মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ইফার মাদরাসা শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছেনি নতুন বই

প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সত্ত্বেও

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০১ এএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন পাওয়ার পরেও প্রকল্প পাশের জটিলতার দরুণ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের অধীনে সারা দেশে দারুল আরকাম মাদরাসার শিক্ষার্থীদের হাতে এখনো নতুন বছরের বই পৌঁছেনি। ২০২১ সালের ১২ সেপ্টেম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দিন থেকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের অধীনে প্রতিষ্ঠিত দারুল আরকাম মাদরাসাগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠ দান অব্যাহত রেখেছেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা। নিজেদের চেষ্টায় কিছু কিছু মাদরাসায় নতুন বই দিতে পারলেও ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে অফিসিয়াল নির্দেশনা না দেয়ায় অনেক মাদরাসা শিক্ষকরা শত চেষ্টা করেও ২০২২ শিক্ষাবর্ষের নতুন বই সংগ্রহ করতে পারেনি। ফলে হাজার হাজার শিক্ষার্থী নতুন বইয়ের জন্য এখনও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে।

২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে দীর্ঘ দুই বছর বেতনভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন ২০২০ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা। এরই মধ্যে মারা গিয়েছেন ৫ জন শিক্ষক। তাদের এতিম শিশুরাও ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর ন্যূনতম মানবিক আচরণ থেকে বঞ্চিত রয়েছে। দারুল আরকাম মাদরাসার ভুক্তভোগী একাধিক সূত্র এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য, ২০২১ সালের গত ১০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে মুজিব শতবর্ষে প্রাথমিক পর্যায়ে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দারুল আরকাম মাদরাসা প্রকল্পটিকে সরকারের অবদান হিসেবে উল্লেখ করেছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। এছাড়া তিনি বিভিন্ন বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্পটি অনুমোদন ও অর্থ বরাদ্দ দিয়েছেন বলে পরিষ্কার জানিয়েছেন।
এছাড়া ২০২১ সালের ১৭ জুন ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ও ওয়াকফ বিষয়ক কমিটির সভাপতি আলহাজ সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষিকাদের করোনাকালীন বিগত ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ২৫ হাজার টাকা হারে অনুদান প্রদান ও দারুল আরকাম মাদরাসা প্রকল্পটি বাস্তবায়নের নির্দেশনা প্রদানের জন্য জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন এবং প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ করেছেন। কিন্তু উল্লেখিত প্রকল্পটি অদ্যাবধি আলোর মুখ দেখেনি। বিগত দু’বছরে বেতন ভাতা না পাওয়ায় ৫ জন শিক্ষকের মৃত্যু হয়েছে। তাদের পরিবার-পরিজনও প্রকল্প পাস না হওয়ায় ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য চরম হয়রানির শিকার হচ্ছে। এদিকে, প্রকল্পটির বাস্তবায়ন প্রক্রিয়াধীন হওয়ার অজুহাতে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত মাদরাসায় নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক-কর্মজীবীদের এমন দুরবস্থা দেখে খোদ ইসলামিক ফাউন্ডেশনেই ইসলামিক আদর্শের অভাব অনুভব করছেন সচেতন মহল।
উল্লেখ্য, ইতিহাসে বিরল নজির স্থাপন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর অধীনে ২০১৭ সালে দেশের প্রতিটি উপজেলায় দুইটি করে একযোগে ১০১০টি দারুল আরকাম মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। এতে জেনারেল ও আরবি ভাষাকে প্রাধান্য দিয়ে ধর্মীয় শিক্ষার যুগোপযোগী সমন্বয়ে পাঠদানের মাধ্যমে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে দেশব্যাপী যথেষ্ট সুনাম অর্জন করে প্রকল্পটি। ইসলামের সর্বপ্রথম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামানুসারে এটির নাম দেয়া হয় ‘দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসা।’ প্রতিটি মাদরাসার সাইনবোর্ডে ‘প্রতিষ্ঠাতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’ লেখা রয়েছে। দারুল আরকার মাদরাসাগুলো মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্পের অধীনে প্রতিষ্ঠা করা হলেও পরবর্তীতে ২০২০ সালে আলাদা প্রকল্প বাস্তবায়ন করার কথা বলে গণশিক্ষা প্রকল্প থেকে এটিকে আলাদা করে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলার চন্দ্রাখালি দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার ভূমিদাতা ও আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ আব্দুল ওহাব গতকাল ইনকিলাবকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় এলাকায় উন্নত শিক্ষাব্যবস্থা প্রসারের আশা নিয়ে নিজে ১০ কাঠা ভূমি দিয়ে যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ খরচ করে অবকাঠামোর ব্যবস্থা করে দিয়েছি। মাত্র দুই বছর শেষে প্রক্রিয়াধীন প্রকল্পটি পাস না হওয়ায় শিক্ষক-শিক্ষিকা ঋণগ্রস্ত হয়ে আর্থিক অনটনে রয়েছেন। অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে রয়েছেন অনিশ্চয়তায়। তিনি দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসা স্থাপন ও পরিচালনা শীর্ষক প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নে এবং শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বকেয়া বেতনভাতা প্রদান ও অপেক্ষায় থাকা শিক্ষার্থীদের নতুন বই প্রদানসহ শিক্ষাকার্যক্রম চলমান রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
চট্টগ্রাম লোহাগাড়া পূর্ব কলাউজান মাসুদা খাতুন দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসার ভূমিদাতা ও ম্যানেজিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাবেক বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ আইনবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে দারুল আরকাম মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন বিধায় আমরা ৫ শতাংশ ভূমি দিয়ে ও নিজস্ব অর্থায়নে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় অবকাঠামো নির্মাণ করে মাদরাসায় শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করেছিলাম। কিন্তু মাত্র দুই বছরের ব্যবধানে দারুল আরকাম মাদরাসাকে মূল প্রকল্প থেকে আলাদা করে ভূমিদাতা, এলাকাবাসী, লক্ষাধিক অভিভাবক ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হয়রানির শিকারে পরিণত করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন ও অর্থ বরাদ্দ সত্ত্বেও অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে প্রকল্পটি অদ্যাবধি পাস না হওয়ায় এলাকাবাসী ও অভিভাবকরা চরমভাবে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছে। তিনি বলেন, স্থায়ী অবকাঠামোসহ ১০১০টি প্রতিষ্ঠান সমৃদ্ধ একটি শিক্ষা প্রকল্প শুধু দুই বছরের জন্য প্রতিষ্ঠার কোনো যৌক্তিকতা নেই। তিনি ইসলামি শিক্ষা খাতে সরকারের এই অবদানকে স্থায়িত্ব দিতে প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (17)
সাইমুম চট্টগ্রাম ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৭:৫০ এএম says : 0
এটা খুবই দুঃখজনক। সবার হাতে বই পৌছে দেয়া হোক।
Total Reply(0)
জাকির হোসেন ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৭:৫০ এএম says : 0
স্কুলে দেয়া হলে এখানে দেওয়া হইনি কেন।
Total Reply(0)
বাহার বিন মুহিব ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৭:৫১ এএম says : 0
সংশ্লিষ্টদের এজন্য জবাদিহিতা করা উচিত।
Total Reply(0)
মোঃ আব্দুল ওয়ারেছ ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৮:৫৪ এএম says : 0
প্রকল্পটি অতি দ্রুত পাশ হোক ! এই কামনা করছি।
Total Reply(0)
মুহাঃ নূরুল হক ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৫৯ এএম says : 0
বিষয়টি দ্রুত সমাধান করা হোক। শিক্ষক,শিক্ষার্থীদের নিরাশা দূর করতে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
Total Reply(0)
সাখাওয়াত হোসেন ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১১:৫৪ এএম says : 0
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করেন। তারপরেও এক অদৃশ্য কারণে বাস্তবায়ন করা হয়নি..! খুবই দুঃখজনক।
Total Reply(0)
মো ঃ সাইফুল ইসলাম রুবেল ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:১৪ পিএম says : 0
আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিষ্ঠান তার একান্ত নিজস্ব মাদ্রাসা তার হাতে গড়া দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ।।। সব প্রকল্প পাশ হয়,,,,, আর,,,,প্রধানমন্ত্রী একান্ত মাদ্রাসা পাশ হয়না।।।। বই গুলো এখনো পায়নি এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ব্যাপার ।।।।।।।।। ???????????????????????? আশা রাখি সব জটিলতা দূর হবে ইনশাআল্লাহ ।।দারুল আরকাম মাদ্রাসার একদিন বিজয় সুনিশ্চিত ।।।।।।।। ।
Total Reply(0)
মোঃ আবুল হাসান হাশেম ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১:৪০ পিএম says : 0
আজ দৃ'বৎসর যাবত দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকগণ প্রকল্প পাশের অপেক্ষায় তারা বিনা বেতনে মাদ্রাসায় ক্লাস চালিয়ে যাচ্ছেন।মাননীয় প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়ার পরও আজ পর্যন্ত দারুল আরকামের প্রকল্পের কোন সমাধান না হওয়াটা খুবই দুঃখজনক। তাই আমরা মনে করি অতিদ্রুত প্রকল্পটি পাশ করে দারুল আরকাম শিক্ষকদের বেতন/বাতা এবং শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছিয়ে দিতে ব্যবস্হা গ্রহণ করার জন্য উর্ধতন কর্ত্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।কেননা বর্তমানে শিক্ষকগণ এলাকার সাধারণ জনগণের বিশাল চাপে আছেন।
Total Reply(0)
মোঃ আবুল হাসান হাশেম ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১:৪৭ পিএম says : 0
আশা করি খুব দ্রুত দারুর আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসার সমস্যার সমাধান করবেন।
Total Reply(0)
মো:রাকিবুজ্জামান ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ২:৫৮ পিএম says : 0
এটা বাংলাদেশ বলেই সম্ভব ।শীঘ্রই সব স্কুলে বই দেওয়া হক এবং শিক্ষকদের সম্মানির ব্যবস্থা করা হক ।
Total Reply(0)
Mahfujul Islam Masum ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৫:০৮ পিএম says : 0
সারাদেশে একযোগে ১০১০টি দারুল আরকাম মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। দারুল আরকামকে পূনঃ অনুমোদন ও স্থায়ীকরনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করি।
Total Reply(0)
আলী মাহমুদ ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৫:১৭ পিএম says : 0
প্রকল্পটি পাস করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করছি
Total Reply(0)
Taowhid Islam ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:৪৭ পিএম says : 0
Prokolpoti druto pash hok , a kamona korchi.
Total Reply(0)
Asir al-mahmud ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১০:২০ পিএম says : 0
এই মাদরাসা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কওমী আলেমদের চাকরি দান ও সনদের যতযত মুল্যায়ন করেন। এরই ফলে তিনি ক্বওমী জননী খেতাবে ভূষিত হন।জানি না কি কারনে এই বিলম্ব। আশা করি কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আমলে নিয়ে প্রকল্পটি দ্রুত অনুমোদন দিবেন।হে আল্লাহ তুমি কবুল কর।
Total Reply(0)
রফিকুল ইসলাম ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১০:৩১ পিএম says : 0
আল্লাহ্ সকল সমস্যা সহজ ভাবে সমাধান করে 2020 জন শিক্ষকের পরিবারের উপর রহম করুন
Total Reply(0)
সাদিক হাসান ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১১:১৮ পিএম says : 0
প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়ন হোক চলতি মাসেই সেই প্রত্যাশায়.....
Total Reply(0)
সাইফুল ইসলাম ২৮ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪৭ পিএম says : 0
সারা দেশে ১০১০টি দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ও ২০২০ জন শিক্ষকের বকেয়া বেতন সহ এবং তিন লক্ষ ছাত্র ছাত্রীদের পড়াশোনার সুযোগ করে পূনরায় প্রকল্প পাস করে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন করছি।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন