বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ইউপি নির্বাচনের চতুর্থ ধাপ : বাড়ছে আতঙ্ক

আচরণবিধি লঙ্ঘন করে এমপির প্রচারণা

ইয়াছিন রানা | প্রকাশের সময় : ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

ধাপে ধাপে চলছে স্থানীয় সরকারের সবচেয়ে বড় আয়োজন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন। আর এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রতিটি ধাপেই ঘটছে সহিংসতা ও প্রাণহানির ঘটনা। চতুর্থ ধাপেও নির্বাচনকে ঘিরে বাড়ছে আতঙ্ক। এ নিয়ে সাবধানতা অবলম্বন করতে প্রশাসনকে নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।
আওয়ামী লীগের সূত্র জানায়, দলের তৃণমূল পর্যায়ের প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে বেশিরভাগ সহিংসতা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। অনেক ঘটনায় স্থানীয় এমপিদের সরাসরি মদদ থাকছে। এ নিয়ে দলের সাংগঠনিক সম্পাদকরা বিস্তারিত রিপোর্টও তৈরী করছেন যা পরবর্তীতে দলের কার্যনির্বাহী কমিটিতে উপস্থাপন করা হবে। যারা দলের বিরুদ্ধে কাজ করবে, গ্রæপিং করবে তাদের ভবিষ্যতে মনোনয়ন না দেবার সুপারিশ করা হবে।

গত কয়েকদিন ধরে পাবনায় একজন চেয়ারম্যান (স্বতন্ত্র) প্রার্থী নিহতসহ বিভিন্ন এলাকা হামলা, ভাঙচুর ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নড়াইলের লোহাগড়ার শালনগর ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সদস্য প্রার্থী মো. হামিদ ফকিরের (৪৫) ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলার শিকার হামিদ শালনগর ইউপির ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী। তিনি নওখোলা গ্রামের বাসিন্দা। তাকে গুরুতর অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামিদ ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য। হামলায় তার বাম হাতের কবজি ও কনুই থেকে ভেঙে গেছে। হাতে, পায়ে ও পিঠে আঘাত করা হয়েছে। একই দিনে নেত্রকোনায় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, চট্টগ্রামের পটিয়ায় নির্বাচনি ক্যাম্পে হামলা-ভাঙচুর এবং মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানে এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনি প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর আগে গত ১৩ ডিসেম্বর পাবনা জেলা সদরের চর তারাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থকদের সংঘর্ষে একজন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। নিহত নাসিম শেখের (২৫) বাড়ি ইউনিয়নের টাটিপাড়া গ্রামে।

এদিকে নির্বাচনী আচরণবিধি কোনও তোয়াক্কাই করছেন না ঝিনাইদহ-১ আসনের (শৈলক‚পা) সংসদ সদস্য আব্দুল হাই। প্রায় প্রতিদিনই তিনি হাজার হাজার মানুষ নিয়ে ইউনিয়ন নির্বাচনের সভা-সমাবেশ করে বেড়াচ্ছেন এবং প্রকাশ্যে ভোট চাচ্ছেন। রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরমও জমা দিয়েছেন এমপি আব্দুল হাই। আগামী ৫ জানুয়ারি এই ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
নির্বাচন কমিশন আইন অনুযায়ী, স্থানীয় নির্বাচনে জনপ্রতিনিধিসহ সরকারের সুবিধাভোগী কেউই নির্বাচনী কোনও প্রচার-প্রচারণা ও কর্মকান্ডে অংশ নিতে পারবেন না। গত চার ধাপের নির্বাচনে বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য স্থানীয় ভোটে জড়িয়ে পড়ায় তাদেরকে এলাকা ছাড়া করেছে নির্বাচন কমিশন

শৈলক‚পায় শিডিউল ঘোষণার পরই নৌকার প্রার্থীদের পক্ষে প্রকাশ্যে ভোটে নেমে পড়েন আব্দুল হাই। গত ৯ ডিসেম্বর এই এমপি নিজ হাতে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছে নৌকার প্রার্থীদের মনোনয়পত্র জমা দেন। এভাবে নির্বাচনী আচরণবিধি ভেঙ্গে প্রকাশ্যে নৌকার প্রার্থীদের পক্ষ নেয়ায় ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়।
প্রতীক বরাদ্দের আগেই নৌকার প্রার্থীদের পক্ষে প্রকাশ্যে ভোটে নেমে পড়েন আব্দুল হাই। আবাইপুর, মির্জাপুর, দুধসর, দিগনগর ইউনিয়নে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার নামে হাজার হাজার মানুষের জমায়েত ঘটিয়ে প্রকাশ্যে নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন আব্দুল হাই।

আবাইপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হেলাল উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, আমাদের এখানে সোববার বিশাল সমাবেশ করে প্রকাশ্যে নৌকা মার্কার পক্ষে ভোট চেয়েছে সংসদ সদস্য আব্দুল হাই। বর্ধিত সভার কথা বলা হলেও আসলে তিনি বিভিন্ন ইউনিয়নে নির্বাচনী জনসভা করে বেড়াচ্ছেন।
এ বিষয়ে ঝিনাইদহ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আ. ছালেককে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেছেন, যে ধরনের হত্যা পূর্বপরিকল্পিত নয় সেগুলোকে বন্ধ করা খুব কঠিন কাজ। এ রকম গুপ্ত হত্যা নিয়ন্ত্রণ করা সত্যিই কঠিন। যারা নির্বাচনের দায়িত্বে নিয়োজিত তাদেরকে আমরা সবসময়ই নিদের্শনা দিয়ে থাকি।

এদিকে আগের তিনটি ধাপের তুলনায় এই ধাপে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় বিজয়ী হওয়ার সংখ্যা কিছুটা কমেছে। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় চেয়ারম্যান পদে ৪৮ জন জয়ী হয়েছেন। এর আগে প্রথম ধাপে ৭১ জন, দ্বিতীয় ধাপে ৭৭ জন ও তৃতীয় ধাপে ১০০ জন বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। চতুর্থ ধাপে ৪৮ চেয়ারম্যানসহ ২৯৫ জনপ্রতিনিধি ভোটের আগেই জয়ী হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১১২ সংরক্ষিত সদস্য ও ১৩৫ জন সাধারণ সদস্য রয়েছেন। চেয়ারম্যান পদে বিনা ভোটে বিজয়ীদের মধ্যে একজন বাদে সবাই আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী। এ ধাপের নির্বাচনে চূড়ান্ত প্রতিদ্ব›িদ্বতায় রয়েছেন চেয়ারম্যান পদে ৩ হাজার ৮১৪ জন, সংরক্ষিত সদস্য ৯ হাজার ৫১৩ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩০ হাজার ১০৬ জন। আগামী ২৬ ডিসেম্বর এ ধাপের ভোটগ্রহণ করা হবে। আগামী ২৩ ডিসেম্বর এই ধাপে দেশের ৮৪০টি ইউপিতে ভোট নেওয়ার কথা থাকলেও এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা থাকায় নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভোট নেওয়া হবে ২৬ ডিসেম্বর।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
md joshim khan ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ৫:৩৯ পিএম says : 0
পটুয়াখালী জেলার ইডবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন