শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

পুতিন হলেন প্রথম পশ্চিমা নেতা যিনি মুসলিমদের প্রতি সহানুভূতি দেখিয়েছেন: ইমরান খান

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:১৬ পিএম

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সোমবার টেলিফোনে আলাপ করেছেন। এ সময় ইমরান খান মহানবী (সা.)-এর অবমাননার বিরুদ্ধে তার ‘জোরালো’ বক্তব্যের জন্য রাশিয়ান নেতাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

গত মাসে, পুতিন বলেছিলেন যে মহানবী (সা.)-কে অবমাননা করা শৈল্পিক স্বাধীনতার অভিব্যক্তি হিসাবে গণ্য নয় তবে এটি ‘ধর্মীয় স্বাধীনতার লঙ্ঘন’। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা তাস জানিয়েছে যে, রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ফরাসি ম্যাগাজিন চার্লি হেবদোতে মহানবী (সা.)-এর নিন্দামূলক স্কেচ প্রকাশেরও সমালোচনা করেছেন। প্রতিবেদনে পুতিনকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, এই ধরনের কাজগুলো চরমপন্থী প্রতিশোধের জন্ম দিয়েছে। শৈল্পিক স্বাধীনতার সীমা রয়েছে এবং এর মাধ্যমে অন্যের স্বাধীনতাকে লঙ্ঘন করা উচিত নয়, তিনি যোগ করেছিলেন।

এরপর সোমবার এক টুইট বার্তায় প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জানিয়েছেন যে, তিনি পুতিনের সাথে কথা বলেছেন, ‘প্রাথমিকভাবে তার জোরালো বক্তব্যের জন্য আমার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে, যে বাক স্বাধীনতা আমাদের মহানবী (সা.)-কে অবমাননা করার জন্য অজুহাত হতে পারে না।’ ‘তিনিই প্রথম পশ্চিমা নেতা যিনি আমাদের প্রিয় নবীর (সা.) প্রতি, মুসলিম অনুভূতির প্রতি সহানুভূতি ও সংবেদনশীলতা প্রদর্শন করেছেন," তিনি যোগ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন যে, উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য এবং অন্যান্য পারস্পরিক উপকারী সহযোগিতার বিষয়ে এগিয়ে যাওয়ার উপায় নিয়েও আলোচনা করেছেন। তিনি বলেন, আমরা একে অপরকে আমাদের দেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছি। এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও) ফোনালাপের বিষয়ে একটি বিবৃতিও প্রকাশ করেছে এবং বলেছে যে প্রধানমন্ত্রী ইমরান পুতিনের বক্তব্যের ‘প্রশংসা’ করেছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে, তিনি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে তার ভাষণে ইসলামোফোবিয়া এবং সংশ্লিষ্ট ঘৃণার ভয়ঙ্কর উত্থান নিয়মিত তুলে ধরেছেন।’ দুই নেতা গত বছর তাদের আলোচনাকে ‘গুরুত্বের সাথে স্মরণ করেছিলেন’ এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার পাশাপাশি পারস্পরিক স্বার্থের আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়গুলিতে মতামত বিনিময় করেছেন, পিএমও জানিয়েছে।

উভয় নেতা বিভিন্ন ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা বাড়াতে, উচ্চ পর্যায়ের আদান-প্রদান বাড়াতে এবং আফগানিস্তান সংক্রান্ত বিষয়ে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগে থাকতে সম্মত হন। ‘প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়েছিলেন যে একটি শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল আফগানিস্তান আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আফগানিস্তান মারাত্মক মানবিক ও অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে এবং এই সংকটময় সময়ে আফগানিস্তানের জনগণের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তিনি জোর দিয়েছিলেন।’

প্রধানমন্ত্রী ইমরান আফগান জনগণের চাহিদা পূরণের জন্য আফগানিস্তানের আর্থিক সম্পদ তাদের জন্য উন্মৃক্ত করে দেয়ার গুরুত্বও উত্থাপন করেছেন। তিনি যোগ করেছেন যে, তিনি পুতিনের পাকিস্তান সফরের পাশাপাশি উপযুক্ত সময়ে রাশিয়ায় তার নিজের সফরের অপেক্ষায় রয়েছেন, বিবৃতিতে বলা হয়েছে। সূত্র: জিও টিভি, ডন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন