শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

মহানগর

অপরিকল্পিত ঢাকাকে আধুনিকে রূপান্তরিত করতে হবে

ডিএনসিসি মেয়র

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ ডিসেম্বর, ২০২১, ১২:০১ এএম

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, ইট পাথরে বন্দি নগরবাসীর সুস্বাস্থ্যের জন্য গণপরিসরের গুরুত্ব বিবেচনা করেই মিরপুরের জল্লাদখানা বধ্যভূমি সংলগ্ন পরিত্যক্ত স্থানে করা হলো শিশুবান্ধব গণপরিসর। অপরিকল্পিত ঢাকাকে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি সুস্থ, সচল ও আধুনিক ঢাকায় রূপান্তরিত করতে হবে। গতকাল রোববার সকালে ডিএনসিসির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মিরপুর-১০ এলাকায় জল্লাদখানা বধ্যভূমি সংলগ্ন স্থানে শিশুবান্ধব গণপরিসর-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

ডিএনসিসি মেয়র স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অভিন্ন। তাই বাংলাদেশকে জানতে হলে বঙ্গবন্ধুকেই জানতে হবে। নতুন প্রজন্মকেও মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস সঠিকভাবে জানাতে হবে, তাদেরকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। মহান স্বাধীনতা ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী এবং মুজিববর্ষেই মিরপুরের জল্লাদখানা সংলগ্ন স্থানটিকে নারী-শিশু, বয়স্ক, প্রতিবন্ধীসহ সকলের জন্য নিরাপদ, প্রবেশযোগ্য, সুস্থ ও মনোরম গণপরিসরে রূপান্তরিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, গণপরিসরটিতে শিশুদের বিনোদনের জন্য বিভিন্ন ধরণের উপকরণ, ব্যায়াম ও হাঁটার সুব্যবস্থা, একটি উন্মুক্ত মঞ্চ, বসার স্থান, পাবলিক টয়লেটসহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে। নগরবাসীর জন্য আরও তিনটি স্থান যথাক্রমে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে কমিউনিটি সেন্টার সংলগ্ন সড়ক, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে মিরপুর-১১ এলাকায় ২১ নম্বর সড়কের একটি অংশ এবং ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে মোহাম্মদপুর এলাকায় আওরঙ্গজেব রোডের ফুটপাতকে গণপরিসরে রূপান্তরিত করা হবে। রাজউক অনুমোদিত নকশা মোতাবেক পার্ক ও খেলার মাঠ যথাযথভাবে সংরক্ষণ না করলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মেয়র আরও বলেন, ডিএনসিসির উদ্যোগে জনগণের সহায়তায় খাল উদ্ধার ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সহযোগীতায় খালগুলোর সীমানা নির্ধারণ করা হবে।

স্থানীয় কাউন্সিলর কাজী জহিরুল ইসলাম মানিক-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জোবায়দুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ আমিরুল ইসলাম, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এস. এম. শরিফ-উল ইসলাম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ মাকসুদ হাসেমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন