বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

মেডিয়েশনের মাধ্যমে মামলা নিষ্পত্তিতে কোনো পক্ষ হারে না

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ভার্চুয়ালি বিচারপতি আহমেদ সোহেল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৬ মার্চ, ২০২২, ১২:০১ এএম

হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি আহমেদ সোহেল বলেছেন, মামলা বা বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য মেডিয়েশন একটি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে দ্রুত ও কম সময়ে মামলা নিষ্পত্তি করা যায়। মেডিয়েশনের মাধ্যমে মামলা নিষ্পত্তি হলে কোনো পক্ষ হারে না। উভয়পক্ষের মধ্যে উইন-উইন সিচুয়েশন বিরাজ করে। মামলাজট নিরসনে মেডিয়েশন পদ্ধতি ব্যাপকভাবে প্রয়োগ করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।
গতকাল শনিবার ভোলা জেলার বিচারক ও প্যানেল মেডিয়েটরদের ৪০ ঘণ্টাব্যাপি ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ কর্মশালার তৃতীয় দিনে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল মেডিয়েশন সোসাইটি (বিমস) এ প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করে।

বিচারপতি আহমেদ সোহেল বলেন, দেশের বিচার বিভাগে ৪০ লাখ মামলা বিচারাধীন রয়েছে। দিনের পর দিন মামলাজট বেড়ে চলছে। আমি বিশ্বাস করি মামলাজট নিরসনের জন্য মেডিয়েশন সর্বোত্তম পদ্ধতি হতে পারে। বিচার ব্যবস্থায় মেডিয়েশন পদ্ধতি প্রয়োগ করে পশ্চিমা বিশ্বসহ পৃথিবীর উন্নত দেশগুলো সফলতা পেয়েছে।
তিনি বলেন, আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতে ৪০ হাজার মেডিয়েশন সেন্টার রয়েছে। উন্নত বিশ্বের আদলে বাংলাদেশে ইন্টারন্যাশনাল মেডিয়েশন একাডেমি স্থাপন করা উচিত। এর অধীনে সারা দেশে মেডিয়েশন সেন্টার স্থাপন করলে মামলাজট নিরসনে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে বলে আমি বিশ্বাস করি। তিনি মেডিয়েশনের জন্য প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

মেডিয়েশন পদ্ধতিকে সাধারণ মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় করে তুলতে গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা বাড়ানো উচিত বলেও মন্তব্য করেন বিচারপতি সোহেল। অ্যাক্রিডিটেড মেডিয়েটর পংকজ কুমার কুন্ডুর সঞ্চালনায় প্রশিক্ষণ কর্মশালার তৃতীয় দিনে বিমসের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এস এন গোস্বামীসহ দেশের ও আন্তর্জাতিক মেডিয়েশন বিশেষজ্ঞরা বক্তব্য রাখেন।
ভোলার ১৯ জন বিচারক ও ২০ জন প্যানেল মেডিয়েটর প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নেন। প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে রয়েছেন আপিল বিভাগের সিনিয়র বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন