিয়ে কোনো কথা বলার কিছু থাকবে না এবং কোনো দোষ থাকবে না। কিন্তু ব্যাকিং সেক্টরের ক্ষেত্রে সে সুযোগ কম। আমাদের অনেক কাজ করতে হবে এবং অনেক কষ্ট করতে হবে। করোনার মধ্যেও যে কাজ করে যাচ্ছি তার ফলও আমরা পাচ্ছি
Total Reply(0)
সেই ডায়েরী ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৬ এএম says : 0
বাংলাদেশের ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট এ পুঁজিবাজারের বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করা উচিত।
Total Reply(0)
মামুন আহাম্মাদ ১৭ ডিসেম্বর, ২০২১, ৭:৪৭ এএম says : 0
দেশের অর্থনীতিকে আরও এগিয়ে নিতে অনেক কিছু করার আছে। আমি আনন্দিত যে, বাংলাদেশের মতো দেশে দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ আছে। যেহেতু ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই কাজ করে আসছে তাই দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন, পরবর্তী সময়ে সিএসইর যাত্রা হয়েছে এবং তুলনামূলকভাবে নবীন স্টক এক্সচেঞ্জ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন