ঢাকা শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮ মাঘ ১৪২৭, ০৮ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

ইংল্যান্ডকে ধাঁধায় ফেলবে উইকেট!

প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : টেস্টে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের উল্টো রূপই দেখিয়েছে মিরপুর স্টেডিয়ামের উইকেট। চট্টগ্রামে টেস্ট উইকেট যেখানে পঞ্চম দিনেও অক্ষত, এক সময় ছড়ি ঘুরিয়েছে ব্যাটসম্যানরাÑ নিউজিল্যান্ড, শ্রীলংকা, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কৃতিত্বপূর্ণ ড্র’য়ে সেই ভেন্যুর মতো উইকেট মিরপুর স্টেডিয়ামে কখনো পায়নি বাংলাদেশ দল। জিম্বাবুয়ের মতো দলের বিপক্ষে টেস্ট জিততে চতুর্থ ইনিংসে ১০১ রানের টার্গেট বড় পরীক্ষায় পর্যন্ত ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ দলকে। প্রচলিত আইডিয়া থেকে বেরিয়ে এসে, ব্যাটিং ফ্রেন্ডলী উইকেটের পরিবর্তে টিম ম্যানেজমেন্টের চাওয়া পূরণ করে স্পিন ফ্রেন্ডলী উইকেট উপহার দিয়ে বাংলাদেশ দলের বাহাবা কুঁড়িয়েছেন চট্টগ্রামের কিউরেটর জাহিদ রেজা বাবু। সে কারণেই এখন বড় পরীক্ষার মুখোমুুখি শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের শ্রীলংকান কিউরেটর গামিনি সিলভা।
তবে টিম ম্যানেজমেন্টের পরামর্শ অনুযায়ী উইকেট উপহার পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। ঢাকায়ও ইংল্যান্ড দলকে ধাঁধায় ফেলার মতো উইকেট পাবে তারা, এমনটাই মনে করছেন টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমÑ ‘ঢাকার উইকেট অবশ্যই আলাদা হবে। এখানে উইকেটের মাটি কালো। জানি না কেমন আচরণ করবে? তবে সুবিধা পেলে আমাদের স্পিনাররা তা কাজে লাগাতে পারবে।’ উইকেটটি দেশে আশ্বস্তও নাকি হয়েছেন মুশফিকুরÑ ‘আমি তো সকালে বৃষ্টি দেখে ভেবেছি টানা এক-দুই দিন বৃষ্টি হবে। মাঠে এসে দেখি প্রচÐ গরম। যদিও আমার তো মনে হয় না খুব বেশি প্রভাব ফেলবে। রোদ থাকলে উইকেটের ড্রাই আপ ভিন্ন হতে পারত। কিন্তু গতকাল (গত পরশু) উইকেটে দেখে আমরা খুশি ছিলাম। প্রায় প্রস্তুত উইকেট। খুব বেশি কাজ করার নেই ওখানে। হালকা ময়েশ্চার থাকলে পেসারদের পাশাপাশি স্পিনারদেরও সাহায্য করবে। বল স্পিন ধরবে, গ্রিপ করতে পারা যাবে।’
মুশফিকের ধারণা, উইকেটের আচরণ যা-ই হোক,তা ধাঁধায় ফেলবে ইংল্যান্ডকেÑ ‘আশা করি, এই উইকেট নিয়ে কোনো ক্লু বের করতে পারবে না ইংল্যান্ড। আমরা চেষ্টা করব ঘরের মাঠের পরিচিত উইকেটে খেলার সুবিধা কাজে লাগাতে।’ এই উইকেটে প্রথম ইনিংসকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন মুশফিকুর রহিমÑ ‘উইকেট যেমনই হোক, ভালো জায়গায় বল না করলে বা বল সিলেকশন ভালো না হলে, ভালো করা কঠিন। উইকেট এখানে চট্টগ্রামের মতো যদি নাও হয়, কিংবা আরও ভালোও হয়, চেষ্টা করব উইকেটের সঙ্গে দ্রæত মানিয়ে নিতে। চট্টগামের মতো এখানেও প্রথম ইনিংসটা গুরুত্বপূর্ণ হবে।’
তবে গতকাল সকালের বৃষ্টি কিছুটা হলেও স্বপ্ন দেখাচ্ছে ইংল্যান্ড অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুককে। সকালের এক পশলা বৃষ্টিতে উইকেটের উপর সবুজ ঘাসের প্রত্যাশা করছেন তিনিÑ ‘আজ (বৃহস্পতিবার) সকালের বৃষ্টিতে উইকেটের উপরে কিছু সবুজ ঘাস গজিয়ে উঠবে। আগামীকাল (শুক্রবার) সকালেও যদি এটা থাকে তাহলে আমাদের জন্য ভাল। সেই অপেক্ষায় থাকতে হবে। তবে আপাতত: এটাকে শুকনো উইকেটই মনে হচ্ছে।’ মিরপুরের উইকেটে স্পিন তুলনামূলক কম ধরে, ২০১০ সালে বাংলাদেশ সফরে তা দেখেছেন। সে ধারণাই বদ্ধমূল তারÑ ‘খুব বেশি পরিসংখ্যান কিংবা ইতিহাসের দিকে তাকানোর প্রয়োজন নেই। চট্টগ্রামের চেয়ে ঢাকায় কম স্পিন ধরে। আমার অনুভূতি হচ্ছে একইরকম এই খেলায় হবে না। আমার মনে হয় বাংলাদেশ হোম এডভানটেজের কারণে সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্পিন নিয়েই আক্রমণ করার এবং চট্টগ্রামেও সেটাই ছিল। চট্টগ্রাম সাধারণত হাই স্কোরিং খেলা হয়, কিন্তু এবার সেটা হয়নি।’
ইংল্যান্ডকে ধাঁধায় ফেলতে যে উইকেট তৈরি করা হচ্ছে, তা নিয়ে মোটেও বিচলিত নন কুক।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন