শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

তালেবানদের ভুলের জন্য আফগানদের শাস্তি দেবেন না: গুতেরেস

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ জানুয়ারি, ২০২২, ৫:৫২ পিএম

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস আফগানিস্তানের হিমায়িত তহবিলের শর্তসাপেক্ষে মুক্তির জন্য তার আবেদনের পুনরাবৃত্তি করেছেন। তিনি আফগান সঙ্কট সমাধানের জন্য তার ‘বিচক্ষণ কূটনীতি’ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

২০২১ সালের আগস্টে তালেবানরা কাবুলের নিয়ন্ত্রন নেয়ার পরপরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভের প্রায় ৯০০ কোটি ডলারের আফগান সম্পদ জব্দ করে। তারপর থেকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপ উভয়ের সংস্থা এবং ব্যক্তিরা ওয়াশিংটনকে তহবিল মুক্ত করার জন্য অনুরোধ করে আসছে। বৃহস্পতিবার, মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদ আফগানিস্তানের জনগণের মুখোমুখি আসন্ন অর্থনৈতিক ও মানবিক বিপর্যয় মোকাবেলার জন্য সেই সম্পদের একটি অংশ মুক্ত করে দেয়ার সুপারিশ করেছে।

গত মাসে, ৪০ জন মার্কিন আইনপ্রণেতা আফগানিস্তানে অর্থনৈতিক পতন ঠেকাতে মানবিক সহায়তা মুক্ত করার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এবং ট্রেজারি সেক্রেটারি জ্যানেট ইয়েলেনকে অনুরোধ করেছিলেন। তবে সবচেয়ে জোরালো আবেদন এসেছে জাতিসংঘের প্রধানের কাছ থেকে যিনি সতর্ক করেছিলেন যে, ‘আফগানিস্তানে একটি দুঃস্বপ্ন (হচ্ছে)’ এবং বিশ্ব ‘আফগান জনগণকে সাহায্য করার জন্য সময়ের বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতায় নেমেছে।’

নিউইয়র্কে সংবাদ ব্রিফিংয়ে গুতেরেস বলেন, ‘শিশুদের তাদের ভাইবোনদের খাওয়ানোর জন্য বিক্রি করা হচ্ছে। অপুষ্টিতে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। সারা দেশে জীবিকা সঙ্কটের সৃষ্টি হয়েছে।’ একজন সাংবাদিক জাতিসংঘের প্রধানকে মনে করিয়ে দেন যে, আফগানিস্তানের পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে এবং তাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে, তিনি তালেবানের সাথে কথা বলতে ও দেশের অর্থনৈতিক অবরোধের অবসান ঘটাতে প্রয়োজনীয় সংস্কার করতে ইচ্ছুক কিনা?

জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রথমত, এটা স্পষ্ট যে, আফগানিস্তানে মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি গুরুতর পরিস্থিতি রয়েছে এবং (অবরোধ শেষ করার শর্তাবলী) এখনও পূরণ হয়নি।’ সে কারণেই, তিনি বলেছিলেন, জাতিসংঘ ‘তালেবানদের সাথে অবিরাম সমর্থন করে বলেছে যে, তাদের স্বীকৃতির উদ্দেশ্যের প্রেক্ষাপটে ও আন্তর্জাতিক সমর্থন পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এটি তাদের জন্য একেবারে অপরিহার্য।’

গুতেরেস অবশ্য তালেবানের ব্যর্থতাকে মানবিক সংকটের সাথে যুক্ত না করার জন্য তার আবেদনের পুনরাবৃত্তি করেছেন। ‘মানবিক সাহায্য এবং এড়ানোর প্রয়োজনীয়তা ... আফগানিস্তানের অর্থনৈতিক পতন এমন একটি বিষয় যার জন্য আমরা লড়াই করে যাচ্ছি, কারণ আফগানিস্তানের জনগণ একটি সম্পূর্ণ মরিয়া পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে,’ তিনি বলেছিলেন, ‘আফগানিস্তানের জনগণকে সম্মিলিতভাবে শাস্তি দেয়া ভুল হবে কারণ প্রকৃতপক্ষে কর্তৃপক্ষ সঠিকভাবে আচরণ করছে না।’

‘দুটি জিনিস আলাদা করার’ প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা আমাদের মানবিক পদক্ষেপ নিয়ে যাব। আমরা তারল্য থাকার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়ে যাব, যাতে অর্থনীতি ভেঙ্গে না যায়, জনগণ যেন একেবারে মরিয়া পরিস্থিতির মধ্যে না থাকে।’ তবে জাতিসংঘও ‘তালেবানদের সাথে মানবাধিকারের বিষয়ের পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক শাসনের প্রশ্নেও জোর দিয়ে যাবে,’ তিনি যোগ করেছেন। সূত্র: ডন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন