বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সিদ্ধিরগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতার ভাতিজাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে বাসের চালক-হেলপার

নারায়ণগঞ্জ থেকে ষ্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০২২, ১১:৩৮ এএম

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়ার ভাতিজা আবু সুফিয়ান (৩৫) কে পিটিয়ে হত্যা করেছে বনভোজনগামী একটি বাসের চালক—হেলপার ও যাত্রীরা। এ ঘটনায় নিহতের চাচা জজ মিয়া বাদী হয়ে বনভোজনগামী যাত্রী এবং ওই বাসের চালক, হেলপারসহ অজ্ঞাতনামা ২০—২৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় দুইজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা—চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায়। বনভোজনগামী বাসটি আটক করা হয়েছে। তবে চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে। নিহত আবু সুফিয়ান মিজমিজি পশ্চিমপাড়া এলাকার মৃত গোলজার হোসেনের ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত সাড়ে দশটায় আবু সুফিয়ান (৩৫) এবং তার বন্ধু অনিক সরকার হৃদয় (২৪) মোটর সাইকেল যোগে সাইনবোর্ড হতে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন।
এ সময় মোটরসাইকেলটিকে সি ডি এম ট্রাভেলস (ঢাকা—মেট্রো ব—১৪—৪৬৪৯) এর একটি বাস চাপা দেয়। দুর্ঘটনার পর সুফিয়ান ও তার বন্ধু হৃদয় কোনো রকমে নিজেদের রক্ষা করেন। পরে তারা কিছু দুর এগিয়ে বাসটির গতিরোধ করেন। এ সময় বাসের চালক, হেলপারসহ বনভোজনগামী যাত্রীদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন তারা। এক পর্যায়ে বনভোজনের যাত্রী এবং বাসের চালক ও হেলপাড়সহ ২০—২৫ জন সুফিয়ান ও হৃদয়কে গণপিটুনি দেয়। মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়, গণপিটুনির এক পর্যায়ে সুফিয়ানকে গলায় পা দিয়ে চাপ দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। তাদের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এবং হাইওয়ে পুলিশ এগিয়ে এলে অন্যরা সবাই পালিয়ে যায়। পরে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিলে সেখান থেকে তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পাঠানো হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুফিয়ানকে মৃত ঘোষণা করেন।
এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, বুধবার রাতে ঢাকা—চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের সানাড়পাড় এলাকায় সুফিয়ান নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় নিহতের চাচা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন