শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

শান্তিরক্ষা মিশন থেকে র‌্যাবকে বাদ দিতে ১২ সংস্থার চিঠি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:২৩ পিএম | আপডেট : ৮:৪৬ পিএম, ২০ জানুয়ারি, ২০২২

মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে (র‌্যাব) জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন থেকে বাদ দিতে ১২টি সংস্থা জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জ্যঁ পিয়েরে ল্যাকরুয়াকে চিঠি দিয়েছে বলে জানিয়েছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।

এসব আন্তর্জাতিক সংস্থা হল- অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এশিয়ান ফেডারেশন অ্যাগেইনস্ট ইনভলানটারি ডিজঅ্যাপিয়ারেন্স (এএফএডি), এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ফোরাম-এশিয়া), এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন, এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ফ্রি ইলেকশন, ক্যাপিটাল পানিশমেন্ট জাস্টিস প্রজেক্ট, ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর সিটিজেন পারসিটিসিপেশন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস, রবার্ট এফ কেনেডি হিউম্যান রাইটস, দ্য অ্যাডভোকেটস ফর হিউম্যান রাইটস, ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন অ্যাগেইনস্ট টর্চার (ওএমসিটি)।
বৃহস্পতিবার সকালে এইচআরডব্লিউ’র ওয়েবসাইটে এ খবর জানানো হয়েছে। গত বছরের ৮ নভেম্বর পাঠানো চিঠিটি নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেয়নি শান্তিরক্ষা কার্যক্রম বিভাগ। চিঠিতে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বলছে, ২০০৪ সালে র‌্যাব গঠনের শুরু থেকে ২০২১ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত র‌্যাবের বিরুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, নির্যাতন, জোরপূর্বক গুম করে দেয়ার বিস্তর অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে তারা।

তারা বলেছে, ধারাবাহিকভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো গুরুতর অপরাধ করে এলেও বাংলাদেশ সরকার তাদের পুরস্কৃত করছে ও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে পাঠাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের বিভিন্ন বাহিনীর সাড়ে ৬ হাজারের বেশি সদস্য মোতায়েন রয়েছে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বলছে, ২০১২ সালে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের যে নীতি নিয়েছিল, তা জাতিসংঘ মিশনে আসা বাংলাদেশিদের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে না। বাংলাদেশ থেকে আসা র‌্যাব সদস্যদের বিষয়ে কোনো যাচাই না করেই তাদের শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

চিঠিতে জাতিসংঘের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বলছে, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে কাউকে নিয়োগ দেওয়ার আগে একটি যাচাই পদ্ধতি চালু করা উচিত যেখানে বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, গুম, নির্যাতনের অভিযোগও তদন্ত করে দেখা হবে।

হিউম্যান রাইট্স ওয়াচ আরো উল্লেখ করেছে, বাংলাদেশ সরকার ইতিবাচক পদক্ষেপ নেয়ার পরিবর্তে মানবাধিকার রক্ষাকারী এবং ভুক্তভোগীদের পরিবারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিয়েছে। সূত্র : এইচআরডব্লিউ।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Engr Md Jahid Hosen ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪৮ পিএম says : 0
আমাদের সামনে আরো মহাবিপদ সংকেত আসতেছে। ১০/১২ বছরের কর্ম ফল কি এগুলো আমাদের??
Total Reply(0)
Mahabub Rabbani Milon ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪৮ পিএম says : 0
আমাদের ভুল পরিচালনার কারনে আমাদের রাস্ট্রীয় সংস্থাগুলো একটার পর একটা বিতর্কিত হয়ে যাচ্ছে।
Total Reply(0)
Iftikhar Bappy ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪৯ পিএম says : 0
নিরীহ নির্যাতিত কারাবন্দি সকল আলেম ওলামাদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।
Total Reply(0)
Masudur Rahman ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৪৯ পিএম says : 0
হায়রে এখন কি হবে।
Total Reply(0)
MD Roni ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৫০ পিএম says : 0
বিষয়টা আসলেই দুঃখজনক দেশের সার্থে যে কোন বাহিনী অভিযোগ বিহিন বাহিনী হওয়া এবং তৈরি করা উচিত
Total Reply(0)
Md Jamal Uddin Rubel ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ৯:৫০ পিএম says : 0
খুব কঠিন সময় আসছে। সময় এবং স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না।
Total Reply(0)
Mr. Rayhan ২০ জানুয়ারি, ২০২২, ১০:১৬ পিএম says : 0
বাংলা ভাই, শায়খ আব্দুর রহমান প্রমুখ গণের দমনে RAB ঠিক কাজ করেছে। বর্তমানে জংগী হামলা নেই বললেই চলে। র‍্যাব বাহিনীকে সতর্কতার সাথে ব্যাবহার করা উচিৎ। যাতে রাজনৈতিকভাবে নিরপেক্ষ থাকে..
Total Reply(0)
ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২১ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৮ এএম says : 0
বাংলাদেশের ইতিহাসে র‍্যাব সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মাদকের এর ভেজাল বিরোধী অভিযান গড় ফাদারদের বিরুদ্ধে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে শক্তিশালী অভিযান গ্রেফতার বাংলাদেশের মানুষ গভীর শ্রদ্ধাভরে র‍্যাবের কর্মকাণ্ড সমর্থন করে সাধারণ মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছেন টেকনাফ মর্মস্পর্শি মর্মান্তিক ঘটনায় মোবাইলে কন‍্যার হ্নদয বিদারক আওয়াজ বাবা তুমি কানছো যে """" নারায়ণগঞ্জের ভয়াবহ হত‍্যকান্ড। রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে খুন ঘুমের অভিযোগ এই এলিট ফৌজের বিরুদ্ধে। টেকনাফ নারায়ণগঞ্জের এরা সবাই সরকার সমর্থকদের রাজনৈতিক নেতার ভয়ানক মৃত্যু। বাংলাদেশের মানুষের মনে বিরাট ক্ষোভ দুঃখজনক ঘটনায় সুত্রপাত হয়েছে রাজনৈতিক স্বার্থেই র‍্যাব পেশা দায়িত্ব কর্তব্য পালনে ব‍্যার্থ হওয়াই আন্তর্জাতিক মানবধিকার সংগঠন গুলো ঐক্যবদ্ধ হয়ে জাতীয় সংঘ পযর্ন্ত র‍্যাবের নিষেধাজ্ঞার দাবী জানাচ্ছে। গোটা বাহিনী সকল সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এটি কিযুক্ত সংঘত?বাংলাদেশের সংঘাতময় পরিবেশ পরিস্থিতি রাজনৈতিক বিভাজন বিভিন্ন আদশ‍্যের মানুষের মাঝে কখনই মতাদর্শের প্রতি কখনো কারো শ্রদ্ধা সম্মান মর্যাদার পরিবেশ ছিল না ভবিষ্যতে হওয়ার সম্ভাবনা কি আছেন??জাতীয় সংঘ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আইন শৃংখলা বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের বিভিন্ন মানবধিকার সংঘটনের। সরকার দায়িত্বশীল বাহিনীর পক্ষে রাজনৈতিক সরকারের পেশা দায়িত্বের অভাবের কারণে বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে লজ্জিত হচ্ছে।আমাদের বিশালসংখ্যক বাহিনী জাতীয় সংঘে শান্তি রক্ষি বাহিনীতে অত্যন্ত পেশাদারির মাঝে সমগ্র বিশ্বে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব কর্তব্য পালন সুনাম অর্জন করেছেন।দীর্ঘদিনের ত‍্যাগের সততার জীবনের বিনিময়ে শান্তি রক্ষি মিশনে আজকের বাংলাদেশের শক্তিশালী অবস্থান। অভিযোগ নিষেধাজ্ঞা আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র আন্তর্জাতিক অঙ্গনে শিরোনাম হচ্ছে বিভিন্ন ভাবে। সবকিছুর পিছনে আমেরিকার শক্তিশালী অবস্থান। চীন ভারতের রাশিয়ার রাজনৈতিক দাবার মারপ‍্যাচে বাংলাদেশ। মানবধিকারের সংজ্ঞা কি? মানুষের জান মালের নিরাপত্তা কি? গনতন্ত্রের সংজ্ঞা কি? আমেরিকা বুঝেন? কিছু আগে গনতন্ত্র সম্মেলনে ইসরায়েলের উপস্থিতি গনতন্ত্র সম্মেলনে। এটি আমেরিকার গনতন্ত্রের জঘন্যতম উদাহরণ। গোটা মধ্য প্রার্চের মাঠি রক্তাক্ত ক্ষতবিক্ষত লাশ আর লাশ ইরাক আফগানিস্তান আমেরিকার গনতন্ত্র কবরস্থানে মানবধিকার সংঘটন গুলো আমেরিকার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা কি চায়তে পারবে জাতীয় সংঘে? ফিলিস্তিনের মানুষের উপর বর্বরতা জঘন্যতম ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে ইসরাইল আমেরিকার শক্তি ডলারের মদতে। মুসলমানদের ৩য় পবিত্র স্থান বায়তুল মোকাদ্দেস অবরোধ ইসরাইল কতৃক। এই ইসরায়েলের বিরুদ্ধে জাতীয় সংঘে নিষেধাজ্ঞা শক্তিশালী দাবি বা আবেদন কোথায় আন্তর্জাতিক মানবধিকার সংস্থাগুলোর। এই মুহুর্তে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের স্বার্থে সবাই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক শক্তির নতুন দিগন্তের সুচনাকরে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে এগিয়ে যাচ্ছে। ঘরে বাহিরে দৃশ্য অদৃশ্য শক্ররা তৎপর শক্তিশালী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষ কুটনৈতিক প্রচেষ্টার মধ্যে সমাদান। সামনে বস গুরু আন্তর্জাতিক খেলোয়ারই আমেরিকা বাংলাদেশের অর্থনীতির বিরাট চ‍্যালেঞ্জ আমেরিকার হাতে তাই আমেরিকার মিত্রদের হাতে কাজেই বিচক্ষন বুদ্ধিদিপ্ত কৌশলে এগিয়ে যেতে হবে। সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব‍্যাক্তিরা মাথা গরম করে আমেরিকার বিষোদগার করছে অর্থনৈতিক ভাবেই নিষেধাজ্ঞার পরিবেশ সৃষ্টি করছে। পরিস্থিতি পরিবেশ বুঝেই আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা জাতীয় সংঘে র‍্যাব কে শান্তি রক্ষি মিশন থেকে বাদ দেওয়ার আহবান। পরারাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংঘে শান্তি রক্ষি মিশনের গুরুত্বপূর্ণ ব‍্যাক্তিদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ কুটনৈতিক সমাদান। শেষ কথা দেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রধানরা জানেন অন্দর মহলের কথা আমেরিকা কি চাচ্ছেন? রাষ্ট্র কি আমেরিকার আন্তর্জাতিক কৌশলের কাছেই আন্তর্জাতিক ভাবে আস্তে আস্তে বন্দি হয়ে যাবেন???????। বাংলাদেশের কঠিন পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধুর কন‍্যার ক‍্যারেশম‍্যাটিক লিডারশিপে বাংলাদেশ বহুদরে এগিয়ে যাবেই বঙ্গবন্ধুর কন‍্যার ঘোষণা এই অগ্রযাত্রা কেও থামাতে পারবে না। ক্ষুদ্র মতামত সার্বভৌমত্বের শক্তিশালী কলম।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন