শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি আড়াই কোটি মানুষ

প্রচারহীনতাকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা টিকার আওতায় ৮ কোটি ৫১ লাখ মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৩ এএম

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ভ্যাকসিন কার্যক্রমে জোর দিয়েছে সরকার। প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের পাশাপাশি এখন বুস্টার ডোজ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এরই মধ্যে দেশে প্রায় ছয় লাখ মানুষকে বুস্টার ডোজ দেয়া হয়েছে। যদিও রেজিস্ট্রেশন করেও এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেনি দেশের প্রায় আড়াই কোটি মানুষ।
চিকিৎসক ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নানা কারণে টিকা নিতে মানুষের আগ্রহ কমে গেছে। আবার প্রথম ডোজ নিলেও দীর্ঘদিন দ্বিতীয় ডোজের এসএমএস পাচ্ছেন না অনেকেই। যেসব কারণে বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী এখনও টিকার আওতার বাইরে রয়েছে। আর এই আগ্রহ ঘাটতির পেছনে সরকারের প্রচারহীনতাকে দায়ী করছেন তারা। অবশ্য স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, প্রতিটি এলাকায় পর্যাপ্ত প্রচারণা চালানো হয়েছে। টিকাকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে টিকা নেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য বলছে, দেশে এখনও টিকার ২য় ডোজ নেয়নি এমন আড়াই কোটিরও বেশি মানুষের মধ্যে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ৮৩ লাখ ৮১ হাজার ৩৫ জন। এছাড়াও ফাইজারের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ৬৫ লাখ ৬৩ হাজার ৪১৪ জন, মডার্নার টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ৬৯ হাজার ৮৬০ জন, সিনোফার্মের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ৭৯ লাখ ২৮ হাজার ৩০৫ জন, সিনোভ্যাক টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ২২ লাখ ১৪ হাজার ৫৮০ জন। সবমিলে দেশে প্রথম ডোজের টিকা নিয়ে এখনও দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি ২ কোটি ৫১ লাখ ৫৭ হাজার ১৯৪ জন।

সূত্র মতে, দেশে ২০২১ সালের ২৭ জানুয়ারি করোনার টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রোজেনেকার টিকার মাধ্যমে দেশে টিকাদান শুরু হলেও বর্তমানে ফাইজার, সিনোফার্ম এবং মডার্নার টিকা দেয়া হচ্ছে। এতোদিন মাস্ক না পরলে সরকারি কোনো সংস্থায় সেবা মিলত না। তবে এখন সেবা নিতে করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণও বাধ্যতামূলক হচ্ছে। করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

তবে, মাঠ পর্যায়ে ঘুরে দেখা গেছে, নো ভ্যাকসিন, নো সার্ভিস এখনও কঠোরভাবে কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তবে সেবাগ্রহীতাদের জন্য মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক রয়েছে। মাস্ক না পরলে কেউ সরকারি সেবা প্রতিষ্ঠানে ঢুকতে পারে না। উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের সরকারি অফিসে মাস্ক পরিধানের বিষয়টি কঠোরভাবে পালন করা হচ্ছে।
রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, বিভিন্ন কারণে মানুষের মধ্যে টিকা নেয়ার আগ্রহ কমে গেছে। আবার কেউ কেউ টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষা করছে। অনেকেই আছে স্থান পরিবর্তনের কারণে কীভাবে দ্বিতীয় ডোজ নিবে সেটি বুঝতে পারছে না। সবমিলিয়ে টিকা নেয়ার প্রতি মানুষের আগ্রহ কমে গেছে, পাশাপাশি অনেকে টিকা নিতে চাইলেও নানা জটিলতায় পড়ছেন।

তিনি বলেন, অনেকে বলে আমি তো চট্টগ্রাম ছিলাম, এখন ঢাকায় চলে এসেছি। ওখানে প্রথম ডোজ দিলেও ঢাকায় কীভাবে দ্বিতীয় ডোজ দেবো বুঝতে পারছি না। আবার অনেকেই বলছে প্রথম রোজ নেওয়ার দীর্ঘ দিন পার হলেও দ্বিতীয় ডোজ টিকার কোনো এসএমএস পাচ্ছে না। অনেকের মেসেজ আসলেও আবার সে খেয়াল করেনি, টিকা কার্ড ডাউনলোড করলে সে দেখতে পারবে। এসব বিষয়ে মানুষকে অবহিত করা দরকার। তাহলেই প্রথম এবং দ্বিতীয় ডোজের মাঝখানে এই গ্যাপের পরিমাণ অনেকটাই কমে আসবে।

বিশিষ্ট এই সংক্রমণ বিশেষজ্ঞ বলেন, যারা প্রথম ডোজ নেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজ নিচ্ছে না, স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের কাছে তো তাদের সব ধরনের ডাটা আছে। স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ যোগাযোগ করুক, তাদের ফোন করে জানতে চাওয়া হোক কেন তারা দ্বিতীয় ডোজ নিচ্ছে না। তাদের যদি কোনো সমস্যা থেকে থাকে সেক্ষেত্রে প্রয়োজনে তাদের সহায়তা করা হোক।

জনস্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা কমিটির সদস্য ডা. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, আমাদের টিকা প্রয়োগের হার খুবই কম। আমরা যদি ৪০ শতাংশেরও বেশি মানুষকে দুই ডোজের টিকার আওতায় আনতে পারতাম, তখন হয়ত একটু দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে পারতাম যে সংক্রমণ ততটা ঝুঁকিতে নেই। কিন্তু আমরা এখনও অনেকটাই পিছিয়ে আছি।

তিনি বলেন, এই অবস্থায় আমাদের করণীয় হলো দ্রæত সময়ে শতভাগ টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন করা। কারণ, একজন মানুষও টিকার বাইরে থাকলে পরবর্তীতে তিনি ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়াবেন। এর বাইরে একমাত্র অবলম্বন হলো স্বাস্থ্যবিধিসহ সামাজিক রীতিগুলো পালন করা।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের স¤প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (ইপিআই) কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বলেন, ব্যবধানটা মূলত বেড়েছে অস্ট্রাজেনেকার টিকার জন্য। কমিউনিটি ক্লিনিকে আমাদের গত যে দুটি ক্যাম্পেইন হয়েছে, সেখান বিরাট একটা অংশ আছে যারা এই টিকা পাবে দুইমাস পর। এছাড়াও আমরা দেখছি যে গত দুই মাস ধরে টিকা কার্যক্রম ভালো চলছে। যেখানে প্রথম ডোজ মানুষ বেশি নিয়েছে, এখন তাদের অনেকেই দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছে, আবার অনেকেই নেওয়ার অপেক্ষায় আছে।

টিকা নেয়ায় অনাগ্রহ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শুরুতে এমনটা থাকলেও এখন মানুষ সতর্ক। বিশেষত এখন যারা টিকা নিতে আসছেন, তারা সতর্কতার জন্যই টিকা নিচ্ছেন। হয়ত কোনো ক্ষেত্রে অসুস্থতার জন্য দেরি করতে পারে বা নানা ব্যস্ততার জন্য সময় মিলাতে পারে না।

যারা দীর্ঘদিন টিকা নিতে আসছে না, তাদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে যোগাযোগ করা যায় কি-না জানতে চাইলে শামসুল হক বলেন, প্রায় আড়াই কোটি মানুষ দ্বিতীয় ডোজ নেয়নি, তাদের প্রত্যেককেই তো আর টেলিফোন করে আনা সম্ভব নয়। আমরা তাদের সবাইকেই মোবাইলে ক্ষুদে বার্তা (এসএমএস) দিচ্ছি, দ্বিতীয় ডোজের টিকা নেয়ার জন্য। যারা নিবন্ধন করে প্রথম ডোজ নিয়েছে, তাদের প্রত্যেকেই এসএমএস দেয়া হয়েছে।
তবে এখানে একটি বিষয় হলো, এমন অনেক আছে যারা নিবন্ধন করেছে রাস্তার পাশের দোকান থেকে। এখন দ্বিতীয় ডোজের টিকার মেসেজ দিলে তো সেটি চলে যায় দোকানে, দোকানদার তো আর তাকে জানাতে পারে না। আরেকটি কারণ হলো, টিকা ক্যাম্পেইনের সময় অনেকেই দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে নিয়েছে, কিন্তু ক্যাম্পেইন থেকে তথ্য আপলোড করতে পারেনি।

প্রচারণা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে অনেক প্রচারণা চালিয়েছি। প্রতিটি এলাকায় মাইকিংও করিয়েছি। প্রথম ডোজ নেয়া প্রত্যেককে আবার মেসেজও দিয়েছি। আমরা পর্যাপ্ত প্রচারণা চালিয়েছি এবং চালাচ্ছি।

টিকার আওতায় এসেছে ৮ কোটি ৫১ লাখ মানুষ
সর্বশেষ গত ১৩ জানুয়ারি রাজধানীসহ সারাদেশে একদিনে টিকা নিয়েছেন ২১ লাখ ৭৯ হাজার ৬৯৫ জন। তাদের মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৮ লাখ ৪২ হাজার ২৮৬ জন এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৩ লাখ ৩৭ হাজার ৪০৯ জন। সবমিলিয়ে এখন পর্যন্ত রাজধানীসহ সারাদেশে টিকাগ্রহীতার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ কোটি ১৯ লাখ ১৯ হাজার ৩৩০ জনে। তাদের মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৮ কোটি ৫১ লাখ ৮৭ হাজার ৬৭৭ জন ও দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৫ কোটি ৬১ লাখ ৫৮ হাজার ৭৯০ জন। এছাড়া বুস্টার ডোজ নিয়েছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার ৮৬৩ জন।
টিকা নিতে এখন পর্যন্ত দেশে নিবন্ধন করেছেন ৮ কোটি ১৭ লাখ ৮০ হাজার ১৪৯ জন। তাদের মধ্যে জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) মাধ্যমে ৭ কোটি ৯৮ লাখ ৮৩ হাজার ২৫৫ জন, পাসপোর্টের মাধ্যমে ১২ লাখ ৪৯ হাজার ২৬ জন এবং জন্ম নিবন্ধনপত্রের মাধ্যমে ৬ লাখ ৪৭ হাজার ৮৬৮ জন নিবন্ধন করেছেন।##

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন