বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

বিনোদন প্রতিদিন

শাপলা মিডিয়া কি চলচ্চিত্র থেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে?

বিনোদন রিপোর্ট: | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০৪ এএম

প্রযোজনা সংস্থা শাপলা মিডিয়া সিনেমা নির্মাণে এসে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। একের পর এক সিনেমা নির্মাণ করে চলচ্চিত্রের মন্দাবস্থা কাটাতে ভূমিকা রাখে। একসঙ্গে ১০০ সিনেমা নির্মাণেরও ঘোষণা দেয়। এ অনুযায়ী, সিনেমাগুলোর নির্মাণ কাজ পর্যায়ক্রমে শুরু হয়। ইতোমধ্যে প্রায় ডজন খানেক সিনেমার শুটিংও শেষ করা হয়েছে। এ অবস্থার মধ্যেই কিছুদিন আগে সংস্থাটির কাকরাইলস্থ কার্যালয়ে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে। কারা কেন এই হামলা চালিয়েছে, তা এখনও রহস্য হয়ে রয়েছে। হামলার এই ঘটনায় সংস্থাটির কর্ণধার সেলিম খান খুবই মর্মাহত ও ক্ষুদ্ধ হয়েছেন। তিনি আপাতত সিনেমা নির্মাণ থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে সংস্থাটির একাধিক সিনেমার পরিচালক শাহীন সুমন জানান। তিনি জানান, একটি কুচক্রী মহল যারা সিনেমার মঙ্গল চায় না, চলচ্চিত্র আবার চাঙ্গা হোক তা চায় না, তারা এ কাজ করেছে বলে মনে করি। তিনি বলেন, সিনেমার দুর্দশার মধ্যে সেলিম খান অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে এগিয়ে এসেছেন। ১০০ সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। এটা অনেকেরই পছন্দ হয়নি। অথচ এই সিনেমাগুলো নির্মাণ কাজ চললে চলচ্চিত্রের কাজ হারানো অনেক লোকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হতো। চলচ্চিত্রে শিল্পী সংকট কাটত। অনেক প্রতিভাবান শিল্পী বের হয়ে আসত। চলচ্চিত্রাঙ্গণ আবার মুখরিত হয়ে উঠত। ইতোমধ্যে ডজন খানেকের বেশি সিনেমার কাজ হয়েছে। এ সময় সংস্থাটির কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর করে সেলিম খানকে নয়, চলচ্চিত্রকে যেন দমিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। আমি মনে করি, তাকে চলচ্চিত্র থেকে বিদায় করে দেয়ার এ এক চক্রান্ত। তিনি যদি সিদ্ধান্ত নেন, আর প্রযোজনা করবেন না, তাহলে চলচ্চিত্রেরই ক্ষতি। তার কোনো ক্ষতি হবে না। চলচ্চিত্র একজন বড় লগ্নিকারক হারাবে। এখন এমন কোনো প্রযোজক নেই, যে কিনা একাধিক তো নয়ই, একটি সিনেমা প্রযোজনা করার সক্ষমতা রাখেন না। শাহীন সুমন বলেন, সেলিম খানের উদ্যোগে চলচ্চিত্রে যে এক প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছিল, তা থামিয়ে দিতে এবং সেলিম খানকে নিরুৎসাহী করে তোলার জন্যই তার কার্যালয়ে হামলা করা হয়েছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি বলেন, আমাদের চলচ্চিত্রের অনেকেই চলচ্চিত্রের উন্নয়ন নিয়ে বড় বড় কথা বলেন, কিন্তু তারা ঐ কথা পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকেন। কোনো উদ্যোগ নেন না। অন্যদিকে সেলিম খান কথা কম বলে, চলচ্চিত্রের উন্নয়নে কাজে নেমেছেন। তিনি কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী। তার প্রমাণ রেখেছেন একের পর এক সিনেমা নির্মাণ করে ও উদ্যোগ নিয়ে। এখন তিনি চলচ্চিত্রে আবার মনোযোগী হবেন কিনা, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন