বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯, ২৯ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

পুঁজিবাজারে বড় উত্থান : বিএসইসি’র ইতিবাচক সিদ্ধান্ত

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ মার্চ, ২০২২, ১১:৫৮ পিএম

সার্কিট ব্রেকারের (সিকিউরিটিজের দাম বাড়া বা কমার সর্বোচ্চ সীমা) নতুন নিয়ম চালু করার পর গতকাল বুধবার দেশের পুঁজিবাজারে বড় ধরনের উত্থান হয়েছে। প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেনে অংশ নেওয়া প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। এতে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ১৫৫ পয়েন্টের ওপরে বেড়ে গেছে। গত ১৪ মাসে বা ২০২১ সালের ৩ জানুয়ারির পর সূচকের এত বড় উত্থান আর দেখা যায়নি। এমন বড় উত্থানের ফলে ডিএসইর বাজার মূলধন একদিনেই ১১ হাজার কোটি টাকার ওপরে বেড়ে গেছে।

এর আগে গত ২৪ ফেব্রæয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করার পর দেশের শেয়ারবাজারে টানা দরপতন দেখা দেয়। এতে গত সোমবার পর্যন্ত শেষ আট কার্যদিবসের মধ্যে সাত কার্যদিবসেই পতন দিয়ে পার করেছে শেয়ারবাজার। এ পতনের মধ্যে পড়ে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ৪৯২ পয়েন্ট কমে যায়। আর গত মঙ্গলবার প্রথম ঘণ্টার লেনদেন পার হওয়ার আগেই ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ১৩৮ পয়েন্ট পড়ে যায়। এ পরিস্থিতিতে বড় দরপতন ঠেকাতে সার্কিট ব্রেকারের নতুন নিয়ম চালু করার সিদ্ধান্ত নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বিএসইসি এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার সংবাদ সকাল ১১টার পর থেকেই বাজারে আসতে শুরু করে, যা টনিকের মতো কাজ করে। ফলে বড় পতন থেকে বেরিয়ে সূচকের কিছুটা উত্থান দিয়ে শেষ হয় গত মঙ্গলবারের লেনদেন। লেনদেন শেষ হওয়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে সার্বিক ব্রেকারের নতুন নিয়ম চালুর ঘোষণা দেয় বিএসইসি। যা কার্যকর হয়েছে আজ বুধবার থেকে।

সার্কিট ব্রেকারের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এখন থেকে একদিনে কোন প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বা ইউনিটের দাম সর্বোচ্চ দুই শতাংশ পর্যন্ত কমতে পারবে। বিপরীতে শেয়ারের দামের ওপর ভিত্তি করে সর্বোচ্চ ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত দাম বাড়তে পারবে।
এ ক্ষেত্রে ২০০ টাকার নিচে থাকা প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বা ইউনিটের দাম একদিনে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ বাড়তে পারবে। একইভাবে ২০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে থাকা প্রতিষ্ঠানের ৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ, ৫০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে থাকলে ৭ দশমিক ৭০ শতাংশ, এক হাজার থেকে দুই হাজার টাকার মধ্যে থাকলে ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ, দুই হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকার মধ্যে থাকলে ৫ শতাংশ এবং পাঁচ হাজার টাকার ওপরে হলে সর্বোচ্চ ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত দাম বাড়তে পারবে।

সার্কিট ব্রেকারের এ নতুন নিয়মে বুধবার শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরু হতেই প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়ে যায়। এতে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫০ পয়েন্টের ওপরে বেড়ে যায়। লেনদেনের শুরুতে দেখা দেওয়া এ বড় উত্থান প্রবণতা লেনদেনের শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে এবং লেনদেনের সময় যত গড়াতে থাকে সূচকের উত্থান প্রবণতা তত বাড়তে থাকে।

দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৫৫ দশমিক ৭৩ পয়েন্ট বেড়ে ৬ হাজার ৬৩০ পয়েন্টে উঠে এসেছে। গত বছরের ৩ জানুয়ারির পর একদিনে সূচকের এতো বড় উত্থান আর দেখা যায়নি। গত বছরের ৩ জানুয়ারি ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ২১৬ পয়েন্ট বাড়ে। এর পর গত ১৪ মাসের মধ্যে একদিনে আর দেড়শ পয়েন্টের ওপরে বাড়ার ঘটনা ঘটেনি।
প্রধান মূল্যসূচকের পাশাপাশি বড় উত্থান হয়েছে অপর দুই সূচকের। এর মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৩০ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৪২৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ৪১ পয়েন্ট বেড়ে ২ হাজার ৪১৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩৬৫টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩টির। আর ১০টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৭৭৩ কোটি এক টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৭৪৬ কোটি ৯ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ২৬ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

প্রায় সবকটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ায় ডিএসইর বাজার মূলধন একদিনেই ১১ হাজার ৪৬৯ কোটি টাকা বেড়ে গেছে। আগের দিন ডিএসইর বাজার মূলধন ছিল ৫ লাখ ২২ হাজার ১৭১ কোটি টাকা, যা বুধবার লেনদেন শেষে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৬৪০ কোটি টাকা। বাজার মূলধন বাড়ার অর্থ ডিএসইতে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার ও ইউনিটের দাম সম্মিলিতভাবে ওই পরিমাণ বেড়েছে।

ডিএসইতে টাকার অংকে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর শেয়ার। কোম্পানিটির ৪০ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের ২৯ কোটি ৭৭ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ২৫ কোটি ৬৫ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ফরচুন সুজ।
এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছে-ড্রাগন সোয়েটার, ওরিয়ন ফার্মা, ব্র্যাক ব্যাংক, একমি পেস্টিসাইড, অগ্নি সিস্টেম, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ এবং ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ৩৮২ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া ২৯৩টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ২৫০টির। বিপরীতে দাম কমেছে ৩২টির এবং ১১টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps