বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

উন্নয়নশীল দেশের করোনা মুক্তিতে সহায়তার আহ্বান কোরেশির

জি৭৭-এর চেয়ার গ্রহণ পাকিস্তানের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০১ এএম

পাকিস্তান গত শুক্রবার ৭৭ গ্রুপের চেয়ার গ্রহণ করে আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়ের প্রতি উন্নয়নশীল দেশগুলিকে কোভিড-১৯ মহামারির প্রভাব থেকে পুনরুদ্ধারে সহায়তার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি।

বার্ষিক সভায় ভার্চুয়াল ভাষণে তিনি বলেন, ‘উন্নয়নশীল দেশগুলো পুনরুদ্ধার করতে পারে না যদি তাদের বাজেট কঠোরতা প্যাকেজে সীমাবদ্ধ, জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি এবং তাদের মুদ্রার দুর্বলতা থাকে। কোনো দেশকে তার জনগণের সেবা করা থেকে বিরত করা উচিত নয়’।
গ্রæপ অফ ৭৭ (জি৭৭) হল জাতিসংঘের ১৩৪টি উন্নয়নশীল দেশের একটি জোট, যা তাদের যৌথ অর্থনৈতিক স্বার্থ প্রচারের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। পাকিস্তান ২০২২ সালের জন্য গ্রæপটির সভাপতিত্ব করবে। পাকিস্তান গ্রæপের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং অতীতে তিনবার নিউইয়র্কে এর চেয়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করার বিশেষ সুযোগ পেয়েছে।

জনাব কোরেশি ভার্চুয়াল বিন্যাসে অনুষ্ঠিত হস্তান্তর অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী অংশের কার্যক্রমের সভাপতিত্ব করেন এবং বিদায়ী চেয়ার (গিনি), জাতিসংঘের মহাসচিব এবং জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতিও উপস্থিত ছিলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেছেন যে, ২০টিরও বেশি উন্নয়নশীল দেশ ঋণ সঙ্কটে রয়েছে এবং কিছু ইতোমধ্যেই খেলাপি হয়েছে। তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘২০টিরও বেশি দেশ খাদ্য নিরাপত্তাহীন। দুর্ভিক্ষ কিছু এলাকায় ডালপালা ছেড়েছে, বিশেষ করে আফ্রিকা এবং আফগানিস্তানে সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে’।
জনাব কোরেশি ত্রিবিধ সঙ্কট চিহ্নিত করেছেন- কোভিড-১৯ মহামারি; এ সম্পর্কিত অর্থনৈতিক মন্দা এবং আবহাওয়া পরিবর্তন সৃষ্ট হুমকি’ -বিশ্ব আজ যার মুখোমুখি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেছেন যে, এ জনস্বাস্থ্য সঙ্কট উন্নয়নশীল দেশগুলোকে অসমভাবে প্রভাবিত করেছে।

তিনি বলেন, ‘দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এবং স্বল্প সম্পদ উভয়ের কারণেই আমাদের দেশের লাখ লাখ মানুষ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বেশিরভাগই নীরবে। জীবন হারানো ছাড়াও, ১৫ কোটিরও বেশিকে চরম দারিদ্র্যের মধ্যে ঠেলে দেয়া হয়েছে’। জনাব কুরেশি মিউটেটিং ভাইরাসের সর্বোত্তম প্রতিক্রিয়া হিসাবে ভ্যাকসিনের সর্বজনীন বিতরণের আহŸান জানিয়েছেন।
পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়কে স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন যে, ধনী দেশগুলো তাদের অর্থনীতিকে পুনরুজ্জীবিত করতে ১৭ ট্রিলিয়ন ডলারেরও বেশি তহবিল সংযুক্ত করেছে, বেশিরভাগ উন্নয়নশীল দেশ এখনও এক শতাব্দীর সবচেয়ে মারাত্মক মন্দার কবলে রয়েছে’।

তিনি ঋণ পুনর্গঠনের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন; ০.৭ শতাংশ ওডিএ লক্ষ্য পূরণ; ৬৫০ বিলিয়ন ডলারের নতুন এসডিআর-এর পুনর্বন্টন; এবং আইএমএফ এবং বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাঙ্কগুলোর কাছ থেকে বৃহত্তর ছাড়ের অর্থায়ন। তিনি উন্নয়নশীল দেশগুলো থেকে ট্রিলিয়ন ডলারের অবৈধ বহিঃপ্রবাহ রোধ করার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন।

একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশের গুরুত্ব স্বীকার করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিল্পোন্নত দেশগুলোকে ক্ষতি কমাতে প্রধান ভূমিকা পালন করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আবহাওয়া সংক্রান্ত সমস্ত পদক্ষেপ অবশ্যই অভিন্ন, কিন্তু ভিন্ন দায়বদ্ধতার নীতি মেনে চলতে হবে। সূত্র : ডন অনলাইন ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন