রোববার, ২২ মে ২০২২, ০৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

ব্যবসা বাণিজ্য

তৈরি পোশাক শিল্পে মধ্যম ও শীর্ষ পর্যায়ের ব্যবস্থাপনা পদগুলোতে আরও নারীদের আসা উচিত: বিজিএমইএ সভাপতি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ জানুয়ারি, ২০২২, ৮:৫৯ পিএম | আপডেট : ৯:০২ পিএম, ১৬ জানুয়ারি, ২০২২

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেছেন, পোশাক কারখানাগুলোতে মধ্য ও শীর্ষ পর্যায়ের ব্যবস্থাপনা পদগুলোতে আরও নারীদের এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, এটি সত্যি যে তৈরি পোশাক শিল্পে নিয়োজিত মোট শ্রমশক্তির প্রায় ৬০ শতাংশই নারী, তথাপি তদারকি ও ব্যবস্থাপনা পদগুলোতে নারীদের উপস্থিতি এখনও উল্লেখযোগ্য নয়।

“যাহোক, চিত্র বদলাতে শুরু করেছে। এটি সত্যিই উৎসাহব্যাঞ্জক যে পোশাক শিল্পে ব্যবস্থাপনা পর্যায়ে নারীদের অংশগ্রহন বাড়ছে। তারা মার্চেন্ডাইজিং, ফ্যাশন ডিজাইনিং, ইন্ডাষ্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ন বিভাগগুলোর শীর্ষ পদগুলোর চ্যালেঞ্জ ও দায়িত্বভার গ্রহন করছে এবং ভালো পারফর্মও করছে।”

১৫ জানুয়ারি ২০২২ ঢাকায় এপ্লাইড হিউম্যান সাইন্স (অঐঝ) মিলনায়তনে টেক্সটাইল টেক এসোসিয়েশন এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ফারুক হাসান এসব কথা বলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ এর পরিচালক ব্যারিষ্টার ভিদিয়া অমৃত খান ও পরিচালক ইনামুল হক খান (বাবলু), এপ্লাইড হিউম্যান সাইন্স এর অধ্যক্ষ প্রফেসর ইসমত রুমিনা, টেক্সটাইল টেক এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সাবরিনা শারমীন এবং ফ্যাশন ডিজাইনার বিবি রাসেল।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান তার বক্তব্যে বলেন, বিশেষ করে নারীদের দক্ষতা উন্নয়নে বিজিএমইএ উদ্ভাবন, দক্ষতা ও পেশাগত নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য শীর্ষক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে।

এ কেন্দ্রের লক্ষ্য হলো বিশেষ করে নারীদের সক্ষমতা তৈরিসহ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সাথে খাপ খাইয়ে নেয়ার জন্য শিল্পের বিকাশ ঘটানো। যদি আমাদের ও টেক্সটাইল টেক এসোসিয়েশন এর এজেন্ডা একই ধরনের হয়, তাহলে টেক্সটাইল টেক এসোসিয়েশনের সহযোগিতাকে আমরা স্বাগত জানাই।

“পরবর্তী বড় এজেন্ডা হলো শিল্পের ভেতরে নেতৃত্ব গ্রহনের জন্য নারীদের অনুপ্রাণিত করা এবং তাদেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া। আমরা আরও অনুকূল পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করছি। বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজী (বিইউএফটি) ফ্যাশন এবং প্রযুক্তিতে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ দেয়ার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো।”

এছাড়াও পোশাক কারখানায় কর্মরত মেয়েদের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টিতে আমরা কাজ করছি। বর্তমানে ৬০টিরও বেশি নারী কর্মী উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের জন্য এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনে ভর্তি হয়েছেন।”

তিনি আশা প্রকাশ করেন যে টেক্সটাইল টেক অ্যাসোসিয়েশন টেক্সটাইল ও পোশাক শিল্পে নারীদের জন্য ভালো সুযোগের রাস্তাগুলো প্রশস্ত করতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন