সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

গুম হওয়া ব্যক্তির স্বজনদের বাসায় পুলিশ

‘মায়ের ডাক’ এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্র পৃথক বিবৃতি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০১ এএম

চাপ প্রয়োগ করে সাদা কাগজে সই নেয়ার অভিযোগ
গুম হওয়া ব্যক্তির স্বজনদের ওপর চাপ প্রয়োগের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। বাসায় বাসায় গিয়ে জেরা করা, থানায় ডেকে পাঠানো এবং ক্ষেত্রবিশেষে সাদা কাগজে সই নেয়ার মতো ঘটনা ঘটছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। এ প্রেক্ষাপটে গতকাল গুম হওয়া ব্যক্তিদের স্বজনদের মঞ্চ ‘মায়ের ডাক’ এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্র পৃথক বিবৃতি দিয়েছে। এছাড়া বিবৃতিতে পুলিশি তৎপরতায় নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

মায়ের ডাক এর সংগঠক আফরোজা ইসলামের সই করা ওই বিবৃতিতে বলা হয়, সরকারের নির্দেশে পুলিশ বারবার গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যদের বাড়িতে বারবার গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলছে এবং রাতে তাদের থানায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। গুমের শিকার ব্যক্তি নিখোঁজ হয়েছেন এবং পরিবার তথ্য গোপন করেছে- এমন বাক্য লেখা কাগজে সই দেওয়ার জন্য পুলিশ স্বজনদের ওপর চাপ প্রয়োগ করছে।

ওই বিবৃতিতে ‘মায়ের ডাক’ এর সদস্যরা আরও জানান, গুমের শিকার ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা নানাধরনের সমস্যা ও মানসিক চাপ নিয়ে জীবনযাপন করছেন। যারা গুম হয়েছেন, তারা পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি ছিলেন। ফলে এসব পরিবার অর্থকষ্টে আছে।

এর মধ্যে হঠাৎ করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা চাপ দিয়ে স্বজনদের কাছ থেকে সই নেওয়ার চেষ্টাসহ বিভিন্ন তৎপরতায় পরিবারগুলো আতঙ্কিত। তারা আরও বলেন, গুমের ঘটনায় সরকারি বাহিনী জড়িত, এমন তথ্যপ্রমাণ তাদের হাতে আছে। তারা হয়রানি বন্ধ করে স্বজনদের ফিরিয়ে দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহŸান জানান।

পৃথক বিবৃতিতে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) বলেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এমন আচরণ সম্পূর্ণ বেআইনি। দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ থাকা এসব ব্যক্তিকে খুঁজে বের করা ও জড়িতদের চিহ্নিত করার প্রচেষ্টা জোরদার করার পরিবর্তে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এ ধরনের তৎপরতা অগ্রহণযোগ্য।

গুমের শিকার এসব ব্যক্তির পরিবার দীর্ঘ সময় ধরে স্বজনদের ফেরার প্রতীক্ষায় রয়েছে। প্রতিমুহ‚র্তে এসব পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতা ও ভীতির মধ্যে রয়েছেন। এভাবে তাদের হয়রানি করায় তারা আরও বেশি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এ ধরনের তৎপরতা প্রকৃতপক্ষে গুমের শিকার ব্যক্তিদের খোঁজার ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি স্পষ্ট করে তুলছে।

পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) মো. কামরুজ্জামান বলেন, বাড়ি বাড়ি গিয়ে জেরা বা সাদা কাগজে সই নেওয়ার মতো ঘটনা ঘটার কথা নয়। গুম হওয়া ব্যক্তিদের স্বজনদের বাসায় বাসায় পুলিশের যাওয়া সম্পর্কে তিনি অবহিত নন।

উল্লেখ্য, গত বছরের জুনে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ গুম হওয়া ৩৪ জনের ব্যাপারে জানতে চেয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়। এর ৬ মাসের মাথায় গত ১০ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্র সরকার ক্রসফায়ার ও গুমের অভিযোগ তুলে র‌্যাবের বর্তমান ও সাবেক সাত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। মার্কিন রাজস্ব দফতর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ওই সময় জানায়, বাংলাদেশের বেসরকারি সংগঠনগুলো অভিযোগ করেছে, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ২০০৯ সাল থেকে প্রায় ৬০০টি বিচারবহির্ভত ‚হত্যাকান্ড, ৬ শতাধিক ব্যক্তির অদৃশ্য হয়ে যাওয়া ও নির্যাতনের জন্য দায়ী।

 

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন