শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দেশ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতায় এগিয়ে যাচ্ছে

কানাডা-বাংলাদেশ বন্ধুত্বের ৫০ বছরে সালমান এফ রহমান

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ মার্চ, ২০২২, ১২:০০ এএম

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং দীর্ঘ সময় একই সরকার ক্ষমতায় থাকায় দেশের ধারাবাহিক উন্নতি হয়েছে। বাংলাদেশ ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সেরা তিনটি সফলতার পরিমাপক হল-কৃষিতে সাফল্য, ১০০ শতাংশ বিদ্যুতায়ন এবং ডিজিটালাইজেশন। গতকাল কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের যৌথ উদ্যোগে কানাডা-বাংলাদেশের বন্ধুত্বের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটরিয়ামে কানাডা-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ, এ জার্নি অফ ফিফটি ইয়ার্স শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সালমান এফ রহমান বলেন, বাংলাদেশকে প্রথম দিকে স্বীকৃতি দেয়া দেশগুলোর মধ্যে কানাডা অন্যতম। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যখন দেশ পরিচালনা করছিলেন, কানাডার বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বাবা তখন সেই দেশটির প্রধানমন্ত্রী। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার গভীর বন্ধুত্ব ছিল। সেই ঐতিহাসিক বন্ধুত্বের ধারাবাহিকতায় চলমান বন্ধুত্ব অটুট থাকবে, সম্পর্ক আরও এগিয়ে যাবে।

বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় কানাডার ভূমিকার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে সহযোগিতার জন্য আমি দেশটিকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই। গত ৫০ বছর ধরে বাংলাদেশ-কানাডার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, পারস্পরিক সহযোগিতা দিনে দিনে আরও শক্তিশালী হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গঠনের দায়িত্ব নিয়ে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ রূপরেখা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভেবে রেখেছিলেন বলেও জানান সালমান এফ রহমান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী প্রায়ই বলেন, তিনি যে কাজটি করতে যান, দেখতে পান সেটিই ভেবে রেখেছেন জাতির পিতা। জাতির পিতার সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনি তা বাস্তবায়ন করছেন।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর ২১ বছর দেশের কোনো উন্নয়ন হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, আমি কোনো পরিসংখ্যান তুলে ধরতে চাই না। নতুন প্রজন্মকে বলব, আপনাদের সামনে তথ্য আছে। আপনারা সেই ২১ বছরের সঙ্গে গত ১৩ বছরকে তুলনা করুন। তাহলে দেখবেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কতটা অভাবনীয় উন্নতি করেছে।

সালমান এফ রহমান বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার কোনো বিকল্প নেই। আর সরকারের ধারাবাহিকতা ছিল বলেই এই অর্জন সম্ভব হয়েছে। ক্ষমতায় যিনি থাকবেন, তাকেও মানুষের কল্যাণে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হতে হয়। আর সে কারণেই আজকে আমাদের এই অর্জন।

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বের মতো বাংলাদেশকেও চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে বলে জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে আমাদের সরকারের অবস্থান খুবই পরিষ্কার। কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়, সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব। পররাষ্ট্রনীতিতে বঙ্গবন্ধুর এই দর্শন নিয়ে দেশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল তার বক্তব্যে বারবার ভোকেশনাল ট্রেনিং এবং ব্যবহারিক শিক্ষার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন। একের অধিক বিষয়ে প্রশিক্ষণ লাভ করে নিজেদেরকে প্রতিযোগিতাময় চাকরি ক্ষেত্রের জন্য উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণিত করেন তিনি।

অনুষ্ঠানের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক কানাডার রাষ্ট্রদূত লিলি নিকলস বলেন, বাংলাদেশ পুরো বিশ্বের জন্য একটি আদর্শ দৃষ্টান্ত। যেভাবে গত ৪০ বছরে দারিদ্র্য দূরিকরণ হয়েছে, মৃত্যুহার কমেছে এবং গড় আয়ু বেড়েছে, তা একটি উদাহরণ হয়ে থাকবে। কিন্তু পাশাপাশি ভুলে গেলে চলবে না, এখনকার মূল চ্যালেঞ্জগুলো হলো- নারী-পুরুষ বৈষম্য, মেরুকরণ এবং তরুণদের নিজেদেরকে সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন ও বহির্ভূত ভাবার প্রবণতা। একই সঙ্গে অতীতে কানাডা সব সময়েই বাংলাদেশের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়েছে।

অনুষ্ঠানের সভাপতি কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ-এর প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ শুরু থেকেই কানাডিয়ান হাইকমিশনের সহায়তায় শিক্ষা, গবেষণা ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে এবং এ সম্পর্ক ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। আমরা গর্বিত, কানাডার রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশে নিয়োগ লাভের পর প্রথম জনসম্মুখে বক্তৃতা দিয়েছেন আমাদের এই বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানাই এবং আশা করছি কানাডা এবং বাংলাদেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সহযোগিতার সূত্র ধরে কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাবে।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আব্দুল মোনেম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. এস. এম. মঈনউদ্দীন মোনেম, পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কমকর্তা তারেক রিয়াজ খান, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সিনিয়র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. এইচ এম জহিরুল হকসহ সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষকমন্ডলী, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা। #

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps