শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

 পশ্চিমাদের অত্যাচারের প্রতীক আফিয়া সিদ্দিকী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জানুয়ারি, ২০২২, ৬:১২ পিএম

মালিক ফয়সাল আকরাম যখন গত ১৫ জানুয়ারী টেক্সাসের একটি সিনাগগে চারজনকে জিম্মি করে, তখন তিনি মুসলিম বিশ্বে পরিচিত একজন মহিলার মুক্তি দাবি করেছিলেন। সেই মহিলা হচ্ছেন আফিয়া সিদ্দিকী। ২০০৮ সালে আফগানিস্তানে আমেরিকান সৈন্যদের হত্যার চেষ্টার জন্য তিনি দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। কিন্তু তার জন্মভূমি পাকিস্তানে তিনি পশ্চিমাদের দ্বারা অত্যাচারের প্রতীক।

আফিয়া সিদ্দিকী ১৯৭২ সালে করাচিতে একটি ধর্মপ্রাণ উচ্চ-মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজিতে জীববিজ্ঞান অধ্যয়ন করেন এবং ব্র্যান্ডেস বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউরোসায়েন্সে পিএইচডি অর্জন করেন। আমেরিকায় থাকাকালীন তিনি ইসলামি গোষ্ঠীর সাথে যুক্ত ছিলেন বলে দাবি করা হয়।

৯/১১ এর পর আফিয়া সিদ্দিকী পাকিস্তানের উদ্দেশ্যে বোস্টন ত্যাগ করেন। তার প্রথম স্বামী, একজন পাকিস্তানি অ্যানাস্থেসিওলজিস্টের কাছ থেকে বিবাহবিচ্ছেদের পর, তিনি আবার বিয়ে করেছিলেন—এবার আম্মার আল-বালুচি নামের এক ব্যাক্তির সাথে। বালুচি ৯/১১ ঘটনায় বিমান ছিনতাইকারীদের অর্থায়নে সহায়তা করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার চাচা খালিদ শেখ মোহাম্মদ হামলার পেছনে আত্মস্বীকৃত মাস্টারমাইন্ড ছিলেন। দুজনই এখন গুয়ান্তানামো বে কারাগারে বন্দি।

আমেরিকানরা অভিযোগ করেছে যে, আফিয়া আল-কায়েদার জন্য ‘সুবিধাদাতা’ হিসাবে কাজ করেছিলেন, এফবিআই-এর ওয়ান্টেড সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের তালিকায় তাকে একমাত্র মহিলা হিসাবে স্থান দিয়েছেন (তার বিরুদ্ধে কখনও সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনা হয়নি)। ২০০৩ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে আফিয়া সিদ্দিকীর অবস্থান নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা বলছে, সে পাকিস্তানে লুকিয়ে ছিল। তবে আফিয়া দাবি করেছেন যে, তাকে একটি গোপন কারাগারে আটকে রাখা হয়েছিল এবং নির্যাতন করা হয়েছিল।

২০০৮ সালে তিনি আফগানিস্তানে পুনরায় আবির্ভূত হন এবং তাকে আটক করা হয়। তার হ্যান্ডব্যাগে বোমা তৈরির নির্দেশনাসহ নথি ছিল। আটক অবস্থায় তিনি তার একজন আমেরিকান জিজ্ঞাসাবাদকারীর রাইফেল ছিনিয়ে নিয়ে তাদের দিকে গুলি চালান। তাকে নিউইয়র্কে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, হত্যার চেষ্টার জন্য বিচার করা হয়েছিল এবং ৮৬ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছিল।

পাকিস্তান সরকার তার আইনি প্রতিরক্ষার জন্য অর্থ প্রদান করেছে, যা তার বিরুদ্ধে প্রমাণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। তার মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। পশ্চিমের সংবাদ মাধ্যম দ্বারা ‘লেডি আল-কায়েদা’ নামে অভিহিত করা হয়েছে, তাকে পাকিস্তানে ‘জাতিকন্যা’ বলা হয়। তার আইনজীবী টেক্সাসের সাম্প্রতিক ঘটনা এবং তার নামে সংঘটিত অন্যান্য সহিংসতার নিন্দা করেছেন। তবে তার গল্প সম্পর্কে অনেক কিছুই রহস্যের মধ্যে রয়ে গেছে। সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Shamsul Alam Shahin ২৪ জানুয়ারি, ২০২২, ৭:১৫ পিএম says : 0
আমেরিকানরা আমাদের এই বোনের সাথে যে বর্বরতা দেখিয়েছে, তা হায়েনাকেও হার মানায়।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন