সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

মাগুরায় ভাটা শ্রমিকদের হামলার শিকার ভ্রাম্যমান আদালতের কর্মকর্তা কর্মচারী

মাগুরা থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২২, ১১:২০ পিএম

মাগুরায় ইটভাটায় অভিযান চালাতে গিয়ে ভাটা শ্রমিকদের হামলার শিকার হয়েছেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের দায়িত্বরত কর্মকর্তা কর্মচারীরা। একজনকে বেলচা দিয়ে আঘাত করে মাথা ফাটিয়ে ফেললে তারা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাটিকে বেমালুম অস্বীকার করেছেন।

মাগুরা জেলা প্রশাসনের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে মাগুরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে কর্মরত সহকারী কমিশনার জালাল উদ্দিনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি টিম সদর উপজেলার বাগবাড়িয়া-আড়পাড়া এলাকার বিভিন্ন ভাটায় অভিযান চালায়। এ সময় তারা ফোর স্টার নামে একটি ইটভাটায় গেলে তারা হামলার শিকার হন।

এলাকাবাসী জানান, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ম্যাজিস্ট্রেট জালাল উদ্দিন কয়েকজন পুলিশ এবং ডিসি অফিসের কর্মচারীদের নিয়ে ভাটায় ঢুকেই ভাঙচুর শুরু করেন। এ সময় ভাটার শ্রমিকরা বাধা দিতে গেলে মোবাইল কোর্টের সদস্যরা তাদের ওপর চড়াও হন। এ অবস্থায় ভাটার শ্রমিকরা এবং এলাকাবাসী লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালান। কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিতের পাশাপাশি একরামুল হক ডলারকে বেলচা দিয়ে আঘাত করে তারা মাথা ফাটিয়ে ফেলে। এ অবস্থায় পরিস্থিতি বেগতিক দেখে মোবাইল কোর্টের সদস্যরা সটকে পড়েন।

ঘটনার পর আহত একরামুল হক ডলারকে মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তার মাথায় চারটি সেলাই দেওয়া হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

ফোর স্টার ভাটার অংশীদার কামরুজ্জামান মোল্যা অভিযোগ করেন, সরকারকে নিয়মিত কর-খাজনা দিয়েই আমরা ভাটা চালাচ্ছি। আমাদের যাবতীয় কাগজপত্র রয়েছে। তারপরও মৌসুমের শুরুতে প্রশাসনকে একবার টাকা দিতে হয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারি, ১৬ ডিসেম্বরসহ নানা বিষয়ে এলআর ফান্ডের নামে যখন যে টাকা ধার্য করে দিচ্ছে তাই দিচ্ছি। তারপরও যখন তখন মোবাইল কোর্টের গাড়ি নিয়ে এসে তারা ভাটায় ভাঙচুর করে। এটি অত্যাচার।

তবে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন ওই ভাটার অপর অংশীদার আবু তালহা। তিনি বলেন, আমাদের ভাটার বৈধ কাগজপত্র আছে কিনা তারা সেটি দেখতে চাইতে পারেন। কিন্তু তা না করে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ডিসি অফিসের কর্মচারী ডলার ভাটায় ঢুকেই কাঁচা ইট ভাঙতে শুরু করেন। যে কারণে গ্রামের লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের ওপর হামলা চালিয়েছেন।

ভাটায় হামলার শিকার আহত মাগুরা ডিসি অফিসের কর্মচারী রেকর্ড রুমের অফিস সহায়ক একরামুল হক ডলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

তবে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর হামলা, ভাংচুর এবং লাঞ্ছিতের ঘটনা বেমালুম অস্বীকার করেছেন মোবাইল কোর্টের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জালাল উদ্দিন।

তিনি বলেন, ভাটায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা নিয়মিত কাজের একটি অংশ। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই সেখানে গিয়েছিলাম। তাদের ভাটার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র অফিসে দেখানোর জন্যে বলা হয়েছে। সেখানে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটেনি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps