বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

লাতিন মিত্রদের সামরিক শক্তি বাড়াতে পারে রাশিয়া

ইউক্রেন সঙ্কট

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ জানুয়ারি, ২০২২, ১২:০০ এএম

ইউক্রেন নিয়ে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে রাশিয়া আবারও ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, যুক্তরাষ্ট্র তার দাবি মানতে অস্বীকার করলে, তা লাতিন আমেরিকার মিত্রদের সাথে ঘনিষ্ঠ সামরিক সহযোগিতাকে উৎসাহিত করতে পারে। সম্প্রতি বেশ কয়েকজন সিনিয়র রুশ কর্মকর্তা সতর্ক করেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটো যদি রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে হস্তক্ষেপ করার জন্য জোর দেয়, তাহলে কিউবা এবং ভেনিজুয়েলার সামরিক শক্তি বাড়িয়ে দিতে পারে মস্কো।
তবে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান দ্রুত রাশিয়ার এই টিট-ফর-ট্যাট হুমকি প্রত্যাখ্যান করেছেন। কলম্বিয়ার প্রাক্তন মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেভিন হুইটেকার, যিনি ভেনেজুয়েলা, নিকারাগুয়াতে একজন কূটনীতিক এবং ওয়াশিংটনে কিউবান বিষয়ক অফিসের প্রধান হিসেবেও কাজ করেছেন, বলেছেন, ‘এটি বিশুদ্ধ ভুল নির্দেশনা এবং এটি কাউকে বোকা বানাচ্ছে না।’ তিনি বলেন, ‘এটি প্রকৃত শক্তি অভিক্ষেপ নয়। এটি একটি শোপিস এবং এর বেশি কিছু নয়।’

এদিকে, বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, ল্যাটিন আমেরিকা, যাকে মার্কিন নীতিনির্ধারকরা ওয়াশিংটনের পিছনের উঠোন বলে উল্লেখ করেন, সেখানে রাশিয়ার কৌশলগত পদক্ষেপ মার্কিন নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। গত এক দশকে মার্কিন প্রভাব অঞ্চলটিতে প্রায় বিলীন হয়ে গেছে। মস্কো এবং কিছুটা হলেও চীন ও ইরানের মতো অন্যান্য দূরবর্তী প্রতিপক্ষ নিকারাগুয়া, কিউবা এবং ভেনিজুয়েলার সরকারগুলির সাথে অস্ত্র বিক্রি, অর্থায়ন চুক্তি এবং ব্যাপক কূটনৈতিক ব্যস্ততার মাধ্যমে সম্পর্ক জোরদার করেছে।

মস্কো ভেনেজুয়েলাকে একটি ক্রিপ্টোকারেন্সি ডিজাইন করতে সাহায্য করেছে, কিউবার ৩৫ মিলিয়ন ডলার ঋণ মওকুফ করেছে এবং নিকারাগুয়ায় একটি উচ্চ প্রযুক্তির মাদকবিরোধী প্রযুক্তি পরিচালনা করেছে, যা অনেকের মতে এই অঞ্চল জুড়ে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য একটি গোপন অস্ত্র। রাশিয়ার লাতিন মিত্ররা যখনই যুক্তরাষ্ট্রের হুমকি অনুভব করেছে, তখনই রাশিয়া তার বিশাল সামরিক বাহিনীকে তাদের কাজে লাগিয়েছে। ২০০৮ সালে জর্জিয়ার সাথে রাশিয়ার সংক্ষিপ্ত যুদ্ধ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে উত্তেজনার মধ্যে মস্কো ভেনিজুয়েলায় এক জোড়া ঞঁ-১৬০ পারমাণবিক সক্ষম বোমারু বিমান পাঠিয়েছিল। সেবছর ‘পিটার দ্য গ্রেট’ যুদ্ধজাহাজের মাধ্যমে সেখানে একটি সামরিক অভিযান পলিচালনা করা হয়েছিল।

বিশ্বজুড়ে কর্তৃত্ববাদের উত্থানের উপর নজরদারীতে নিয়োজিত থিঙ্ক ট্যাঙ্ক অ্যালায়েন্স ফর সিকিউরিং ডেমোক্রেসি অনুসারে, সোশ্যাল মিডিয়াতেও রাশিয়ার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত আরটি টেলিভিশন নেটওয়ার্কের স্প্যানিশ-ভাষা শাখার ১ কোটি ৮০ লাখেরও বেশি ফলোয়ার রয়েছে, যা ভয়েস অফ আমেরিকার স্প্যানিশ-ভাষার অনুগামীদের চেয়ে ১০ গুণ বেশি।

নিকারাগুয়ান প্রেসিডেন্ট ড্যানিয়েল ওর্তেগা সম্প্রতি ক্রিমিয়ান উপদ্বীপে একজন কনসাল নিয়োগ করেছেন, যা রাশিয়া ২০১৪ সালে ইউক্রেন থেকে অবমুক্ত করে নিচের অধীনে নিয়ে নেয়। এটি পুতিনকে এমন একটি অঞ্চলে রাশিয়ার গৌরব পুনরুদ্ধার করার সুয্গে করে দিয়েছে, যা দীর্ঘকাল ধরে ওয়াশিংটনের হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করেছে। লাতিন আমেরিকায় রাশিয়ান এবং চীনা প্রভাব বিশেষজ্ঞ ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজের গবেষক ইভান এলিস বলেছেন, ‘যেহেতু, পুতিন এখন ইউক্রেন থেকে ন্যাটোকে বিতাড়িত করতে চাইছেন, তিনি সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রের নিজস্ব প্রভাবের ওপর অন্তত একটি প্রতীকী খোঁচা দেবেন।’

যেহেতু যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্ররা কিউবা, নিকারাগুয়া এবং ভেনিজুয়েলার সরকারগুলিকে একঘরে করার পদক্ষেপ নিয়েছে, রাশিয়া মিত্রের শূন্যতা পূরণ করার চেষ্টা করছেন। সাম্প্রতিক দিনগুলিতে, তিনি কৌশলগত সহযোগিতা আরও গভীর করার উপায়গুলি অন্বেষণ করতে মাদুরো, ওর্তেগা এবং কিউবার মিগুয়েল দিয়াজ ক্যানেলের সাথে কথা বলেছেন। করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় সহায়তা করার জন্য তিনি কিউবায় চিকিৎসা সরবরাহ ভর্তি একটি বিমানও পাঠিয়েছেন।

যদিও রাশিয়ার লাতিন মিত্ররা যদিও রাশিয়ার অব্যাহত সাহায্যের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে, তবে এখনও পর্যন্ত তারা ইউক্রেনের বিষয়ে নীরব, যা থেকে অনকে ভাবছেন যে, তারা অন্য ভূ-রাজনৈতিক দ্বন্দ্বে আকৃষ্ট হতে অনিচ্ছুক। তবে, এ প্রসঙ্গে রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের ডেপুটি হেড দিমিত্রি মেদভেদেভ রুশ মিডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘কিউবা ও ভেনিজুয়েলা আমাদের ঘনিষ্ঠ দেশ, তারা আমাদের অংশীদার। তাই বলে আমরা সেখানে যাখুশি মোতায়েন করতে পারি না।’

মেদভেদেভ, যিনি ২০০৮-২০১২ সালে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন, যখন পুতিনকে মেয়াদ সীমার কারণে প্রধানমন্ত্রীর পদে স্থানান্তরিত হতে হয়েছিল, আরও বলেছেন, ‘সোভিয়েত আমলের মতো সেখানে ঘাঁটি স্থাপনের বিষয়ে কোনো কথা হতে পারে না।’ সূত্র : এপি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন